করোনা সংক্রমণের খবর কি মানসিক স্বাস্থ্য নষ্ট করতে পারে, কী বলছে ‘হু’ এর নির্দেশিকা

করোনা সংক্রমণের খবর কি মানসিক স্বাস্থ্য নষ্ট করতে পারে, কী বলছে ‘হু’ এর নির্দেশিকা
করোনার খবরে মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি?

সম্প্রতি এই প্রসঙ্গে একটি নির্দেশিকাও জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’৷ সেই নির্দেশিকায় বলা বলা হয়েছে তিনটি বিধির কথা৷

  • Share this:

শরীরের দফারফা করে দিতে পারে করোনা৷ তা আর জানতে বাকি নেই বিশ্ববাসীর৷ এর মধ্যেই প্রাণ গিয়েছে ৬৪০০ জনের৷ আক্রান্ত দেড় লক্ষেরও বেশি মানুষ৷ কিন্তু মানসিক স্বাস্থ্য? করোনা সংক্রমণের খবর কি মানসিক স্বাস্থ্যেও প্রভাব ফেলতে পারে? প্রশ্নের উত্তরে, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’ বলছে, হ্যাঁ মানসিক স্বাস্থ্য নষ্ট করার ক্ষমতা বহন করে এই খবর৷ শুধু সংক্রমিত ব্যক্তিই নন, করোনা আতঙ্কেও মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটাতে পারে যারা এই খবরগুলির প্রতিনিয়ত দেখছেন তাঁদের৷

সম্প্রতি এই প্রসঙ্গে একটি নির্দেশিকাও জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’৷ সেই নির্দেশিকায় বলা বলা হয়েছে তিনটি বিধির কথা৷

১ উদ্বেগ এড়াতে সারাক্ষণ এই বিষয়ের খবর দেখা বন্ধ রাখতে হবে৷

২ মূলত কী ভাবে নিজেকে সুস্থ রাখব সে ব্যাপারে তথ্য যোগাড় করার দিকে জোর দিতে হবে৷

৩ একটি নির্দিষ্ট সময় অন্তর তথ্য সংগ্রহ করতে হবে৷

মনোবিদরা বলছেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ কোনও জাত-ধর্ম-বর্ণ দেখে হয় না৷ কাজেই বিদ্বেষমূলক মন্তব্য একজন আক্রান্তকে অন্ধকারে ঠেলে দিতে পারে৷ এমনিতেই করোনার আঁতুরঘর উহান হওয়ায় অনলাইন বা অফলাইনে বহু বর্ণ বিদ্বেষী মন্তব্য উড়ে এসেছে পশ্চিমী দেশের অনেক নাগরিক থেকে৷ মনোবিদরা এই আতঙ্কজনক পরিস্থিতিতে তার আর পুনরাবৃত্তি চাইছেন না৷

একই সঙ্গে মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে একজন করোনা আক্রান্তের প্রাথমিক পরিচয় তিনি ‘করোনা আক্রান্ত’, ‘কোভিড-১৯ পেশেন্ট ’ এমনটা নয় বরং তাঁকে সংক্রমণের সঙ্গে লড়ে সুস্থতার পথে এগিয়ে যাওয়া এক ব্যক্তি বলেই চিহ্নিত করা উচিত৷ কারণ ভাইরাস সংক্রমণটি এক সময় প্রতিহত করা সম্ভব হবে৷ আবিশ্ব খোঁজ চলছে প্রতিষেধকের৷ কিন্তু একবার কাউকে দাগিয়ে দিলে তিনি চিহ্নিতই হয়ে যাবেন৷

প্রসঙ্গত, করোনা সংক্রান্ত খবর সংগ্রহের জন্যে একটি নিউজ ওয়েবসাইট বা খবরের কাগজের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে নির্ভরযোগ্য নানা মাধ্যমই ঘুরিয়ে ফিরিয়ে দেখতে বলা হচ্ছে৷ তবে বেশি নয়৷ দিনে দুবার তথ্য সংগ্রহ করলেই হল৷

First published: March 16, 2020, 11:08 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर