শিশুদের পাতে যেন এই পাঁচটি খাবার ভুলেও না থাকে, নয় তো হতে পারে মারাত্মক বিপদ

শিশুদের পাতে যেন এই পাঁচটি খাবার ভুলেও না থাকে, নয় তো হতে পারে মারাত্মক বিপদ

শিশুদের পাতে যেন এই পাঁচটি খাবার ভুলেও না থাকে, নয় তো পড়তে হবে বিপদে!

সামান্য অসাবধানতাতেই শিশু স্বাস্থ্য বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি তাদের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

  • Share this:

সাধারণত ১-৩ বা ৪ বছর বয়সীদের শিশু বলে থাকি আমরা। এই বয়স ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠার। শরীরের প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ মজবুত হয়ে ওঠে এই সময়ে। শিশুরা হামাগুড়ি থেকে উঠে হাঁটতে শুরু করে। তাই এই সময়কালে তাদের খাবার একটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়। কিন্তু শিশুদের ডায়েটের ক্ষেত্রে যদি নজর না দেওয়া হয়, তাহলে বড়সড় সমস্যা হতে পারে। সামান্য অসাবধানতাতেই শিশু স্বাস্থ্য বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি তাদের মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে পাঁচটি জিনিস সব সময় এড়িয়ে চলতে হবে।

বাদাম

এই সময় দ্রুতহারে বাড়ার জেরে ঘন ঘন খিদে পায় শিশুদের। এর জেরে বড়দের যা খেতে দেখে, তাই মুখে দেয় তারা। কোনটা ভালো বা কোনটা খারাপ, সে জ্ঞান থাকে না। এক্ষেত্রে বাদাম জাতীয় খাবার থেকে দূরে রাখতে হবে শিশুদের। এতে ফ্যাটের পরিমাণ বেশি। বদহজম হতে পারে। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

মশলা ও তেলতেলে খাবার

ডায়েট বিশেষজ্ঞরাও একই পরামর্শ দেন। শিশুদের থেকে যতটা সম্ভব দূরে সরিয়ে রাখতে হবে মশলা ও তেলতেলে খাবার। সহজ পাচ্য, সেদ্ধ ও তেল-মশলাহীন খাবার খাওয়াতে হবে তাদের।

গোটা সবজি বা ফল

গোটা সবজি বা ফল থেকে দূরে রাখতে হবে শিশুদের। কারণ তারা রং ও মিষ্টি স্বাদে আকর্ষিত হয়ে গোটা ফল বা সবজি খেয়ে ফেলার চেষ্টা করে। এর জেরে গলায় আটকে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে গাজর, বিট থেকে শুরু করে নানা সবজি সেদ্ধ করে এবং আঙুর বা অন্যান্য ফলগুলি ছোট ছোট করে কেটে খাওয়ানো যেতে পারে। সব চেয়ে ভালো হবে যদি ফলের জুস খাওয়ানো যায়।

চকোলেট ও চিউইং গাম

শিশুদের অন্যতম পছন্দের জিনিস। বেশিরভাগ নানা ধরনের চকোলেট, বাবল গাম খেতে ভালোবাসে। এর জেরে কিন্তু বদহজম, দাঁতের সমস্যা-সহ একাধিক শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। ছোট্ট শিশুর গলায় আটকে বড়সড় বিপদও ঘটে যেতে পারে।

সফ্ট ড্রিঙ্ক

এই ধরনের ঠাণ্ডা পানীয়তে ক্যালোরির পাশাপাশি অতিরিক্ত মিষ্টি থাকে। শিশুদের স্বাদের জন্য বেশ উপযোগী। তবে শরীরের জন্য অর্থাৎ শিশু স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর এটি। দিনের পর দিন সোডা শরীরে গেলে একাধিক সমস্যা হয়। বিশেষ করে শিশুদের দাঁত ও মাড়ির সমস্যা দেখা দেয়। তবে শুধু শিশু নয়, বড়দেরও এই ধরনের জিনিস এড়িয়ে চলা ভালো।

Published by:Piya Banerjee
First published: