Home /News /life-style /
PCOS আক্রান্ত মহিলাদের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাজে লাগবে এই ৫ দাওয়াই

PCOS আক্রান্ত মহিলাদের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাজে লাগবে এই ৫ দাওয়াই

Representational Image

Representational Image

  • Share this:

    পলিসিস্টিক ওভারি সিন্ড্রোম বা PCOS-এ আক্রান্ত হলে মহিলাদের ওজন বেড়ে যাওয়ার প্রবণতা থাকে। এই রোগের সঙ্গে বর্তমানে অনেকেই পরিচিত। পিসিওএস-এ আক্রান্ত হলেই চিকিৎসকরা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার পরামর্শ দেন। কারণ ওজন বেড়ে গেলে শারীরিক অবনতি হয়।

    তবে হরমোনাল ইমব্যালান্সের জন্যই ওজন কমানো বেশ কঠিন হয়ে ওঠে পিসিওএস বা পিসিওডি-তে আক্রান্ত হলে। তবে কয়েকটি বিষয় মেনে চললে ওজন কমানো সম্ভব। দেখে নেওয়া যাক সেগুলি কী কী-

    ১) কার্ব জাতীয় খাবার শরীরের পক্ষে খারাপ নয়। তবে পিসিওএস রোগীর ক্ষেত্রে এই ধরনের খাবার শরীরের ইনসুলিন লেভেলের উপরে প্রভাব ফেলতে পারে। ইনসুলিন মাত্রা বাড়লে ওজন বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর তাই পিসিওডি-র রোগীদের কার্ব জাতীয় খাবারের পরিনাণ কমিয়ে প্রোটিন জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

    ২) কার্ব জাতীয় খাবারের পরিমাণ কমিয়ে স্বাস্থ্যকর ফ্যাট জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। কারণ এই ধরনের খাবার খেলে অনেকটা সময়ে পেট ভর্তি থাকে। অ্যাভোক্যাডো, অলিভ অয়েল, কোকোনাট অয়েল, ইত্যাদি স্বাস্থ্যকর ফ্যাট হিসেবে পরিচিত।

    ৩) ফাইবার আছে এমন খাবার খেলেও পিসিওএস এর রোগীদের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে। এই ধরনের খাবার দীর্ঘক্ষণ পেট ভর্তি রাখতে সক্ষম। ফলে অতিরিক্ত খেয়ে ফেলার সম্ভাবনা থাকে না। ফাইবার যুক্ত সবজি, ফল ব্লাড সুগার লেভেল ঠিক রাখে আর ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে। বিশেষ করে পেটে জমা মেদ কমাতে এই ধরনের খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

    ৪) অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া পরিপাকতন্ত্রে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে বড় ভূমিকা রাখে। পিসিওএস-এ আক্রান্ত মহিলাদের দেহে এই ধরনের ব্যাকটেরিয়া কম থাকে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা বেশ কঠিন হয়ে পড়ে। এক্ষেত্রে দই বা ইয়োগআর্ট জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

    ৫) সর্বপোরি শরীরচর্চার কোনও বিকল্প নেই। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে শরীরচর্চা আবশ্যিক। এতে পরিপাকতন্ত্রও ঠিক থাকে যা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published:

    পরবর্তী খবর