• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • শীতের রোগ প্রতিরোধ, ডায়েট থেকে ঘুম, জীবনযাপনে নিয়ে আসুন এই আয়ুর্বেদিক অভ্যাসগুলি

শীতের রোগ প্রতিরোধ, ডায়েট থেকে ঘুম, জীবনযাপনে নিয়ে আসুন এই আয়ুর্বেদিক অভ্যাসগুলি

প্রতীকী চিত্র।

প্রতীকী চিত্র।

আয়ুর্বেদের মতে স্বাস্থ্যকর জীবনের তিনটি মন্ত্র হল ‘সঠিক আহার’, ‘পরিমিত নিদ্রা’, ‘স্বাস্থ্যকর আচরণ’।

  • Share this:

    #কলকাতা: জাঁকিয়ে শীত না পড়লেও ঠাণ্ডা হিমেল হাওয়ার কাঁপুনি জানান দিচ্ছে হেমন্ত পেরিয়ে শীত আসন্ন। শীতকাল মানেই উৎসবের মরশুম। আর তার ফলেই জীবনচর্চায় অনিয়ম আটাকানো মুশকিল।

    এই সময়ে নিয়মমাফিক পরিমাণ অনুযায়ী পুষ্টিকর খাবার না খাওয়ার দরুণ শারীরিক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বিভিন্ন রকমের ত্বকের সমস্যা, অ্যালার্জি, হজমের গণ্ডগোল, ইনেফেকশন-এর সমস্যা লেগেই থাকে। যদিও এ বছর সব কিছুই অন্য রকম, অসুখের ধরণধারণও। কারণ করোনাসুরের উপদ্রবে প্রত্যেকেরই জীবনযাত্রার মানের কিছুটা পরিবর্তন ঘটেছে। উৎসবের আমেজ থাকলেও মনের মধ্যে কোথাও বিষণ্ণতা। খাওয়া-দাওয়া থেকে শুরু করে তাই শরীর স্বাস্থ্য চর্চা নিয়ে সবাই এখন যথেষ্ট ওয়াকিবহাল। অনেকেরই ডায়েটে পাকাপাকি ভাবে জায়গা করে নিচ্ছে আয়ুর্বেদ।

    বহুকাল ধরেই আয়ুর্বেদ রোগ নিরাময়ে বিশেষ ভাবে নিজের স্থান দখল করেছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সঠিক আয়ুর্বেদিক ডায়েট পালন করে করার কথা বলা হয়েছে প্রাচীণ শাস্ত্রে। আয়ুর্বেদের মতে স্বাস্থ্যকর জীবনের তিনটি মন্ত্র হল ‘সঠিক আহার’, ‘পরিমিত নিদ্রা’, ‘স্বাস্থ্যকর আচরণ’।

    আয়ুর্বেদ মাফিক জীবনযাত্রার দু’টি স্তম্ভ রয়েছে- প্রতিদিনের ডায়েট এবং ঋতুবিশেষের ডায়েট। ২০১১ সালে এআইইউ-তে প্রকাশিত একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে লেখা হয়, আয়ুর্বেদ অনুযায়ী‘চরক সংহিতা’র মতো গ্রন্থগুলিতে ঋতুচর্যার প্রাথমিক তত্ত্বগুলি সরবরাহ করা হয়েছে। প্রতিটি মরসুমে এই ডায়েট এবং আচরণবিধি মেনে চললে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলা যাবে।

    শীত শরীরে কর্মক্ষমতা বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় অনেকটাই হ্রাস পায়। বছরের শেষ কটা দিন নিজেকে আরও সুস্থ রাখতে জেনে নিন কিছু আয়ুর্বেদিক উপায়-

    ডায়েটের পরিবর্তন - এই মরসুমে টক জাতীয় খাদ্য গ্রহণ করা শ্রেয়। শীতকালে ত্বক শুষ্ক ও রুক্ষ দেখায়। টক জাতীয় খাদ্যের মধ্যে ভিটামিন সি থাকে যা ত্বকের পক্ষে খুবই লাভজনক। উদাহরণ- কাঁচা আমলকি।

    এছাড়াও ডাল, গমের আটা, নতুন চাল, ভুট্টা, আখ, গুঁড় এই ধরণের খাদ্যে পুষ্টি রয়েছে। প্রোটিন জাতীয় প্রোডাক্ট যেমন দুধ, ডিম ইত্যাদি খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। হাল্কা মশলাযুক্ত খাবার খাওয়া উচিৎ এবং অবশ্যই এই মরসুমে ঈষৎ উষ্ণ খাবার গ্রহন করা শরীরের পক্ষে ভাল।

    জীবনচর্চায় পরিবর্তন- আপনার ত্বক যাতে মোলায়েম এবং উজ্জ্বল দেখায় তার জন্য প্রতিদিন তেল এবং ক্রিমের ব্যবহার করা প্রয়োজন। যেহেতু করোনা আবহে বাইরে যাওয়ার উপায় নেই তাই বাড়িতেই রূপচর্চা করে নিজেকে সাজিয়ে তুলুন।

    হলুদ, চন্দন, অ্যালোভেরা জেল এই তিনটির মিশ্রনে প্যাক বানিয়ে সপ্তাহে দু’দিন মুখে লাগান। এর ফলে ত্বক অনেক উজ্জ্বল দেখাবে।

    শীতের মরসুমে সূর্যের মিঠে রোদ ত্বকের জন্য খুবই ভাল। সূর্যের আলোয় ভিটামিন ডি থাকে।

    গরম জলে স্নান করুন। অতিরিক্ত হাঁটা, দেরি করে রাতে শোয়ার অভ্যেস বদলান।

    -সোমোশ্রী দাস

    Published by:Arka Deb
    First published: