সুস্বাদু খাবার সঙ্গে বাইক ফ্রি! এমনই বিশেষ অফার এই রেস্তোরাঁর...

সুস্বাদু খাবার সঙ্গে বাইক ফ্রি! এমনই বিশেষ অফার এই রেস্তোরাঁর...
মোট ১২ টি পদ থাকবে এই বিশাল থালিতে যার ওজন হবে ৪ কেজি। ৫৫ জন লোকের মেহনতে এটি প্রস্তুত করা হয়।

মোট ১২ টি পদ থাকবে এই বিশাল থালিতে যার ওজন হবে ৪ কেজি। ৫৫ জন লোকের মেহনতে এটি প্রস্তুত করা হয়।

  • Share this:

    #পুণে: খাদ্য রসিকদের খোঁজ পাবেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। সুস্বাদু খাবারের সন্ধানে বহু দূরে যেতেও রাজি এঁরা। আর ভাবুন, যদি সেই মনপসন্দ খাবার খেয়েই আপনি পেয়ে যান রয়্যাল এনফিল্ড বুলেট? তাহলে তো সোনায় সোহাগা। হ্যাঁ, পুনেতে এটিই সম্ভব করেছে একটি রেস্তোরাঁয়। এখানকার শিবরাজ হোটেলে একটি বিশেষ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। যিনি জিতবেন তিনি পাবেন একটি ব্র্যান্ড নিউ রয়্যাল এনফিল্ড বুলেট!

    আসলে, শিবরাজ হোটেলের মালিক অতুল ভিকার হোটেলে ভিড় বাড়াতে চান। সেটা করতে এই প্রতিযোগিতাটি শুরু করেছেন। তাঁর মতে, হোটেলটিতে একটি বড় নন-ভেজ থালি প্রস্তুত রয়েছে। এর মধ্যে সমস্ত খাবারের মোট ওজন চার কেজি। পুরস্কার জিততে আগ্রহী ব্যক্তিকে ৬০ মিনিটের মধ্যে এই থালি শেষ করতে হবে। যে ব্যক্তি এই প্লেটের সমস্ত খাবারগুলি ৬০ মিনিটের মধ্যে পুরোপুরি খেয়ে ফেলবেন, তাকে ১.৬৫ লক্ষ টাকার রাজকীয় উপহার দেওয়া হবে।

    শিবরাজ হোটেলে পুরস্কার সম্পর্কে লোকদের জানাতে হোটেলের বারান্দায় পাঁচটি নতুন রয়্যাল এনফিল্ডও রাখা রয়েছে। এছাড়াও, এটি মেনু কার্ড এবং পোস্টারে উল্লেখ করা হয়েছে। এই বিশেষ থালির নাম রাখা হয়েছে বুলেট থালি যাতে লোকেরা নন-ভেজি খাবার পাবেন। মোট ১২ টি পদ থাকবে এই বিশাল থালিতে যার ওজন হবে ৪ কেজি। ৫৫ জন লোকের মেহনতে এটি প্রস্তুত করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে ফ্রাই সুরমই, ফ্রাই ফিশ, তন্দুরি চিকেন, কষা মটন, চিকেন মাসালা এবং চিংড়ি বিরিয়ানি।


    শিবরাজ হোটেল মালিক অতুল জানান, এই নন-ভেজিট বুলেট প্লেটের দাম রাখা হয়েছে ২৫০০ টাকা। হোটেলটি ৮ বছর আগে খোলা হয়েছিল। এর আগেও হোটেলে বেশ কিছু আকর্ষণীয় অফার ছিল। এর আগে একটি থালি ছিল যার নাম ছিল রাবণ থালি। এটিতে ৮ কেজি খাবার ছিল। যারা ৬০ মিনিটের মধ্যে এটি শেষ করেছেন তাদের ৫০০০ টাকার নগদ দেওয়া হয়েছিল। এখন পর্যন্ত একজন ভোজন রসিক বুলেট থালি শেষ করতে পরেছেন নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে। সেই ব্যক্তির নাম সোমনাথ পাওয়ার, যিনি সোলাপুরের বাসিন্দা। তাকে বুলেট বাইকটি উপহার দেওয়া হয়েছে।

    Published by:Pooja Basu
    First published: