Home /News /life-style /
Ayurvedic skin care tips: হলুদ, চন্দন আর নানা ভেষজের সমাহার! ত্বকের যত্নে আয়ুর্বেদিক নালপামারাদি তেলের জাদুর কথা জানা আছে কি?

Ayurvedic skin care tips: হলুদ, চন্দন আর নানা ভেষজের সমাহার! ত্বকের যত্নে আয়ুর্বেদিক নালপামারাদি তেলের জাদুর কথা জানা আছে কি?

প্রতীকী ছবি৷

প্রতীকী ছবি৷

নালপামারাদি’র তেলে হলুদ, সাদা চন্দন, ভারতীয় গুজবেরি, মঞ্জিষ্ঠা, ভারতীয় কস্টাসের শিকড়ের মতো ভেষজ, ফল এবং উদ্ভিদের নির্যাস ব্যবহার করা হয়।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: গরম আর দূষণের মধ্যে ত্বককে চকচকে ও উজ্জ্বল রাখাই সবচেয়ে কঠিন কাজ। এমনকী প্রতিদিন সানস্ক্রিন মাখার পরেও অনেক সময় ট্যান আটকানো যায় না। তার ওপর ক্রমাগত সূর্যের তাপে হাইপারপিগমেন্টেশন, গাঢ় ছোপ এবং নিস্তেজ হওয়ার মতো ত্বকের নানা সমস্যা দেখা দেয়।

এইসব সমস্যার সমাধানে দারুণ টোটকা আছে আয়ুর্বেদে। সেটা হল প্রাকৃতিক স্কিন ইলুমিনেটর ‘নালপামারাদি তৈলম’। এটা ত্বকের টেক্সচারকে পুনরুজ্জীবিত করে। পাশাপাশি ভেতর থেকে ফিরিয়ে আনে ত্বকের হারিয়ে যাওয়া উজ্জ্বলতা। ভারতীয় আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার প্রাচীনতম গ্রন্থ ‘সহস্রায়োগম’। এতে হাজারের বেশি ভেষজ ওষুধের সূত্র লিপিবদ্ধ করা আছে। এই গ্রন্থেই রয়েছে ‘নালপামারাদি তৈলম’-এর কথা।

আরও পড়ুন: যৌবন ধরে রাখতে চান! এই ফেসিয়ালে আপনি ধরে রাখুন সৌন্দর্য্যের আগুন

‘নালপামারাদি’ নামটি এসেছে ‘নালপামারাম’ থেকে। যার অর্থ ৪টি ফিকাস গাছ। পিপুল গাছের মতো ফিকাস গাছের কাণ্ডের ছাল থেকে তেল তৈরি করা হয়। এই তেল প্রশান্তিদায়ক এবং এর ত্বক পরিষ্কার করার ক্ষমতা প্রমণিত। এই গাছের ছালগুলো ত্বকের বিভিন্ন চিকিৎসা ছাড়াও আলসার এবং স্নায়ুর রোগের চিকিৎসাতেও ব্যবহৃত হয়।

ত্বকের রোগের চিকিৎসায় ‘নালপামারাদি’র তেলে হলুদ, সাদা চন্দন, ভারতীয় গুজবেরি, মঞ্জিষ্ঠা, ভারতীয় কস্টাসের শিকড়ের মতো ভেষজ, ফল এবং উদ্ভিদের নির্যাস ব্যবহার করা হয়। সঙ্গে যে ৪ ধরনের ফিকাস গাছের ছাল ব্যবহার করা হয় সেগুলি হল বট, ডুমুর, পাকুড় এবং কামরূপ। ‘নালপামারাডি’ সম্পর্কে যে ৫ জিনিস জানতেই হবে তার তালিকা এখানে দেওয়া হল।

আরও পড়ুন: কাঁচা খেয়ে থাকেন অনেকেই পুষ্টিগুণের ফায়দা নিতে; তবে এই ৫ সবজি রান্না করে খেলেই উপকার বেশি

ক) এতে প্রচুর পরিমাণে হলুদ থাকে। এর ডেরিভেটিভ ত্বককে উজ্জ্বল করে। ‘নালপামারাদি’তে হলুদ একটি উল্লেখযোগ্য ভেষজ। কারণ এটা ত্বকে প্রাকৃতিক আভা এনে দেয় পাশাপাশি কালো দাগ, ছোপ দূর করে।

খ) ‘নালপামারাদি’ ত্বকের ডিটক্সিফিকেশনে সাহায্য করে। এতে দেওয়া হয় ত্রিফলা। অর্থাৎ আমলা, হরিতকি এবং বহেরা। এই তিনটি ফলকে আয়ুর্বেদে ত্বক শুদ্ধকারী ভেষজ হিসেবে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। এগুলো দূষণ, ধুলো, নোংরা, অতিবেগুনি রশ্মির ফলে যে ক্ষতি হয় তা ডিটক্সিফাই এবং মেরামত করে।

গ) দেওয়া হয় চন্দন কাঠ এবং খুসের মতো শীতল এবং প্রশান্তিদায়ক ভেষজ। এগুলো শরীরের তাপ কমায়, পিত্তি নিয়ন্ত্রণে রাখে সঙ্গে লালভাব এবং সংক্রমণের চিকিৎসায় সাহায্য করে।

ঘ) মঞ্জিষ্ঠা হল ‘নালপামারাদি’র অন্যতম প্রধান উপাদান। এটা ব্রণ, দাগ এবং কালো দাগের চিকিৎসায় সাহায্য করে পাশাপাশি ত্বকের টেক্সচার এবং রঙ বাড়ায়।

ঙ) ‘নালপামারাদি’তে থাকে ভেটিভারের তেল। এই আয়ুর্বেদিক উপাদানটি ত্বককে শীতল রাখে। এর শিকড় মিষ্টি এবং সুগন্ধযুক্ত। ব্রণ, শুষ্ক ত্বক, জ্বালা ভাব, বার্ধক্যজনিত ত্বক – সবই এর শিকড় থেকে তৈরি তেলে চিকিৎসা করা হয়।

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Ayurveda, Skin Care

পরবর্তী খবর