মনের মানুষের জন্য নয়, যৌন আকর্ষণ কেবল অল্প চেনা কারও জন্যই? সমস্যার সমাধানে পরামর্শ রইল বিশেষজ্ঞের!

মনের মানুষের জন্য নয়, যৌন আকর্ষণ কেবল অল্প চেনা কারও জন্যই? সমস্যার সমাধানে পরামর্শ রইল বিশেষজ্ঞের!

Representational Image

যৌনতার বিষয়টি যে শুধুই শারীরিক নয়, এর নেপথ্যে আদতে মুখ্য ভূমিকা নেয় মানসিকতা- সে কথা খুব একটা অজানা কিছু নয়।

  • Share this:

#কলকাতা: এই পর্বে যে বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন বিশেষজ্ঞ পল্লবী বার্নওয়াল, তা রীতিমতো জটিল!

যৌনতার বিষয়টি যে শুধুই শারীরিক নয়, এর নেপথ্যে আদতে মুখ্য ভূমিকা নেয় মানসিকতা- সে কথা খুব একটা অজানা কিছু নয়। মানসিকতার উপরে নির্ভর করেই যৌনসঙ্গী বা সঙ্গিনী বেছে নিই আমরা। ঠিক সে রকম ভাবেই ওই মানসিকতার উপরে নির্ভর করেই আবার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি আগ্রহী হলেও তাঁর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়!

এই আকর্ষণ আর বিকর্ষণের সূত্রেই পল্লবী তুলে ধরেছেন এক যুবকের কথা। তিনি চিঠি মারফত জানিয়েছেন যে তাঁর বিয়ে ঠিক হয়ে গিয়েছে। পাত্রী তাঁর পরিচিত, তিনিই বেছে নিয়েছেন তাঁকে নেটদুনিয়ায় আলাপের পরে। যে সময়টা তিনি ওই মহিলাকে ঘনিষ্ঠ ভাবে চিনতেন না, সেই সময়টায় তাঁর সঙ্গে সেক্সটিং এবং শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনে তাঁর কোনও অসুবিধা হয়নি। কিন্তু যখন সম্পর্কের রসায়ন গাঢ় হল, তখন তাল কেটে যেতে থাকল। যুবকটি দেখলেন যে তিনি ওই মহিলার সংস্পর্শে কিছুতেই যৌন উত্তেজনা বোধ করছেন না!

যুবকটি জানিয়েছেন যে এটাই প্রথম নয়, এই ঘটনা তাঁর সঙ্গে আগেও হয়েছে। তিনি মনের মানুষের সঙ্গে নয়, যৌন সম্পর্ক কেবলমাত্র অল্প চেনা বা অপরিচিতদের সঙ্গেই স্থাপন করতে পারেন! অন্যথায় তাঁর শরীর সাড়া দেয় না!

Representational Image Representational Image

এ প্রসঙ্গে পল্লবী সবার আগে একটি ইংরেজি শব্দের দিকে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। মনের মানুষের জন্য নয়, যৌন আকর্ষণ কেবল অল্প চেনা কারও জন্যই- এ ধরনের যৌন প্রবৃত্তিকে ইংরেজিতে বলা হয়ে থাকে ফ্রেসেক্সুয়ালিটি (Fray sexuality), সেটা তিনি আমাদের জানিয়েছেন। পল্লবীর মতে, এর মধ্যে অস্বাভাবিক কিছু নেই। কিন্তু বিবাহিত সম্পর্কে এটি সমস্যা তৈরি করবেই! তা হলে উপায়?

যাঁদেরই এমন সমস্যা হয়, অথচ ভালোবাসায় রয়েছেন, এমন ব্যক্তিদের পল্লবী এ ক্ষেত্রে সরাসরি সঙ্গী বা সঙ্গিনীর সঙ্গে স্পষ্ট ভাবে কথা বলার পরামর্শ দিচ্ছেন। বলছেন, সব কথা খুলে বলতে। এর পরেও যদি ভালোবাসার সম্পর্ক টিঁকে যায়, তার চেয়ে ভাল আর কিছু হতেই পারে না!

কিন্তু এখানেও একটা সমস্যা আছে। হতেই পারে যে সঙ্গী বা সঙ্গিনী অপর পক্ষের ফ্রেসেক্সুয়ালিটিকে স্বাভাবিক ভাবে গ্রহণ করলেন। কিন্তু তাঁর প্রয়োজন যৌন সুখ। এই জায়গা থেকে পরস্পরের মধ্যে কথা বলে পলিঅ্যামোরি (Poliamory) সম্পর্কে আসতে হবে। অর্থাৎ দিনের শেষে দম্পতি পরস্পরের কাছেই ফিরছেন, কিন্তু পরস্পরের সম্মতিসাপেক্ষে অন্যের সঙ্গে যৌন সম্পর্কের অধিকার দুই পক্ষেরই রইল!

আর এ ক্ষেত্রেও যদি অসুবিধা দেখা দেয়?

সে ক্ষেত্রে সিঙ্গল থাকাটাই উচিৎ হবে, বলছেন পল্লবী!

Pallavi Barnwal

Published by:Siddhartha Sarkar
First published:

লেটেস্ট খবর