Home /News /life-style /
অন্তঃসত্ত্বাদের জন্য দারুণ উপকারী শীতকালীন এই ফলগুলি, পাতে রাখতে ভুললে চলবে না!

অন্তঃসত্ত্বাদের জন্য দারুণ উপকারী শীতকালীন এই ফলগুলি, পাতে রাখতে ভুললে চলবে না!

এই সময় রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা তুলনামূলক ভাবে কম থাকে। তা ছাড়া আবহাওয়া পরিবর্তনের জেরে নানা ভাইরাল অসুখ, বদহজম-সহ একাধিক সমস্যা দেখা দিতে পারে।

  • Share this:

#কলকাতা: মাতৃত্বকালীন সময় প্রতিটি নারীর জীবনে এক দারুণ অনুভূতি। তবে এই সময় শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের খেয়াল রাখাটাও খুব জরুরি। এক্ষেত্রে সারা দিনের রুটিন মেনে যথাযথ খাবার খাওয়া ও পর্যাপ্ত বিশ্রাম করা একান্ত প্রয়োজন। তবে শীতকালে অন্তঃসত্ত্বাদের একটু বেশি করে যত্ন নিতে হয়। কারণ এই সময় রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা তুলনামূলক ভাবে কম থাকে। তা ছাড়া আবহাওয়া পরিবর্তনের জেরে নানা ভাইরাল অসুখ, বদহজম-সহ একাধিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ক্ষেত্রে অন্তঃসত্ত্বাদের ফিট রাখতে পারে কিছু শীতকালীন ফল।

কমলালেবু

শীতকালে একাধিক মরশুমি সবজি ও ফল পাওয়া যায়। আর কমলালেবু শীতের অন্যতম আশীর্বাদ। কমলালেবুর মধ্যে ভিটামিন C, ফলিক অ্যাসিড থাকে। শরীরে আয়রনের মাত্রা ঠিক রাখতেও সাহায্য করে এটি। এক্ষেত্রে নিউরাল টিউবে যে কোনও ধরনের সমস্যা সমাধানে অত্যন্ত কার্যকরী ফলিক অ্যাসিড। শীতে গোটা কমলালেবু খাওয়া যেতে পারে বা তার জুসও পান করা যেতে পারে। নিয়মিত কমলালেবু খেলে মায়ের পাশাপাশি বাচ্চার শরীরও ভাল থাকে।

বেদানা

আয়রনের অন্যতম উৎস। অন্তঃসত্ত্বাদের জন্য বেদানার জুস বা বেদানা ও বিটরুটের জুস দারুণ উপকারী। কোনও হালকা খাবারের সঙ্গেও বেদানার জুস পান করা যেতে পারে। এর জেরে অন্তঃসত্ত্বার শরীরে আয়রনের ঘাটতি পূরণ হতে পারে।

গুজবেরি

রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে অত্যন্ত কার্যকরী। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রেও এই ফল খাওয়ার বিষয়ে একাধিক পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। রক্ত পরিস্রুতকরণ, হজম ভালো রাখা-সহ একাধিক কাজ করতে পারে এটি। গুজবেরিতে ভিটামিন E, A-এর পাশাপাশি আয়রন, ক্যালসিয়াম, ফাইবার-সহ একাধিক খাদ্য উপাদান থাকে। এটি হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক রাখার পাশাপাশি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণেও সাহায্য করে।

বেরি

ফলের প্লেটে বিভিন্ন ধরনের বেরি অর্থাৎ স্ট্রবেরি, ব্লু বেরি রাখা যেতে পারে। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন C থাকে। এছাড়াও বেটা-ক্যারোটিন, পটাসিয়াম, ফলিক অ্যাসিড, ফাইবার, ফোলেট, অ্যান্টি-অক্সিড্যান্টও রয়েছে এই ফলগুলোতে। এর জেরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীরের একাধিক ভিটামিনের ঘাটতি পূরণ হয়। এগুলি কোষের অ্যামনিওটিক ফ্লুইডের পরিমাণ বাড়ায়, যা কোষের ক্ষয়ক্ষতি দূর করে।

কিউই

এটি অত্যন্ত কার্যকরী ফল। ভিটামিন C ও ফোলেট সমৃদ্ধ কিউই শরীরের জন্য দারুণ উপকারী। এর পুষ্টিগুণ রোগপ্রতিরোধে সাহায্য করে। অন্তঃসত্ত্বা থাকাকালীন রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। এক্ষেত্রে কিউই কাজে দেয়। নির্দিষ্ট সময় অন্তর যথাযথ পরিমাণে কিউই খেলে অন্তঃসত্ত্বার পাশাপাশি তাঁর বাচ্চার স্বাস্থ্যও ঠিক থাকে।

সব চেয়ে বড় বিষয়টি হল, সময় মতো খাওয়া-দাওয়া আর পর্যাপ্ত পরিমাণ জলপান। তবে খাবারের পাশাপাশি যথাযথ বিশ্রামও জরুরি। এগুলির সঙ্গে নিয়মিত হেল্থ চেক-আপও করতে হবে।

Published by:Simli Raha
First published:

Tags: Pregnancy, Pregnant

পরবর্তী খবর