লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বর্ডারলাইন ডিসঅর্ডার থেকে কি নিরাময় সম্ভব? জেনে নিন এই নিয়ে বিশদ তথ্য

বর্ডারলাইন ডিসঅর্ডার থেকে কি নিরাময় সম্ভব? জেনে নিন এই নিয়ে বিশদ তথ্য

এই মনরোগে আক্রান্ত রোগীরা মূলত বিক্ষিপ্ত মেজাজ-আচরণ এবং সম্পর্কের দিক থেকে ছটফটে হন। অসম্ভব রাগ, হতাশা, অবসাদ এদের নিত্যদিনের সঙ্গী। জেনে নি কোন উপায়ে মুক্তি

  • Share this:

শারীরিক রোগের মতন মনের অসুস্থতাও বর্তমান সময়ে এক চিন্তার বিষয়। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে দৈহিক রোগের যেমন নিরাময় রয়েছে তেমনি মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে মনোরোগীরও চিকিৎসা সঠিক পথে এগোলে তা আয়ত্তে আনা অসম্ভব কিছু নয়। আসুন জেনে নেওয়া যাক মানসিক ব্যাধি বর্ডারলাইন পার্সোনালিটি বিহেভিয়ারের বিষয়ে।

এই মনরোগে আক্রান্ত রোগীরা মূলত বিক্ষিপ্ত মেজাজ-আচরণ এবং সম্পর্কের দিক থেকে ছটফটে হন। অসম্ভব রাগ, হতাশা, অবসাদ এদের নিত্যদিনের সঙ্গী। বর্ডারলাইন ডিসঅর্ডারের রোগীরা ভীষণ ভাবে মুড্ সুইং-এর শিকার হন। এতটাই অবসাদে ভোগেন তাঁরা যে কখনও কখনও জগতে নিজেদের ভূমিকা নিয়েও সন্দিহান হয়ে পড়েন, ইতস্তত বোধ করেন। নিজেদের পছন্দ, মতামত, মূল্যবোধ সময়ে সময়ে বদলেও যায় তাঁদের কাছে। কখনও চরম হতাশা অথবা কখনও প্রবল আনন্দ, দুই বিপরীত মেরুর অভিব্যক্তিই সর্বোচ্চে পৌঁছনো এদের সবথেকে বড় অসুখ। সম্পর্কের ব্যাপারেও এরা চরম ছটফটে। এখন একে ভালো লাগছে তো আর কয়েকদিন পর অন্য কাউকে! বন্ধুই নিমেষে বদলে যাচ্ছে শত্রুতে।

আবেগের অসামঞ্জস্য, কগনিটিভ ডিসঅর্ডার, হঠকারী ব্যবহার, সম্পর্কের বিষয়ে অস্থিরতা এই রোগের মূল লক্ষণ।

আসুন জেনে নেওয়া যাক, এই রোগের অন্যান্য লক্ষণগুলি : - বাস্তবতাকে স্বীকার না করতে চাওয়া - কখনও যাকে ভালোবেসে ফেলছে কয়েকদিন যেতে না যেতেই চিরশত্রুর জায়গায় সেই ব্যক্তিকে নামিয়ে দেওয়া। - মতামত, মূল্যবোধ ঘনঘন পরিবর্তন। - প্রায়শই হঠকারিতা। - নিজেকে শারীরিক ক্ষতির মধ্যে ফেলা, যেমন হাত কেটে ফেলা, আত্মহত্যার হুমকি দেওয়া। - প্রায়শই গভীর অবসাদে চলে যাওয়া। হতাশায় ভুগতে শুরু করা। - নিজেকে বোর এবং নিঃসঙ্গ অনুভব করা. - অসম্ভব রাগ, যা নিজেরা কখনও আয়ত্তে আনতে না পেরে কোনও হঠকারী কাজ করে ফেলে পরবর্তীতে লজ্জা এবং নিজেকে দোষী অনুভব করা।

বর্ডারলাইন ডিসঅর্ডারের শিকার হওয়ার কারণগুলি কী ? জিনগত ভাবে আসতে পারে অথবা পারিপার্শ্বিকতাও এর কারণ হতে পারে। এই রোগে আক্রান্ত বেশিরভাগ ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে শৈশবে তাদের বাবা মায়ের কাছে অপমান সহ্য করতে হয়েছে অথবা কারোর দ্বারা মানসিক, শারীরিক, এবং যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে।

বর্ডারলাইন ডিসঅর্ডারের চিকিৎসা কি সম্ভব ? হ্যাঁ, এই রোগের চিকিৎসা সাইকোথেরাপি, ওষুধের মাধ্যমে করা সম্ভব। অবশ্য রোগীর পরিবারকেও এই থেরাপিতে সর্বতভাবে সহায়তা করতে হবে। ঠিকমতন চিকিৎসা হলে এই রোগ অনেকাংশে দূর হতে পারে, তবে তা অবস্যই সময় সাপেক্ষ।

Published by: Elina Datta
First published: September 14, 2020, 3:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर