লাইফস্টাইল

corona virus btn
corona virus btn
Loading

শরীরে এই ধরনের সমস্যাগুলি থাকলে সচেতন হতে হবে, কিডনির রোগের সম্ভাবনা না হলে প্রবল!

শরীরে এই ধরনের সমস্যাগুলি থাকলে সচেতন হতে হবে, কিডনির রোগের সম্ভাবনা না হলে প্রবল!
Representational Image

এই উপসর্গগুলিকে নজর-আন্দাজ না করে সঠিক সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিলেই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিন্তু সবার আগে এই সাধারণ সমস্যাগুলিকে চেনা দরকার।

  • Share this:

#কলকাতা: স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিষয়ে আজকাল একটি অন্যতম সমস্যা হল কিডনির (Kidney) রোগ। নীরবে শরীরের ভয়ঙ্কর ক্ষতি করতে পারে এটি। হাই ব্লাড প্রেসার (Blood Pressure), ডায়াবেটিস (Diabetrs) বা বংশগত কোনও বিশেষ রোগের প্রবণতা থেকে এই ধরনের মারণ রোগ দেখা যায়। তবে দৈনন্দিন জীবনের ছোট ছোট একাধিক সমস্যা থেকেই কিডনির রোগ চেনা যেতে পারে। এই উপসর্গগুলিকে নজর-আন্দাজ না করে সঠিক সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিলেই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। কিন্তু সবার আগে এই সাধারণ সমস্যাগুলিকে চেনা দরকার।

কিডনি রোগের সাধারণ উপসর্গগুলি হল-

১. অসম্ভব ক্লান্তি

কিডনি কার্যক্ষমতা হারালে, শরীর থেকে ঠিকমতো টক্সিন পরিশ্রুত হতে পারে না। রক্তে একাধিক অপ্রয়োজনীয় উপাদান থেকে যায়। এর জেরে কাজে মন বসে না। অসম্ভব ক্লান্তি অনুভব হয়। অ্যানিমিয়াও (Anemia) হতে পারে।

২. ঘুমে সমস্যা

শরীরের টক্সিনকে যদি কিডনি (Kidney) পরিশ্রুত না করে, তা হলে অনেক সমস্যা দেখা দেয়। এর মধ্যে অন্যতম হল ঘুমের সমস্যা। যদি রোজ ঘুম নিয়ে সমস্যায় ভুগছেন, তা হলে এটি অন্য কিছুর সঙ্কেত হতে পারে।

৩. ত্বক শুকিয়ে যাওয়া বা চুলকানি

শুকনো ত্বক ও চুলকানি কিন্তু কিডনির রোগের উপসর্গ হতে পারে। কিডনির দ্বারা ঠিকঠাক পরিশ্রুতকরণের কাজ না হলে, রক্তের মধ্যে কোনও অপ্রয়োজনীয় উপাদান থেকে যায়। এর জেরে ত্বক শুকিয়ে যাওয়া বা চুলকানি হয়।

৪. বারবার মূত্র ত্যাগের প্রবণতা

বারবার কি বাথরুমে যেতে হয়? বিশেষ করে রাতে কোনও নিয়ন্ত্রণ থাকছে না? একাধিকবার ঘুম থেকে উঠে বাথরুমে যেতে হচ্ছে? তা হলে এখনই সতর্ক হতে হবে। কারণ ফিল্টার অর্থাৎ কিডনি কাজ করছে না। এ ক্ষেত্রে ইউরিন ইনফেকশনও (Urine Infection) একটি কারণ হতে পারে।

৫. মূত্রে রক্ত

সুস্থ কিডনির কাজ হল, রক্তে লোহিতকণিকার মাত্রা ঠিক রেখে রক্ত থেকে বাকি বর্জ্যকে পরিশ্রুত করা। কিন্তু কিডনিতে সমস্যা থাকলে এটি যথাযথ ভাবে রক্তকণিকাকে পরিশ্রুত করতে পারে না। এর জেরে মূত্রের মাধ্যমে রক্ত বেরোতে শুরু করে।

৬. মূত্রে ফেনা ভাব

মূত্রের মধ্যে যদি প্রচুর ফেনা তৈরি হয়, তা হলে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ মূত্রের মাধ্যমে প্রোটিন ক্ষয় হলেই তা ফেনা উৎপন্ন করে। আর এটি কিডনির সমস্যার সঙ্কেত।

৭. চোখের আশপাশের অংশ ফুলে যাওয়া

Eye Puffiness অর্থাৎ চোখের নিচের ও পাশের দিকের অংশ ফুলে গেলে বা কুঁচকে গেলে সচেতন হবে। দিনের পর দিন এই একই পরিস্থিতি থাকলে বুঝতে হবে কিডনি মূত্রের মাধ্যমে অনেক প্রোটিন ক্ষয় করছে।

৮. খাওয়া-দাওয়ার অনীহা

যদি খেতে মন না চায়, আর দীর্ঘ দিন ধরে এই একই সমস্যা দেখা দেয়, তা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। এ ক্ষেত্রে পেশি ব্যথা, পেশিতে খিল ধরে যাওয়া বা এই ধরনের কোনও সমস্যা দেখা দিলেও সচেতন হতে হবে। রক্তে টক্সিনের জন্য এই সমস্যা দেখা দেয়। এ ক্ষেত্রে রক্তে ক্যালসিয়ামের মাত্রা কমে যায় ও অনিয়ন্ত্রিত মাত্রায় ফসফরাস থাকে।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 2, 2020, 4:05 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर