• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • শীতে সাবধান! বন্ধ নাক আর দাঁত থেকে দ্রুত ছড়িয়ে যেতে পারে করোনা ভাইরাস, দাবি নয়া সমীক্ষার

শীতে সাবধান! বন্ধ নাক আর দাঁত থেকে দ্রুত ছড়িয়ে যেতে পারে করোনা ভাইরাস, দাবি নয়া সমীক্ষার

সমীক্ষা জানাচ্ছে, দাঁত ও নাক বন্ধ থাকলে দ্রুত গতিতে ও অনেকটা দূরত্বে ছড়িয়ে পড়ে হাঁচির ড্রপলেট

সমীক্ষা জানাচ্ছে, দাঁত ও নাক বন্ধ থাকলে দ্রুত গতিতে ও অনেকটা দূরত্বে ছড়িয়ে পড়ে হাঁচির ড্রপলেট

সমীক্ষা জানাচ্ছে, দাঁত ও নাক বন্ধ থাকলে দ্রুত গতিতে ও অনেকটা দূরত্বে ছড়িয়ে পড়ে হাঁচির ড্রপলেট

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: যদি দাঁত ও নাক বন্ধ অর্থাৎ ব্লক থাকে, তা হলে তা প্রভাবিত করতে পারে করোনা সংক্রমণের গতিবিধিকে। সম্প্রতি এক সমীক্ষায় উঠে এল এমনই এক তথ্য। এ ক্ষেত্রে করোনার সুপার স্প্রেডিং বিষয়টির উপরে আলোকপাত করা হয়েছে। সাধারণত একটি স্থানীয় এলাকার মধ্যে একজনের মাধ্যমে যখন একটা বড় অংশ সংক্রমিত হয়ে পড়ে, তখন তাকে সুপারস্প্রেডিং বলা হয়। এ ক্ষেত্রে সুপার স্প্রেডার বা অতিসংক্রামক মানুষজনের ক্ষেত্রে অন্যতম আশঙ্কাজনক দু'টি বিষয় নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। সমীক্ষা জানাচ্ছে, দাঁত ও নাক বন্ধ থাকলে দ্রুত গতিতে ও অনেকটা দূরত্বে ছড়িয়ে পড়ে হাঁচির ড্রপলেট। এর জেরে বেশি মাত্রায় সংক্রমিত হতে পারেন মানুষজন।

Physics of Fluids-এ প্রকাশিত এই সমীক্ষায় সুপার স্প্রেডারদের হাঁচির ধরন, হাঁচির ড্রপলেটের দূরত্ব, গতিবেগসহ একাধিক বিষয়কে খতিয়ে দেখা হয়েছে। এ বিষয়ে সমীক্ষার সহলেখক ও ইউনিভার্সিটি অফ সেন্ট্রাল ফ্লোরিডার মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টের মাইকেল কিনজেল জানিয়েছেন, এই সমীক্ষা থেকে সংগৃহীত নানা তথ্যের মাধ্যমে সুপার স্প্রেডারদের চিহ্নিত করা যেতে পারে। এর জেরে সুপার স্প্রেডিংয়ের গতিবিধিও নির্ণয় করা যাবে। এ ছাড়া প্রথমবার এই সমীক্ষার মাধ্যমে বোঝার চেষ্টা করা হয়েছে, হাঁচির ড্রপলেটগুলি ঠিক কী কারণে ও কতটা দূর পর্যন্ত ছড়াতে পারে। এ ক্ষেত্রে হাঁচির ড্রপলেট ছড়ানোর দূরত্বকেও নির্ণয় করার চেষ্টা করা হয়েছে। এটি বাতাসে কতক্ষণ ভাসমান থাকতে পারে বা কী কী বিষয়গুলি হাঁচির এই ড্রপলেটকে প্রভাবিত করে সেই বিষয়টিও দেখা হয়েছে।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, নাক যদি ব্লক থাকে তা হলে হাঁচির ড্রপলেটের গতি ও দূরত্ব বেড়ে যায়। এর পিছনে একটি কারণ রয়েছে। আসলে নাক ব্লক অর্থাৎ বন্ধ থাকলে হাঁচি বেরোনোর একমাত্র পথ হল মুখ। এ ক্ষেত্রে সব কিছু একসঙ্গে এক জায়গা দিয়ে বাইরে বেরোলে হাঁচির গতিবেগ ও দূরত্ব বেড়ে যায়। আর যদি নাক খোলা থাকে, তা হলে হাঁচির এই বেরোনোর পথও দুই ভাগে ভাগ হয়ে যায়। স্বভাবতই হাঁচির গতি অনেকটা কমে যায়। আর ড্রপলেট বেশি দূর পর্যন্ত যেতে পারে না।

দাঁতও হাঁচির গতিবেগের উপরে প্রভাব ফেলতে পারে। যদি দাঁতের দুই পাটি বন্ধ থাকে বা মুখ খোলা না হয়, তা হলে হাঁচি বেরোনোর পথ প্রায় বন্ধ থাকে। অর্থাৎ যদি হাঁচি বেরোনোর জায়গা কম হয়, তা হলে প্রবল গতিতে বের হয় হাঁচি। এবং ড্রপলেটগুলি অনেকটা দূর পর্যন্ত যেতে পারে। তাই দাঁতের পাটির মাঝে যদি বেশি ফাঁক বা জায়গা থাকে, তা হলে হাঁচির গতি কমে যায়। ড্রপলেটের মাধ্যমে সংক্রমণের সম্ভাবনাও কমে।

সমীক্ষার সঙ্গে যুক্ত গবেষকরা জানাচ্ছেন, এই দু'টি বিষয় একত্রে হাঁচির গতি ও ড্রপলেট ছড়ানোর দূরত্ব প্রায় ৬০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়াতে পারে। তাই গবেষকদের পরামর্শ, নাক পরিষ্কার রাখতে হবে। সর্দি-কাশির জন্য নাক যাতে বন্ধ না থাকে, সেই বিষয়টিতে নজর দিতে হবে। এতে ড্রপলেটের মাধ্যমে জীবাণু ছড়ানোর পরিমাণ কমবে। সমীক্ষার তথ্য অনুযায়ী তুলনামূলক পাতলা লালারস ছোট ছোট ড্রপলেট তৈরি করে। আর এই ড্রপলেটগুলি দীর্ঘক্ষণ ধরে বাতাসে ভেসে থাকতে পারে। কিন্তু ঘন লালারসগুলি সে ভাবে ভেসে থাকতে পারে না এবং দ্রুত ছড়িয়ে পড়তেও পারে না। তাই নাক ও মুখ ব্লক রাখা বা অসুস্থতার জেরে কোনও কারণে নাক বন্ধ হয়ে গেলে, সেই বিষয়ে নজর দিতে হবে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: