World Hearing Day 2021: শ্রবণশক্তি ঠিকঠাক রাখতে এই নিয়মগুলো মেনে চলতেই হবে!

সাধারণত এই কারণগুলিই কাজ করে শ্রবণশক্তি কমে আসার নেপথ্যে। তাই প্রতিরোধে কী করণীয়, সেটা জেনে নেওয়া যাক!

সাধারণত এই কারণগুলিই কাজ করে শ্রবণশক্তি কমে আসার নেপথ্যে। তাই প্রতিরোধে কী করণীয়, সেটা জেনে নেওয়া যাক!

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: যখনই কোনও আন্তর্জাতিক দিন ঘোষণা করা হয়, তখন তার বার্ষিক উদযাপনের লক্ষ্যে একটা করে থিম নির্দিষ্ট করা হয়। এই বছর ৩ মার্চে প্রতি বারের মতোই উদযাপিত হচ্ছে World Hearing Day বা বিশ্ব শ্রবণ দিবস। এই বছরের থিম হল স্ক্রিন, রিহ্যাবিলিটেট, কমিউনিকেট। স্ক্রিন বলতে এখানে কানের পর্দাকে বোঝানো হচ্ছে। রিহ্যাবিলিটেট মানে শ্রবণশক্তি বৃদ্ধিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা। আর এর পরের ধাপেই আসছে কমিউনিকেট; শ্রবণশক্তি ঠিকঠাক থাকলে যে পরস্পরের সঙ্গে যোগাযোগ করা অনেক সহজ হয়, কে না জানেন!

সেই লক্ষ্যেই এক এক করে কানের স্বাস্থ্য সম্পর্কে কয়েকটা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যে চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক। সাধারণত এই কারণগুলিই কাজ করে শ্রবণশক্তি কমে আসার নেপথ্যে। তাই প্রতিরোধে কী করণীয়, সেটা জেনে নেওয়া যাক!

১. চিকিৎসকেরা বলেন যে মানসিক অবসাদ অনেক সময়ে শ্রবণশক্তি কমিয়ে দেয়। এই সময়ে মানু অনেক বেশি অন্যমনস্ক থাকে, ফলে অন্যে কী বলছেন, সে দিকে খেয়াল থাকে না। যা একটা নির্দিষ্ট সময়ের পরে সামগ্রিক শ্রবণশক্তিকে বিঘ্নিত করে। তাই মন ভালো রাখতে হবে।

২. শব্দদূষণ যে কানের পর্দায় আঘাত করে তাকে বিকল করে দেয়, সেটাও আমাদের সবার জানা! তাই খুব জোরে টিভি চালানো বা গান শোনার অভ্যেস ছাড়তে হবে। এমন জায়গাতেও খুব বেশিক্ষণ থাকা ঠিক হবে না যেখানে শব্দ অকারণে খুব বেশি!

৩. ধূমপান শুধু শ্বাসযন্ত্রই নয়, সামগ্রিক স্বাস্থ্যেও প্রভাব ফেলে, শ্রবণশক্তি কমিয়ে দেয়। তাই ধূমপান ছাড়তে হবে।

৪. ইয়ারপ্লাগস, ইয়ারমাফস-এর মতো নয়েজ ক্যানসেলেশন গ্যাজেট ব্যবহার করতে পারলে ভালো হয়। এই দুই গ্যাজেট অন্তত ১৫-৩০ ডেসিবেল শব্দ কমিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা ধরে।

৫. ব্যথা না হলেও মাঝে মাঝে চিকিৎসকের কাছে গিয়ে কানের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করিয়ে আসা উচিৎ; তিনি বলতে পারবেন কোথাও সমস্যা দেখা দিয়েছে কি না!

৬. খুব বেশি অ্যাসপিরিন, অ্যান্টিবায়োটিকের ডোজও কিন্তু শ্রবণশক্তি কমিয়ে দেয়। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ মতো ওষুধ খাওয়াটাই ঠিক হবে। কথায় কথায় দোকানে বলে ওষুধ না নেওয়াই উচিৎ!

৭. সব শেষে জরুরি হল নিয়মিত কান পরিষ্কার রাখা। তাতে কানে ময়লার প্রলেপ পড়বে না, শ্রবণশক্তি ঠিক থাকবে। তবে এমন কিছু দিয়ে কান পরিষ্কার করতে না যাওয়াই উচিৎ, যা থেকে আঘাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: