Home /News /life-style /
Beauty Tips: পেঁপেতেই মুশকিল আসান, কোন ত্বকে কোন ফেস প্যাক কোন সমস্যার সমাধান করবে দেখে নিন!

Beauty Tips: পেঁপেতেই মুশকিল আসান, কোন ত্বকে কোন ফেস প্যাক কোন সমস্যার সমাধান করবে দেখে নিন!

Beauty Tips: papaya face packs that benefit your skin- Photo- Representative

Beauty Tips: papaya face packs that benefit your skin- Photo- Representative

কী ভাবে পেঁপের ফেস প্যাক বানাতে হবে? রইল তার সুলুক সন্ধান।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: পেঁপে খাওয়া যেমন স্বাস্থ্যের পক্ষে ভাল তেমনই পেঁপে দিয়ে ঘরোয়া উপায়ে নানা রকম ফেস প্যাক বানিয়ে ত্বকের পরিচর্যাও করা যায়। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে যা শুষ্ক ম্লান ত্বককে উজ্জ্বল করে তোলে। এ ছাড়া পেঁপেতে যে সকল এনজাইম থাকে তার প্রভাবে মুখে থাকা দাগ ছোপ দূর হয়ে যায়। কী ভাবে পেঁপের ফেস প্যাক বানাতে হবে? রইল তার সুলুক সন্ধান।

তবে তার আগে একটা কথা মাথায় না রাখলেই নয়। পেঁপে অম্লজাতীয়, ফলে তার ফেসপ্যাক সব ত্বকের পক্ষে কার্যকরী নয়। ত্বকের ধরন বুঝে পেঁপের সঙ্গে মেশাতে হবে আরও দু'-একটা উপাদান, তার পর কী করতে হবে এক এক করে দেখে নেওয়া যাক।

পেঁপের ফেসিয়াল – শুষ্ক ত্বকের জন্য: অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং থেরাপিউটিক সুবিধা ছাড়াও মধুতে প্রচুর হাইড্রেটিং বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি ত্বককে নরম, কোমল এবং মসৃণ রাখতে সাহায্য করতে পারে। দুধে ল্যাকটিক অ্যাসিড থাকে যা ত্বককে এক্সফোলিয়েট করতে সাহায্য করে।

যা লাগবে – হাফ কাপ পাকা পেঁপে, ২ চা চামচ দুধ এবং ১ টেবিল চামচ মধু।

বানানোর পদ্ধতি – পেঁপের খোসা ছাড়িয়ে ছোট ছোট টুকরোয় কেটে ভালো করে পিষে নিতে হবে। তারপর এতে মিশিয়ে দিতে হবে দুধ এবং মধু। সবকটা উপাদান ভালো করে মিশিয়ে একটা মসৃণ পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। এবার প্যাকটা লাগাতে হবে মুখে এবং ঘাড়ে। সপ্তাহে ২ বার ব্যবহারে ভালো ফল মিলবে। তবে হ্যাঁ, দুগ্ধজাত খাবারে অ্যালার্জি থাকলে ফেস প্যাকে দুধ না দেওয়াই ভালো। বদলে আরও এক টেবিল চামচ মধু যোগ করা যায়।

আরও পড়ুন - Weather Update: গায়ের চামড়া জ্বলে যাচ্ছে, বজ্র বিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি, ঝড় কবে, কখন হবে

পেঁপের ফেসিয়াল – ব্রন-প্রবণ ত্বকের জন্য: পেঁপেতে থাকা এনজাইমগুলি মধুর অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্য এবং লেবুর রসে অ্যাস্ট্রিনজেন্ট বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে মিলে ত্বক পরিষ্কার করে, ছিদ্রগুলি বন্ধ করে এবং ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া মেরে ফেলে।

যা লাগবে: হাফ কাপ কাটা পেঁপে, ১ চা চামচ মধু, ১ চা চামচ লেবুর রস এবং এক চা চামচ চন্দন গুঁড়ো।

বানানোর পদ্ধতি: পেঁপে ছোট ছোট টুকরো করে কেটে পিষে নিতে হবে। এতে মেশাতে হবে মধু লেবুর রস এবং চন্দন গুঁড়ো। চন্দন যেন ভালো হয়। এবার মিশ্রণটা মুখে এবং ঘাড়ে লাগাতে হবে। অন্তত ১৫ মিনিট রাখতে হবে। সব থেকে ভালো হয় ফেস প্যাকটা শুকিয়ে নিতে পারলে। তারপর ঠান্ডা জলে ধুয়ে নিলেই হবে।

পেঁপের ফেসিয়াল – ইরিটেটেড ত্বকের জন্য: শসা ত্বককে হাইড্রেট এবং প্রশমিত করতে সাহায্য করে এবং অতিরিক্ত সিবাম কমিয়ে দেয়। ব্রনর সঙ্গে লড়তেও এর জুড়ি নেই। কলাকে হাইড্রেটিং গুণাবলীর অধিকারী বলা হয় এবং তাই এটা ফেস মাস্কের একটা জনপ্রিয় উপাদান।

যা লাগবে – ১/৪ কাপ কাটা পেঁপে, হাফ কাপ শসা এবং ১/৪ কাপ কাটা কলা।

বানানোর পদ্ধতি – সব কটা উপাদান ছোট ছোট টুকরোয় কেটে মিক্সিতে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এবার মসৃণ পেস্টটা লাগাতে হবে মুখে এবং ঘাড়ে। এভাবে রাখতে হবে অন্তত ১৫ মিনিট। এরপর প্রথমে গরম জলে এবং তারপরে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

পেঁপের ফেসিয়াল – ছিদ্রযুক্ত ত্বকের জন্য: ডিমে থাকা প্রোটিন ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা বাড়ায়। তাছাড়া ডিমের সাদা অংশ লাগানোর পর শুকিয়ে গেলে ত্বকে স্বাভাবিকভাবেই টানটান অনুভূত হয়। একইভাবে, এটি ত্বককে টোন করতে এবং ছিদ্রগুলিকে বন্ধ করতে সহায়তা করে।

যা লাগবে – হাফ কাপ কাটা পেঁপে এবং একটা ডিমের সাদা অংশ।

বানানোর পদ্ধতি: পেঁপের টুকরোগুলো পিষে নিতে হবে। এবার ডিমের সাদা অংশটা তাতে মিশে না যাওয়া পর্যন্ত নাড়তে হবে। আলতো হাতে মিশ্রণটা লাগাতে হবে মুখে এবং ঘাড়ে। কমপক্ষে ১৫ মিনিট থাকতে হবে এই ভাবে।

পেঁপের ফেসিয়াল – তৈলাক্ত ত্বকের জন্য: কমলালেবু এবং পেঁপেতে ভিটামিন সি রয়েছে। এগুলির রস প্রাকৃতিক অ্যাস্ট্রিংজেন্ট হিসাবে কাজ করে এবং সিবামের অতিরিক্ত উৎপাদন কমায় বলে বিশ্বাস করা হয়।

যা লাগবে – একটা কাটা পেঁপে এবং ৫-৬ টুকরো কমলালেবু।

বানানোর পদ্ধতি – পেঁপেগুলো পিষে নিয়ে তাতে মিশিয়ে দিতে হবে কমলালেবুর রস। এবার মিশ্রণটা লাগাতে হবে মুখে এবং ঘাড়ে। ১৫ মিনিট রাখার পর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

Published by:Debalina Datta
First published:

Tags: Beauty tips, Papaya

পরবর্তী খবর