corona virus btn
corona virus btn
Loading

বাথরুম খুঁজতে হচ্ছে সবসময়, ভয়াল অসুখটির উপসর্গগুলি জানুন

বাথরুম খুঁজতে হচ্ছে সবসময়, ভয়াল অসুখটির উপসর্গগুলি জানুন
প্রতীকী চিত্র

বাস্তবেই লক্ষ লক্ষ মানুষ এই 'পেটের সমস্যায়' ভুগছেন। বাড়ির বড়রা বলছেন পেট পরিষ্কার নেই, তবে চিকিৎসকরা বলছেন, এ ক্ষেত্রে নিজে নিজে ডাক্তারি না করাই ভাল।

  • Share this:

#কলকাতা: পিকু ছবিতে অমিতাভ বচ্চনের অভিনীত চরিত্রটির সমস্যার কথা নিশ্চয়ই মনে আছে। শুধু ভাস্করই নয় বাস্তবে লক্ষ লক্ষ মানুষ এই 'পেটের সমস্যায়' ভুগছেন। বাড়ির বড়রা বলছে পেট পরিষ্কার নেই, তবে চিকিৎসকরা বলছেন, এ ক্ষেত্রে নিজে ডাক্তারি না করাই ভাল।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় রোগটির নাম ইরিটেবল বাওয়েল সিন্ড্রোম ৷  এর সঙ্গে তেল মশলা খাওয়ার সম্পর্ক নেই বললেই চলে। চিকিৎসকরা বলেন এটি একটি সিগনালিংয়ের সমস্যা। এই রোগে রোগীর নিয়মিত মলত্যাগের অভ্যেসটাই বদলে যায়। যখন তখন মলত্যাগের প্রবণতা তৈরি হয়। বিশেষত অ্যাংজাইটি, টেনশনের সময় সমস্যা বাড়ে।

কাদের হয় আইবিএস?

চিকিৎসকরা বলছেন, অ্যাংজাইটি, স্ট্রেস এই ধরনের মানসিক সমস্যাগুলির সঙ্গে সরাসরি হজমের কোনও সম্পর্ক নেই। কিন্তু এই সমস্যাগুলি আমাদের জীবনযাপনে যে বড় পরিবর্তন আনে, সেগুলিই আমাদের আইবিএস-এর দিকে ঠেলে দেয়। এক অর্থে এটি লাইফস্টাইল ডিজিজ।

নিয়মিত ঘুমের অভাব, জাঙ্কফুড বেশি খাওয়া আইবিএস-এর জন্য দায়ী অনেক সময়েই। আইবিএস-কে শুধুই ব্যাকটেরিয় ইনফেকশন ভাবা বয়েছে অতীতে দীর্ঘসময়। কিন্তু ক্রমেই দেখা গিয়েছে কোলনের গতি অস্বাভাবিক হয়ে গিয়ে এই রোগ হতে পারে।

আগে পঞ্চাশোর্ধদের মধ্যে এই রোগ বেশি দেখে যেত। এখন কম বয়সীরাও অনেকে এই রোগে আক্রান্ত। এটিকে লাইফস্টাইল ডিজিজের আখ্যা দেওয়া যেতে পারে। উদ্বেগের কথা আইবিএস আলট্রা সোনোগ্রাফি, কোলোনোস্কপি কোনও পরীক্ষাতেই ধরা পড়ে না।

মূল উপসর্গ

এই  অসুখে  তলপেটে মাঝে মাঝেই মোচড় দেওয়া ব্যথা অনুভূত হয়। রক্তালপতার শিকার হন রোগী। যখন তখন মলত্যাগের প্রবণতা হল মূল উপসর্গ। এছাড়াও মলদ্বার থেকে রক্তপাত ও বমিভাব দেখা যায়।

কী করবেন, কী করবেন না

চিকিৎসকদের প্রথম পরামর্শ আইবিএস-এ প্রতিদিন একসময়ে খাওয়া অভ্যাস করতে হবে। খাওয়া বাদ দেওয়া চলবে না কোনও মতেই।

রাতের খাওয়ার সময় এগিয়ে আনতে পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। খাওয়ার পরেই শুয়ে পড়া চলবে না।

যাদের ঘন ঘন অ্যাটাক হয় তাদের অতিরিক্ত চা-কফি খাওয়ার অনুচিত।

ডাল ও ডালজাতীয় খাবার এবং অতিরিক্ত ফল, ফলের জুস এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

দুধ-দুধজাতীয় খাবার অ্যাটাকের সময় বাদ দিতে হবে।

কিছু ক্ষেত্রে প্রোবায়োটিক খানিকটা কাজ করে। এক্ষেত্রে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে নিন।

প্রতিদিন কমবেশি শরীরচর্চার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।

আইবিএস-এর ক্ষেত্রে সমস্যাটা যেহেতু তৈরি করে মন, তাই কাউন্সেলিংও জরুরি। এ ব্যাপারে সংকোচ কাটিয়ে ভাল মনোবিদের সাহায্য নেওয়াই বাঞ্ছনীয়।

Published by: Arka Deb
First published: June 27, 2020, 6:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर