বিবেকানন্দ থেকে অরবিন্দ, ছবির মানুষেরা তাকাচ্ছেন চোখ মেলে, হাসছেন আপনাকে দেখে !

বিবেকানন্দ থেকে অরবিন্দ, ছবির মানুষেরা তাকাচ্ছেন চোখ মেলে, হাসছেন আপনাকে দেখে !

প্রিয় মণীষীদের জীবন্ত করে তুলেছে Artificial Intelligence বা AI প্রযুক্তি। দেখা যাচ্ছে যে তাঁদের ছবি চোখ মেলে তাকাচ্ছে, হাসছে আমাদের দিকে তাকিয়ে!

প্রিয় মণীষীদের জীবন্ত করে তুলেছে Artificial Intelligence বা AI প্রযুক্তি। দেখা যাচ্ছে যে তাঁদের ছবি চোখ মেলে তাকাচ্ছে, হাসছে আমাদের দিকে তাকিয়ে!

  • Share this:

#নিউ ইয়র্ক: মণীষীরা আমাদের জীবন থেকে বিদায় নিয়েছেন বহু বছর হয়ে গেল। তাঁদের জানতে আমাদের সম্বল কেবল অমূল্য উপদেশাবলী। মাঝে মাঝে হাতে গোনা দুই কী একজনের ভিডিও ফুটেজ অবশ্য চোখের সামনে আসে! কিন্তু তা আবছা, মন ভরানোর পক্ষে যথেষ্ট নয়! কিন্তু এবার প্রিয় মণীষীদের জীবন্ত করে তুলেছে Artificial Intelligence বা AI প্রযুক্তি। দেখা যাচ্ছে যে তাঁদের ছবি চোখ মেলে তাকাচ্ছে, হাসছে আমাদের দিকে তাকিয়ে!

প্রিয় মণীষীদের এই ভাবে জীবন্ত করে তোলার কৃতিত্বের দ্বিতীয় ভাগটি প্রাপ্য লেখক কীর্তিক শশীধরণের (Keerthik Sasidharan)। তিনিই সম্প্রতি নিজের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেল থেকে এই বিস্ময়কর দর্শনলাভের সুযোগটি আমাদের করে দিয়েছেন!

শহিদ ভগৎ সিংকে (Bhagat Singh) নিয়ে এই দেশে তৈরি হয়েছে অনেক ছবি। কিন্তু শশীধরণের ট্যুইট মারফত যে ভাবে তিনি চোখ মেলে তারিয়েছেন, তা দেখলে গায়ে কাঁটা দেয় বই কি!

এর ঠিক পরেই স্বামী বিবেকানন্দকে (Swami Vivekananda) নিয়ে লিখেছেন শশীধরণ। জানিয়েছেন যে এই ব্যাপার দেখলে স্বামীজি হয় তো হেসে ফেলতেন! তবে পরক্ষণেই যে বিজ্ঞানের এই অসাধ্যসাধনের ব্যাপারে খুঁটিয়ে জানতে চাইত তাঁর মন, সেই নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেননি তিনি।

লোকমান্য তিলকের (Lokmanya Tilak) সম্পর্কে লিখতে গিয়ে সবার প্রথমে আক্ষেপ প্রকাশ করেছেন শশীধরণ। কেন না, তিলকের কোনও ভালো ছবি পাওয়া যায় না। সেই প্রসঙ্গে তাঁর অভিমত, আধুনিক ভারতের অন্যতম রূপকার এই মণীষী সম্পর্কে আমাদের আরও বেশি করে সজাগ হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী (Mohandas Karamchand Gandhi) ওরফে মহাত্মার সহধর্মিণী সম্পর্কেও এক আক্ষেপ শশীধরণের- কস্তূরবা গান্ধীরও (Kasturba Gandhi) যে ভালো ছবি পাওয়া যায় না তেমন! লেখক জানিয়েছেন যে এই ছবিটি সম্ভবত তাঁদের দক্ষিণ আফ্রিকায় থাকার সময়ে তোলা হয়েছিল।

শশীধরণের এই ট্যুইট থ্রেডে এসেছে ঋষি অরবিন্দের (Sri Aurobindo) প্রসঙ্গও। রাজনীতি এবং আধ্যাত্মিকতা- দুই দিক থেকেই যে এই মণীষী ভারতীয় জীবনকে সমৃদ্ধ করেছিলেন, সে কথা উল্লেখ করতে ভোলেননি তিনি।

সবার শেষে এই লেখক তুলে ধরেছেন আরেক লেখকের কথা- তিনি মুন্সি প্রেমচন্দ (Munshi Premchand)! শশীধরণের বিশ্বাস- বেঁচে থাকলে মুন্সির গল্পে জায়গা করে নিত এই প্রযুক্তির কথা!

স্বাভাবিক ভাবেই প্রিয় মণীষীদের এই ভাবে আবিষ্কার করে ট্যুইটারেতিদের মধ্যে বিস্ময়ের ঝড় উঠেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার ইউজাররা সবাই শশীধরণের এই ট্যুইট থ্রেডের অকুণ্ঠে প্রশংসা করেছেন। প্রযুক্তির অগ্রগতি যে তাঁদের বাকরুদ্ধ করে দিয়েছে, সেটাও উল্লেখ করতে ভোলেননি অনেকে!

Published by:Piya Banerjee
First published: