Covid-19: টিকা নেওয়ার পরে সংক্রমণের সম্ভাবনা কমতে পারে, তবে পুরোপুরি নয়; দাবি সমীক্ষার

Covid-19: টিকা নেওয়ার পরে সংক্রমণের সম্ভাবনা কমতে পারে, তবে পুরোপুরি নয়; দাবি সমীক্ষার

টিকা নেওয়ার পরে সংক্রমণের সম্ভাবনা কমতে পারে, তবে পুরোপুরি নয়

তাঁদের দাবি, ভ্যাকসিনের পর সংক্রমণের সম্ভাবনা কমতে পারে। তবে দ্বিতীয়বার সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

  • Share this:

#ক্যালিফোর্নিয়া: ফের চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। এই পরিস্থিতিতে নতুন করে আতঙ্ক দানা বাঁধলেও, ভ্যাকসিনের ভরসায় বুক বেঁধেছেন সবাই। বিশ্বের নানা দেশে শুরু হয়েছে টিকাকরণ। দ্রুত টিকাকরণ সম্পূর্ণ করার লক্ষ্যে এবার ১ এপ্রিল থেকে ৪৫ বছরের উর্ধ্বে সবাইকে ভ্যাকসিন দেওয়ার কাজ শুরু হবে। এই পরিস্থিতিতে উঠে এল এক নতুন তথ্য। ২৩ মার্চ প্রকাশিত নিউ ইংল্যান্ড জার্নাল অফ মেডিসিনে (The New England Journal of Medicine) একদল গবেষকের একটি চিঠি খানিকটা অস্বস্তিতে ফেলেছে বিশ্ববাসীকে। তাঁদের দাবি, ভ্যাকসিনের পর সংক্রমণের সম্ভাবনা কমতে পারে। তবে দ্বিতীয়বার সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। অর্থাৎ সংক্রমণের হার শূন্য নয়।

ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (University of California) পাশাপাশি বেশ কয়েকটি জায়গা থেকে একাধিক তথ্য সংগ্রহ করেছেন গবেষকরা। এক্ষেত্রে করোনার ভ্যাকসিন নেওয়ার পর স্বাস্থ্যকর্মীদের একটি গ্রুপের উপরে এই বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হয়। এঁরা প্রত্যেকেই হয় Pfizer, নয় তো Moderna ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন। ১৬ ডিসেম্বর থেকে ৯ ফেব্রুয়ারির মধ্যে মোট ৩৬,৬৫৯ প্রথম ডোজ ও ২৮,১৮৪ দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হয়। পরের দিকে এই সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনা পরীক্ষা করে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে উঠে আসে।

এক্ষেত্রে ভ্যাকসিনেশনের পর এই স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে ৩৭৯ জনের শরীরে SARS-CoV-2 ধরা পড়ে। বিশেষ করে প্রথম ডোজের দুই সপ্তাহের মধ্যেই বহু স্বাস্থ্যকর্মীর করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এমনকি দু'টি ডোজ পাওয়ার পরও ৩৭ জন স্বাস্থ্যকর্মীর শরীরে করোনা ধরা পড়ে। যদিও চিকিৎসকদের একাংশের দাবি, ভ্যাকসিনের দু'টি ডোজ নেওয়ার পর দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছায়। যে কোনও ভাইরাসের আক্রমণ প্রতিহত করতে পারে। কিন্তু এই আক্রান্তের হার চিন্তা বাড়াচ্ছে।

গবেষণা চলাকালীন UC San Diego ও UCLA-এর স্বাস্থ্য সংস্থাতেও বিস্তর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলে। সেখানে দেখা যায়, UC San Diego Health-এ করোনা পজিটিভ স্বাস্থ্যকর্মীর হার ১.১৯ শতাংশ। অন্যদিকে, UCLA-এ করোনা পজিটিভ স্বাস্থ্যকর্মীর হার ০.৯৭ শতাংশ। যা রীতিমতো চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর পিছনে কী কারণ রয়েছে? সমীক্ষার সঙ্গে যুক্ত গবেষকদের কথায়, হয় তো ওই স্বাস্থ্যকর্মীরা উপসর্গহীন বা মৃদু উপসর্গের রোগী ছিলেন। কিন্তু নিয়মিত পরীক্ষা করানো হয়নি। তাই তাঁদের শরীরে করোনা সংক্রমণ দেখা গিয়েছে। তাছাড়া ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলাকালীন যে দাবি করা হয়েছে, তা ১০০ শতাংশ ঠিক নয়। তাছাড়া সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলিতে হয়তো করোনা বিধি মেনে চলা হচ্ছে না।

বলা বাহুল্য, ভ্যাকসিনের পরও এই ধরনের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রবণতা সত্যিই চিন্তার বিষয়। আপাতত সর্তকতা ও যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধিই ভরসা!

Written By: Sovan Chanda

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

লেটেস্ট খবর