লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

একাকিত্ব বাড়িয়ে দিতে পারে মহিলাদের উচ্চ রক্তচাপের প্রবণতা, বলছে নয়া সমীক্ষা!

একাকিত্ব বাড়িয়ে দিতে পারে মহিলাদের উচ্চ রক্তচাপের প্রবণতা, বলছে নয়া সমীক্ষা!
photo source collected

পুরুষদের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি আবার সম্পূর্ণ বিপরীত।

  • Share this:

করোনাকালে একা থাকার বিষয়টি আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। কেন না, আজকাল মানুষজন সামাজিক ভাবেও বিচ্ছিন্ন। সংক্রমণের ভয়ে এখনও হিসেব করেই সবাই বাড়ির বাইরে পা ফেলছেন। তবে শুধু এই পরিস্থিতি নয়, অন্য যে কোনও সময়েই একা থাকা বা সামাজিক ভাবে বিচ্ছিন্ন থাকা কিন্তু খুব একটা ভালো বিষয় নয়। দীর্ঘদিন একা থাকা শরীরে খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। পুরুষ ও মহিলা উভয় ক্ষেত্রে এই প্রভাব না কি আবার আলাদা! সম্প্রতি এমনই তথ্য তুলে ধরেছে এক সমীক্ষা। সমীক্ষা বলছে, একাকিত্ব মহিলাদের উচ্চ রক্তচাপে ভোগার ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। হাইপারটেনশনের কারণও হতে পারে।

ব্রিটিশ কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের এক দল গবেষক এই সমীক্ষা চালিয়েছেন। তাঁদের গবেষণা বলছে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মধ্যবয়স্কা ও প্রবীণারা প্রতিটি সামাজিক অনুষ্ঠান বা কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করেন না। সামাজিক কার্যকলাপগুলিতে তাঁদের সে ভাবে কোনও যোগদান থাকে না। আর এই বিচ্ছিন্নতা হাইপারটেনশনের জন্ম দেয়। যার ফলে হৃদরোগ হতে পারে। এমনকি স্ট্রোক পর্যন্তও হতে পারে। গবেষকরা ৪৫-৮৫ বছর বয়সের মধ্যে প্রায় ২৮,২৩৮ জন মহিলার সোশ্যাল বন্ড নিয়ে দীর্ঘ সমীক্ষা করেন। দেখা গিয়েছে যে যাঁরা সিঙ্গল রয়েছেন বা একটু বয়স্ক, তাঁদের ক্ষেত্রে এই একা থাকার পরিমাণটা বেশি। এঁরা সামাজিক ভাবে সে রকম মেলা-মেশা করেন না। পার্টি বা অনুষ্ঠান থেকেও অনেক দূরে থাকেন। এর জেরে হাইপারটেনশন বা এই জাতীয় রোগে বেশি করে ভুগতে শুরু করেন। তবে এই বিধবা, একা থাকা বা সিঙ্গল মেয়েদের ক্ষেত্রে শুধু হাইপারটেনশন নয়, সিস্টোলিক ব্লাড প্রেসারের পরিমাণও ধীরে ধীরে বেড়ে যায়। অন্য দিকে, বিবাহিত মহিলাদের ব্লাড প্রেসার তুলনামূলক ভাবে অনেকটা কম বলেই সমীক্ষার দাবি!

পুরুষদের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি আবার সম্পূর্ণ বিপরীত। দেখা গিয়েছে, যে পুরুষদের সোশ্যাল নেটওয়ার্ক অনেক বেশি, তাঁদের হাই ব্লাড প্রেসার রয়েছে। অন্য দিকে যে পুরুষদের সোশ্যাল নেটওয়ার্ক কম এবং যাঁরা একা থাকতে পছন্দ করেন, তাঁদের ব্লাড প্রেসার কম।

গবেষকদের পরামর্শ- নিজেদের শরীর ও স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে যথাযথ সামাজিক মেলামেশাটা প্রয়োজন। তবে শুধুমাত্র সামাজিক কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করলে হবে না। নিয়মিত শরীরচর্চা, যোগ ব্যায়াম, মেডিটেশন, সুষম ডায়েটও অত্যন্ত জরুরি। যদি কেউ যথাযথ খাবার খান, নিয়মিত শরীরচর্চা করেন এবং আত্মীয় বা আশেপাশের বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে সময় কাটান, তা হলে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে থাকবে উচ্চ রক্তচাপ। হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের সম্ভাবনাও কমানো যাবে।

Published by: Piya Banerjee
First published: October 31, 2020, 7:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर