• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • GANGSTERS LIQUOR PARTY OF IN POLICE LOCK UP STIR AFTER THE VIDEO WENT VIRAL PBD

Viral Video: পুলিশ লকআপের ভিতর গ্যাংস্টারদের মদের পার্টি! ফুর্তির ভিডিও ভাইরাল হতেই হইচই

পুলিশ লকআপের ভিতরে বসে চিপস এবং অন্যান্য খাবারের সঙ্গে চলছে মদে চুমুক। এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

পুলিশ লকআপের ভিতরে বসে চিপস এবং অন্যান্য খাবারের সঙ্গে চলছে মদে চুমুক। এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: জেলের মধ্যে কতটা ছাড় পায় বন্দিরা? তা এই ভাইরাল ভিডিও দেখেই আন্দাজ করা যায়৷ লকআপের মধ্যেই একেবারে মোচ্ছবের ভিডিও৷ মদের সঙ্গে আরও কত আয়োজন৷ একেবারে জমিয়ে পার্টি চলছে গ্যাংস্টারদের(Police Lock-up)৷ কোনও রাখঢাক নেই৷ সকলে মিলে বসে চলছে মদের আসর৷ এবং সেই ভিডিও তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট! এতটাই হিম্মত দুষ্কৃতীদের৷ ২৪ সেকেন্ডের সেই ভিডিও ভাইরাল হতেই হইচই পড়ে গেল সর্বত্র৷ এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

    গ্যাংস্টার নীরজ বাওয়ানার(Gangster Neeraj Bawana) সহযোগী রাহুল কালা ও নবীন বলি যেখানে সেখানে মদ্যপান করতে পারে(Liquor-Snacks Party)৷ জেলের লকআপেও কোনও ভয়-ডর নেই তাদের৷ তেমনই তাদের এক ভিডিও ভাইরাল হয়েছে৷ এই দুই ভাই মন্ডোলি জেলে ছিল৷ তবে সেখান থেকে আবার তাদের পুনরায় গ্রেফতার করা হয়৷ সেখান থেকে তাদের স্পেশ্যাল সেলে রাখা হয়েছিল কিছুদিনের জন্য৷ তবে ভিডিওটি স্পেশাল সেলের কার্যালয় নাকি মান্ডোলি জেলের তা নিশ্চিত করেনি দিল্লি পুলিশ। চব্বিশ সেকেন্ডের ভিডিওতে রাহুল এবং নবীন সহ চারজনকে দেখা গিয়েছে৷ যদিও এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

    পুলিশ লকআপের ভিতরে বসে চিপস এবং অন্যান্য খাবারের সঙ্গে চলছে মদে চুমুক। মাটিতে বসে ফোনে কথা বলা এবং ধূমপান করতে দেখা গিয়েছে ১-২ জনকে। লকআপের বাইরে সেই সময় দু’জনকে বসে থাকতে দেখা গিয়েছে। শুধু তাই নয়, এই ভিডিওটি গ্যাংস্টার নীরজ বাওয়ানার তথাকথিত অফিসিয়াল ইনস্টাগ্রামেও পেজে শেয়ার করা হয়েছে। যদিও এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

    এরপরই সাড়া পড়ে যায় পুলিশ মহলে৷ তিহার জেলের সন্দীপ গোয়ালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। একই সঙ্গে দিল্লি পুলিশের মুখপাত্র চিন্ময় বিসওয়াল বলেন, 'ভিডিওটির সত্যতা যাচাই যোগ্য৷ কোনও ভাবেই পুলিশ লক-আপে মদ মেলে না৷

    দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেলের নয়া দিল্লি রেঞ্জ কর্তৃক অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের জন্য একটি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছিল যখন স্পেশাল সেল একটি ফোন কল আটকায় যাতে রাহুল এবং নবীন রোহিনী কারাগারে থাকা প্রতিদ্বন্দ্বীকে নির্মূল করার চেষ্টা করে। দিল্লি পুলিশের একজন সিনিয়ার পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে প্রযুক্তিগত প্রমাণ সংগ্রহ করার পর তদন্ত শুরু করেছে। মন্দোলি কারাগারে বন্দি দুজনকে সেখান থেকে স্পেশাল সেল অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। এরা ১০ আগস্ট মান্দোলি কারাগারে ফিরে আসে। তার এক সহযোগী সাহিল ওরফে চিন্টুকেও রোহিণী জেল থেকে পুনরায় গ্রেফতার করা হয়।

    পুলিশ জানিয়েছে যে, দুই ভাইই নীরজের জন্য কাজ করে এবং কারাগারের ভিতর তারা তোলাবাজি করত বলে জানা গিয়েছে। ২০১৪-এ রাহুলকে গ্রেফতার করা হয়৷ দিল্লির বাইরের সুলতানপুর দাবাস গ্রামে দুই ভাইকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে রাহুল ও তার সহযোগী রবির বিরুদ্ধে। রাহুলকে খুঁজে দেওয়ার জন্য লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করে পুলিশ।

    ইনস্টাগ্রামে শেয়ার হওয়া এই ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করেনি News18বাংলা৷

    Published by:Pooja Basu
    First published: