Home /News /life-style /

Coronavirus Scare| Eating Habit|| করোনাভাইরাস-ওমিক্রন আতঙ্ক! সুস্থ হতে আক্রান্তেরা কী খাবেন এবং কেন? জানুন...

Coronavirus Scare| Eating Habit|| করোনাভাইরাস-ওমিক্রন আতঙ্ক! সুস্থ হতে আক্রান্তেরা কী খাবেন এবং কেন? জানুন...

Coronavirus Scare: কোভিড-১৯ থেকে দ্রুত সুস্থ হওয়ার জন্য কোন কোন খাবার ডায়েটে রাখা জরুরি জেনে নেওয়া যাক।

  • Share this:

#কলকাতা: প্রায় দু'বছরের করোনা কাঁটা পেরিয়ে ২০২২ সালের নতুন বছরে আমরা সকলেই স্বাভাবিক জীবনের ছন্দে ফেরার আশা করেছিলাম। আর ঠিক তখনই কোভিড-১৯-এর নতুন ভ্যারিয়ান্ট ওমিক্রন (Omicron) আতঙ্ক দানা বাঁধতে শুরু করল। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের সাম্প্রতিক রিপোর্ট অনুযায়ী বর্তমানে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১,৭১,৮৩০। যদিও বিশেষজ্ঞদের মতে, এই তৃতীয় ঢেউ স্বল্প সময় স্থায়ী হবে। তাও বাইরে বেরোলে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। পাশাপাশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে ডায়েটের দিকে অবশ্যই বিশেষ নজর দিতে হবে কারণ সুস্থ হওয়ার ক্ষেত্রে ডায়েটের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। সংক্রমিত ব্যক্তি তরল খাবারের সঙ্গে যাতে জিঙ্ক, ভিটামিন C এবং প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খান সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কোভিড-১৯ থেকে দ্রুত সুস্থ হওয়ার জন্য কোন কোন খাবার ডায়েটে রাখা জরুরি জেনে নেওয়া যাক।

জিঙ্ক সম্বৃদ্ধ খাবার:

পাম্পকিন সিড, কাজু, কাবুলিচানা এবং মাছের মতো জিঙ্ক রয়েছে এমন খাবার ডায়েটে রাখতে হবে৷ এই সব খাবারগুলি হল প্রয়োজনীয় মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট যাতে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদান রয়েছে। শুধু তাই নয়, জিঙ্কে অ্যান্টিভাইরাল উপাদান রয়েছে যা ভাইরাসের কার্যক্ষতা কিংবা সংক্রমণ কমাতে পারেন।

আরও পড়ুন: ঘরোয়া পদ্ধতিতে এ ভাবে যত্ন করুন রুক্ষ-শুষ্ক চুলের, সুন্দর-উজ্জ্বলতা আসবে দিন কয়েকেই

ভিটামিন C সম্বৃদ্ধ খাবার:

বিভিন্ন ভিটামিন এবং মিনারেলের মধ্যে যেগুলি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য দায়ী তার মধ্যে ভিটামিন C হল ইমিউনিটি বাড়ানোর সবচেয়ে ভালো উৎস। পাশাপাশি অ্যাসকরবিক অ্যাসিড হিসাবে পরিচিত এই জলে-দ্রবীভূত ভিটামিনটি অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সম্বৃদ্ধ। তাই করোনায় আক্রান্ত হলে অবশ্যই লেবু জাতীয় ফল, সবুজ শাক-সবজি, পেয়ারা, কিউই, ব্রোকোলি, স্ট্রবেরি এবং পেঁপে খাওয়া উচিত৷

ভিটামিন D সম্বৃদ্ধ খাবার:

আঞ্চলিক কোভিড পজিটিভ রোগীদের উপরে নিজাম'স ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্স (এনআইএমএস) এবং গান্ধী হসপিটালের চিকিৎসকেরা ২০২১ সালের মে মাসে 'নেচার' নামক প্রতিবেদনে একটি গবেষণা প্রকাশ করেছিলেন। যেখানে বলা হয়েছিল যে চিকিৎসা প্রোটোকলে ভিটামিন D যুক্ত করলে ভালো ফল পাওয়া যাবে, তা কোভিড পজিটিভ রোগীদের সুস্থতার দিকে নিয়ে যাবে। তাই একথা বলা যায় যে কোভিড-১৯-এর মোকাবিলায় ভিটামিন D সম্বৃদ্ধ খাবার খাওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেক্ষেত্রে ডায়েটে মাশরুম, ডিমের কুসুম, দই এবং দুধের খাবার রাখতে হবে। পাশাপাশি ১ ঘন্টা রোদে সময় কাটানো জরুরি৷

আরও পড়ুন: আপনাকে নিশ্চয় শেভ করতে হয়! প্লাস্টিক নাকি সেফটি রেজার! শরীরের জন্য কোনটা ভাল? জানুন...

প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার:

প্রোটিনও আমাদের পেশি গঠনের সময় ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলির মেরামতি করতে সাহায্য করে যা পরবর্তীতে আমাদের ইমিউনিটি বাড়ায়। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলিকে ঠিক করতে প্রোটিন সাহায্য করে। একই কারণের জন্য, কোভিড-১৯ থেকে সেরে উঠতে সিড এবং বাদাম, ডাল, দুগ্ধজাত দ্রব্য, মাংস, মাছের মতো প্রোটিনযুক্ত খাবার খেতে হবে।

প্রাকৃতিক অ্যান্টিফাইরাল খাবার:

অ্যান্টিভাইরাল রয়েছে এবং শীতকালে সর্দি-কাশি প্রতিরোধ করতে পারে এমন বেশ কিছু খাবার রয়েছে, যেমন- তুলসী, আদা, গোলমরিচ, লবঙ্গ এবং রসুন। খালি পেটে কিংবা কাড়হা বানিয়ে এগুলো খাওয়া যায়।

বেশি তরল খাবার খাওয়া:

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে বলে এমন খাবার খেতে হবে যা আমাদের শরীরকে শক্তি জোগায়। তাই টক্সিন দূর করতে এবং শরীরে ভিটামিন ও মিনারেলের জোগান দিতে তরল খাবারের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে৷ তাই ডাবের জল, আমলকী জুস, লস্যি, ঘোল, টাটকা কমলালেবুর রস এবং পরিমিত জল খেতে হবে। এই সব তরল খাবারের সঙ্গে উপরে উল্লিখিত খাবারগুলি খেলে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠতে পারবেন রোগীরা।

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Coronavirus, Omicron

পরবর্তী খবর