Black Fungus: করোনা আবহে এবার থাবা 'ব্ল্যাক ফাংগাস' ইনফেকশনের, উপসর্গ কী? চিকিৎসকরা বলছেন কী করবেন, কী করবেন না

করোনা আবহেই মানুষের শরীরে বাসা বাঁধছে এই ছত্রাক। এটি এক ধরনের ব্ল্যাক ফাংগাস (Black Fungus)।

করোনা আবহেই মানুষের শরীরে বাসা বাঁধছে এই ছত্রাক। এটি এক ধরনের ব্ল্যাক ফাংগাস (Black Fungus)।

  • Share this:

    করোনার (Corona) প্রকোপে হাহাকার গোটা দেশ জুড়ে। দ্বিতীয় ঢেউতে সারা দেশের মানুষের মধ্যে ছড়িয়েছে ত্রাস। সেই করোনার বেলাগাম পরিস্থিতির মধ্যেই আরও একটি ছত্রাক ইনফেকশন চোখ রাঙাচ্ছে। এই করোনা আবহেই মানুষের শরীরে বাসা বাঁধছে এই ছত্রাক। এটি এক ধরনের ব্ল্যাক ফাংগাস (Black Fungus)। চিকিৎসকরা একে মিউকোরমাইকোসিস (mucormycosis)। এই ছত্রাক ইনফেকশন থেকে অন্ধত্ব, জটিল অসুখ এবং মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

    বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, মিউকোরমাইসেটেস নামে এক ছত্রাক থেকে এই ইনফেকশন হয়। এই ছত্রাক পরিবেশেই বর্তমান। সেখান থেকেই ছড়াতে পারে। তবে কোভিড আক্রান্তদের উপরে এর প্রভাব গুরুতর। শ্বাস প্রশ্বাসে ধুলোবালির সঙ্গে মানুষের শরীরে ঢুকতে পারে এই ছত্রাক। কিন্তু ব্ল্যাক ফাংগাস ছোঁয়াচে নয়। অর্থাৎ এক জনের থেকে অন্য জনের শরীরে সংক্রমিত হয় না। এই ছত্রাকও শ্বাসযন্ত্র ও মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলতে সক্ষম।

    এই ছত্রাক শরীরে বাসা বাঁধলে করোনার মতোই কিছু উপসর্গ দেখা যায়। মূলত কোন উপসর্গ (Symptoms) দেখলে সাবধান হতে হবে-

    -চোখের চারপাশে ব্যথা ও চোখ বা নাক লাল হয়ে যাওয়া

    -জ্বর

    -মাথা যন্ত্রণা

    -কাশি

    -শ্বাসকষ্ট

    -রক্তবমি

    -মানসিক স্থিতির পরিবর্তন। ব্যক্তিত্বে পরিবর্তন।

    কাদের এই ছত্রাক ইনফেকশনের ঝুঁকি বেশি? যাদের করোনা চিকিৎসায় স্টেরয়েড দেওয়া হচ্ছে তাদের মধ্যে এই ইনফেকশনের সম্ভাবনা বেশি। এছাড়া অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবিটিস যাদের তাঁদেরও সচেতন থাকার পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। বহুদিন ধরে যাঁরা আইসিইউ-তে থেকেছেন বা কো-মর্বিডিটি রয়েছে তাঁদের এই ইনফেকশনে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

    এই ছত্রাকে আক্রান্ত হলে কী কী করবেন এবং কী কী করবেন না তাও জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। দেখে নেওয়া যাক সেগুলি কী-

    -চিকিৎসকরা ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখার কথা বলছেন।

    -কোভিড থেকে সেরে উঠেছেন এমন ব্যক্তির ডায়াবিটিস নির্দিষ্ট সময় অন্তর দেখতে হবে।

    -ঠিক পরিমাণ এবং অন্যান্য বিষয় করে রোগীকে স্টেরয়েড দেওয়া।

    - অক্সিজেন থেরাপির সময়ে পরিষ্কার জল ব্যবহাপ করা।

    - অ্যান্টিফাংগাল বা অ্যান্টিবায়োটিক দিতে হবে রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শে।

    -উপসর্গ দেখলেই সাবধান হতে হবে।

    কী কী সাবধানতা বজায় রাখতে বলছেন চিকিৎসকরা-

    - ধুলোবালি রয়েছে এমন জায়গায় গেলে অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করুন।

    -লম্বা ট্রাউজার, ফুলহাতা জামা, গ্লাভস ও জুতো পরুন বাগানের কাজ করার সময়ে।

    -পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকুন।

    Published by:Swaralipi Dasgupta
    First published: