International Women’s Day 2021: বিয়ের পর সুরক্ষিত রাখুন অর্থনৈতিক অধিকার, নজর দিন এই দিকগুলোয়!

International Women’s Day 2021: বিয়ের পর সুরক্ষিত রাখুন অর্থনৈতিক অধিকার, নজর দিন এই দিকগুলোয়!

Photo -Collected

বিয়ে হয়ে গিয়েছে তাই এখন থেকে বাবা নয়, স্বামীই দেখবেন টাকা পয়সার দিকটা, এই পুরনো ধারনা ভেঙে বেরিয়ে আসার সময় হয়ে গিয়েছে।

  • Share this:

#কলকাতা: কেউ চাকরি করেন, কেউ করেন না। কেউ আবার বিয়ের পর সাত-পাঁচ ভেবে ব্রেক নেন চাকরি জীবন থেকে। কিন্তু চাকরিরতা থেকে গৃহবধূ, নিজের স্থাবর অস্থাবর সম্পত্তি সামলানো থেকে শুরু করে ব্যাঙ্ক ব্যালেন্সের দেখভাল পর্যন্ত সব কিছুর জন্য নির্ভর করেন স্বামীর উপরে। অথচ খুব সহজ করে ভাবলে বিয়ের পর মেয়েদের এই বিষয়ে আরও বেশি করে ওয়াকিবহাল হওয়ার কথা। স্বাধীন হওয়ার অর্থ শুধুই চাকরি বা ব্যবসা করে রোজগার করা নয়। বরং সেই অর্থ কী ভাবে বিনিয়োগ করা উচিৎ বা উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি নিয়ে কী করা উচিৎ, সেই নিয়েও সিদ্ধান্ত নেওয়ার যোগ্যতা থাকা দরকার। বিয়ে হয়ে গিয়েছে তাই এখন থেকে বাবা নয়, স্বামীই দেখবেন টাকা পয়সার দিকটা, এই পুরনো ধারনা ভেঙে বেরিয়ে আসার সময় হয়ে গিয়েছে। কয়েকটি সহজ পদক্ষেপ অনুসরণ করে নিজেই নিজের অর্থনৈতিক অধিকার বুঝে নিন।

১) টাকা পয়সা নিয়ে আগেই কথা বলে নিন

এটা শুনেই কিন্তু বাড়ির লোক ছি-ছি করতে পারে। ওসব কথায় একদম কান দিলে হবে না। বিয়ের আগে হবু স্বামী বা প্রেমিকের সঙ্গে শুধুই চাঁদ, তারা আর ফুল নিয়ে কথা বললে হবে না। আপনি যদি স্বনির্ভর হন বা ভবিষ্যতে জমানো পুঁজি দিয়ে কিছু করার ইচ্ছে থাকে, সেটা নিয়ে হবু স্বামীকে খুলে বলুন। আপনার টাকা-পয়সা যে আপনি নিজেই সামলাতে চান, সেটাও আগে থেকে স্পষ্ট করে বলে দেওয়া ভালো। অবশ্য তার মানে এই নয় যে স্বামীর কাছ থেকে কোনও পরামর্শ নেওয়া চলবে না। অবশ্যই চলবে, কিন্তু এই বিষয়ে আপনার ধারণাও যে বেশ স্বচ্ছ সেটা জানিয়ে রাখা মঙ্গল।

২) চুক্তি করে নেওয়া দু'জনের পক্ষেই ভালো

তথাকথিত ভারতীয় সমাজে এই সব শব্দ কানে লাগে। কিন্তু এটাই ঘোর বাস্তব। সব সম্পর্ক সরল রেখার মতো একমুখী হয় না। হতে পারে যাকে আপনি বিয়ে করছেন তিনি একজন বিবাহবিচ্ছিন্ন পুরুষ বা আপনিও নিজেও বিবাহবিচ্ছিনা হতে পারেন। এক্ষেত্রে আগের পক্ষের ছেলেমেয়েরা কতটা কী ভাগ পাবে, আপনি কী ভাবছেন এবং তিনি কী ভাবছেন, সবটাই আগে থেকে চুক্তি করে নেওয়া ভালো যাতে এই নিয়ে পরে কোনও সমস্যা না হয়। যদি দু'জনেরই এটা প্রথম বিয়ে হয় তাহলেও চুক্তি করে নিলে টাকা পয়সা বা সম্পত্তির ভাগ বাঁটোয়ারা নিয়ে কোনও সমস্যা হবে না।

৩) নিজের সম্পত্তি নিজে সামলান

হতে পারে আপনি উত্তরাধিকার সূত্রে প্রভূত অর্থ, জমি, বাড়ি ইত্যাদি পেয়েছেন। আবার এমনটাও হতে পারে যে নিজের কেরিয়ার নিজে তৈরি করে এগুলো আপনি স্বযোগ্যতায় অর্জন করেন, তাহলে এগুলো সবটাই আপনার। আপনি শুধুই একজন মহিলা বলে বিয়ের পর চোখ বুজে সব কিছু স্বামীর হাতে ছেড়ে দেবেন না।

৪) মাঝে মধ্যে টাকা পয়সা নিয়েও আলোচনা করুন

না, এর মধ্যে কোনও লজ্জা বা সঙ্কোচ নেই। আপনারা যদি বেড়ানো একসঙ্গে প্ল্যান করতে পারেন, বিয়েবাড়িতে কী উপহার দেবেন সেটা সিদ্ধান্ত নিতে পারেন তাহলে টাকা পয়সা নিয়ে আলোচনায় বসবেন না কেন? বরং মাঝে মধ্যে এই নিয়ে আলোচনা করলে এই বিষয়ে ধারণা স্পষ্ট হবে এবং আপনার স্বামীও বুঝতে পারবেন যে অর্থনৈতিক ব্যাপারেও আপনার মতামতের গুরুত্ব আছে।

Published by:Debalina Datta
First published: