• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • MISOGYNISTIC CONTENT ONLINE SURGED BY 168 PERCENT DURING LOCKDOWN FINDS UN STUDY TC SS

নারীবিদ্বেষের অতিমারী! লকডাউন পর্বে মেয়েরা অত্যাচারিত সারা বিশ্ব জুড়েই, বলছে সমীক্ষা!

Photo: Collected

সম্প্রতি যে রিপোর্ট একটি সমীক্ষা মারফত বিশ্বের দরবারে হাজির করেছে ইউনাইটেড নেশনস (United Nations)।

  • Share this:

#কলকাতা: এমনটা যে হতে পারে, সেই আশঙ্কা ছিল শুরু থেকেই। কোভিড ১৯ (Covid 19) ভাইরাসের সংক্রমণ যাতে না ঘটে, সে বিষয়ে জনস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য চলতি বছরের অনেকটা সময় ধরে লকডাউন (Lockdown) পালন করা হয়েছে সারা বিশ্বের প্রায় প্রতি কোণে। আর জনস্বাস্থ্য রক্ষার এই প্রয়াসই বিপদের আবহ তৈরি করেছে মেয়েদের পক্ষে। সাংসারিক ক্ষেত্রে যাঁরা প্রতিনিয়ত অবহেলার শিকার, পারিবারিক হিংসার (Domestic Violence) সম্মুখীন যাঁদের হতে হয় প্রায় রোজ, এই লকডাউন পর্বে তার মাত্রা বেড়ে গিয়েছে অকল্পনীয় ভাবে! সম্প্রতি যে রিপোর্ট একটি সমীক্ষা মারফত বিশ্বের দরবারে হাজির করেছে ইউনাইটেড নেশনস (United Nations)।

এই জায়গায় এসে জানিয়ে না রাখলেই নয়- সমীক্ষাটি যতই ইউনাইটেড নেশনস-এর দ্বারা পরিচালিত হোক না কেন, তা কেবলমাত্র ওই দেশের পরিবার এবং সেই সব পরিবারের নারীদের মধ্যেই সীমিত থাকেনি। এই সমীক্ষা করা হয়েছে প্রায় সারা বিশ্ব জুড়ে। এর মধ্যে বিশেষ ভাবে বিপজ্জনক অবস্থানে রয়েছে দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অনেকগুলো দেশ। যার মধ্যে বার বার করে উঠে এসেছে ভারত (India), শ্রীলঙ্কা (Sri Laka) আর মালেশিয়ার (Malaysia) নাম।

সমীক্ষা বলছে যে এই লকডাউন পর্বে উপরে উল্লিখিত দেশগুলিতে তো বটেই, পাশাপাশি সারা বিশ্বেই নারীবিদ্বেষী (Misogyny) মানসিকতার প্রসার ঘটেছে স্তম্ভিত করে দেওয়ার মতো দ্রুত বেগে। গত বছরের মার্চ মাস থেকে জুন মাসের মধ্যে পরিসংখ্যান যা ছিল, সেই তুলনায় চলতি বছরে পরিমাণ বেড়ে গিয়েছে ১৬৮ শতাংশ। সমাজের এই মানসিকতার প্রতিফলন ঘটেছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও (Social Media)। বিশেষ করে ফেসবুক (Facebook) ছেয়ে গিয়ে অসংখ্য নারীবিদ্বেষী পোস্টে। এই সব লেখা আর ছবিতে লাইক, কমেন্ট এবং তা শেয়ার করার প্রবণতাও বেড়ে গিয়েছে সমান তালে।

শুধু এটুকুই নয়। পাশাপাশি ইউনাইটেড নেশনস-এর এই সমীক্ষা বলছে যে চলতি বছরের লকডাউন পর্বে ভারত, শ্রীলঙ্কা, মালেশিয়া, ফিলিপিন্স (Philippines), ইন্দোনেশিয়ার (Indonesia) গুগল (Google) ট্রেন্ড অনুসরণ করে দেখা গিয়েছে যে এই সব দেশের পুরুষদের মধ্যে নারীবিদ্বেষী গালাগালি (Profanity) খোঁজার প্রবণতাও বেড়ে গিয়েছে!

একই সঙ্গে, এই লকডাউন পর্বে আগের চেয়েও অনেক বেশি করে বেড়ে গিয়েছে নারীপাচারের (Woman Trafficking) মতো ঘটনাও। লকডাউন পর্বে কোনও রকম সুরাহা বা সাহায্য পাননি এই ক্ষেত্রে নারীরা, যৌন ব্যবসায় তাঁদের উপরে অত্যাচারের মাত্রাও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে বলে জানাচ্ছে ইউনাইটেড নেশনস-এর এই সমীক্ষা।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: