• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • উৎসবের মরশুমে মিষ্টির প্রলোভন এড়িয়ে কীভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন ডায়াবেটিস! বিশেষজ্ঞদের মতামত জানুন...

উৎসবের মরশুমে মিষ্টির প্রলোভন এড়িয়ে কীভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখবেন ডায়াবেটিস! বিশেষজ্ঞদের মতামত জানুন...

ডায়াবেটিস থাক বা না থাক, মিষ্টির প্রতি যাঁদের দুর্নিবার আকর্ষণ, চিন্তা তাঁদেরও কিছু কম নয়। উৎসবের মরশুম শুরু হলেই, বিশেষ করে দিওয়ালির সময়ে মিষ্টি খাওয়ার পরিমাণ একটু-আধটু বেড়ে যায়।

ডায়াবেটিস থাক বা না থাক, মিষ্টির প্রতি যাঁদের দুর্নিবার আকর্ষণ, চিন্তা তাঁদেরও কিছু কম নয়। উৎসবের মরশুম শুরু হলেই, বিশেষ করে দিওয়ালির সময়ে মিষ্টি খাওয়ার পরিমাণ একটু-আধটু বেড়ে যায়।

ডায়াবেটিস থাক বা না থাক, মিষ্টির প্রতি যাঁদের দুর্নিবার আকর্ষণ, চিন্তা তাঁদেরও কিছু কম নয়। উৎসবের মরশুম শুরু হলেই, বিশেষ করে দিওয়ালির সময়ে মিষ্টি খাওয়ার পরিমাণ একটু-আধটু বেড়ে যায়।

  • Share this:

#কলকাতা: যাঁদের ডায়াবেটিস আছে, তাঁরা উৎসবের মরশুম থেকেই একটু চিন্তায় পড়ে যান। ডায়াবেটিস থাক বা না থাক, মিষ্টির প্রতি যাঁদের দুর্নিবার আকর্ষণ, চিন্তা তাঁদেরও কিছু কম নয়। উৎসবের মরশুম শুরু হলেই, বিশেষ করে দিওয়ালির সময়ে মিষ্টি খাওয়ার পরিমাণ একটু-আধটু বেড়ে যায়। কখনও কখনও সেই একটু-আধটু ব্যাপারটা সীমা ছাড়িয়ে বেশিই হয়ে যায়। বিটও বলে একটি সংস্থা তো রীতিমতো চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে যে যাঁদের আপাতদৃষ্টিতে ডায়াবেটিস নেই, তাঁদের রক্তেও এই সময় শর্করার পরিমাণ বেশ ভালই বৃদ্ধি পায়।

অতএব সাবধান- ওই দিওয়ালির দিনই একই সঙ্গে পড়েছে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস! ভাগ্যের কী নিষ্ঠুর পরিহাস! তবে এখনই এত হতাশ হয়ে পড়ার দরকার নেই। নিজেকে একটু সামলে-সুমলে নিয়ে যদি ব্লাড সুগারটা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারেন, তা হলে ডায়াবেটিস থাকলেও এই উৎসবে আপনি মধুর আবেশে সামিল হতে পারবেন।

*ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ আর ডিনার এই তিনটে বড় মিল বাদ দিয়ে বরং সারা দিনে চার থেকে পাঁচ বার ছোট ছোট মিল খান। এতে আপনার সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকবে আর শরীরও পুষ্টি পাবে।

*উৎসবের আগে বেশ কয়েকদিন সাদা ভাত ছেড়ে ব্রাউন রাইস খান। সাদা ভাত বা হোয়াইট রাইসের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স অনেক বেশি।

*চকোলেট খেতে ইচ্ছে হলে ডার্ক চকোলেট খান, কারণ এতে চিনির পরিমাণ মিল্ক চকোলেটের চেয়ে কম থাকে।

*গরম লাগল, অমনি গলায় ঢকঢক করে নরম পানীয় ঢেলে দিলেন, এই ভুল করবেন না। ওতে কিন্তু প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে। তার চেয়ে তেষ্টা পেলে ডাবের জল, চিনি ছাড়া লেবু জল বা স্রেফ শুদ্ধ জলই পান করুন।

*স্ন্যাক্স খেতে ইচ্ছে হলে ফল, ড্রাই ফ্রুট, বাদাম এগুলো খেয়ে পেট ভরান। একগাদা মিষ্টি না খেয়ে সুগার-ফ্রি কোনও হাল্কা ভাজাভুজি খাওয়া যেতে পারে। চাইলে একটা ছোট্ট মিষ্টি খেতে পারেন। তবে যাই করবেন সীমা ছাড়াবেন না। মানে ওভার-ইটিং একেবারেই নয়।

*বেক করা যে কোনও জিনিস যেমন কেক, বিস্কুট, আর কড়া করে ভাজা পকোড়া, সিঙাড়া এগুলো খাদ্যতালিকা থেকে বাদ দিন।

*উৎসব চলছে বলে আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে অ্যালকোহলের প্রতি ঝুঁকবেন না। অ্যালকোহল রক্তে চিনির পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়।

*আর যা-ই খান, যতটুকু খান, সকালে নিয়মিত হাঁটতে যেতে বা অন্তত ৩০ মিনিট এক্সারসাইজ করতে ভুলবেন না কিন্তু।

হ্যাপি দিওয়ালি!

Published by:Shubhagata Dey
First published: