Home /News /life-style /
Hair Care: মাথার ত্বকে ব্রণ? যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই ৫ ঘরোয়া টোটকা ব্যবহার করুন!

Hair Care: মাথার ত্বকে ব্রণ? যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই ৫ ঘরোয়া টোটকা ব্যবহার করুন!

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

Hair Care: সময়ে এর চিকিৎসা না করলে রক্তপাত, চুল পড়া, দাগ এবং আরও অনেক কিছু হতে পারে। তবে ভয় নেই।

  • Share this:

#কলকাতা: ব্রণ শুধু মুখে নয়, মাথার ত্বকেও হয়। আর মাথায় ব্রণ হলে নাজেহাল দশা। সারাক্ষণ চুলকানি আর ব্যথা। চুল আঁচড়াতেও কষ্ট। ফলে স্টাইল করা আক্ষরিক অর্থেই মাথায় ওঠে। মাথার ত্বকে কেন ব্রণ হয়? এর অনেক কারণ রয়েছে। এর মধ্যে চুলে অতিরিক্ত তেল দেওয়া, দুর্বল স্বাস্থ্যবিধি, স্ক্যাল্পের ফলিকুলাইটিস ইত্যাদি প্রধান কারণ। সময়ে এর চিকিৎসা না করলে রক্তপাত, চুল পড়া, দাগ এবং আরও অনেক কিছু হতে পারে। তবে ভয় নেই। এখানে মাথার ব্রণ নিরাময়ে কয়েকটা ঘরোয়া উপাদানের হদিশ দেওয়া হল।

টম্যাটো জুস: টম্যাটো প্রাকৃতিকভাবে স্যালিসিলিক অ্যাসিডে পরিপূর্ণ। ব্রণর চিকিৎসায় এটা দারুণ কাজে আসে। তাছাড়া এটা ত্বক এবং চুলের স্বাস্থ্যকর পিএইচ বজায় রাখতে সাহায্য করে। ফলে মাথার ত্বকের ব্রণ নিরাময়ে টমেটো জুস হয়ে ওঠে অব্যর্থ প্রতিকার। এ জন্য শুধু কয়েকটা টম্যাটো রস বের করে সেটা দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে হবে। এটা ব্রণ নিরাময় তো করবেই, চুলকেও উজ্জ্বল দীপ্তি দেবে।

চা গাছের তেল: চা গাছের তেল মাথার ত্বকের ব্রণর চিকিৎসায় একটা দুর্দান্ত উপাদান। মূলত প্রদাহ বিরোধী বৈশিষ্টের জন্যই এর পরিচিতি। তবে শুধু টি ট্রি অয়েল ব্যবহার করলে ত্বকে জ্বালা হতে পারে। এ জন্য চা গাছের তেল থেকে তৈরি শ্যাম্পু ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয়। সবথেকে ভালো অস্ট্রেলিয়ান চা গাছের তেল, সুগন্ধি ভেটিভার এবং জৈব নারকেল তেল দিয়ে তৈরি শ্যাম্পু। এতে কোনও প্যারাবেন, সিলিকন বা রঞ্জক নেই। এটা মাথার ত্বক পরিষ্কার করে এবং ব্যথা প্রশমিত করে। সঙ্গে চুলকে করে সতেজ এবং চকচকে।

আরও পড়ুন: পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে গ্রেফতার, নিয়ে যাওয়া হচ্ছে সিজিও কমপ্লেক্সে, খবর ইডি সূত্রে

অ্যাপেল সিডার ভিনিগার: চুলের জন্য এমনিতেই অ্যাপেল সিডার ভিনিগারের জুড়ি নেই। এটা চুল পড়া আটকায় এবং চুলকে করে চকচকে এবং মসৃণ। কিন্তু অনেকেই জানেন না এটা মাথার ত্বকের ব্রণ নিরাময়েও ম্যাজিকের মতো কাজ করে। উচ্চ মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় এটা চুল এবং মাথার ত্বকের ভারসাম্য রক্ষা করে। সঙ্গে পরিস্কার করে ত্বক।

আরও পড়ুন: 'আমরা ছেড়ে কথা বলব না', পার্থর বাড়িতে ইডি হানার পরই হুঁশিয়ারি চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের!

জেসমিন এসেনসিয়াল অয়েল: যে কোনও ধরনের ব্রণর চিকিৎসাতেই এটা অপরিহার্য। জুঁই তেলে বেনজোইক অ্যাসিড রয়েছে, যা ব্যাকটেরিয়া দ্বারা সৃষ্ট সংক্রমণকে বাধা দেয়। ফলে শরীরের যে কোনও অংশেই ব্রণ হোক না কেন এই তেল ব্যবহার করলে হাতেনাতে ফল মেলে। জুঁই তেল ত্বকের মৃত কোষগুলিকে সরিয়ে দেয়, যা মাথার ত্বকের ব্রণর আরেকটি প্রধান কারণ। এজন্য আঙুরের বীজের তেলের সঙ্গে জেসমিন এসেনসিয়াল অয়েল মিশিয়ে মাথার ত্বকে মাসাজ করতে হবে। নিয়মিত ব্যবহার করলে পনেরো দিনের মধ্যে ব্রণ নিরাময় হবে।

রসুন: প্রচুর স্যালিসিলিক অ্যাসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিভাইরাল এবং অ্যান্টিফাঙ্গাল বৈশিষ্ট্যের জন্য মাথার ত্বকের ব্রণর চিকিৎসায় রসুন অপরিহার্য। রসুনের চা দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলা যায় (গন্ধ নিয়ে বেশি ভাবলে চলবে না)। কয়েক দিনের মধ্যে ব্রণ নিরাময় হবে।

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: Hair Care

পরবর্তী খবর