Home /News /life-style /
Air Purifying Indoor Plants | ঘরের বাতাসেও তাপ! এই ১০ গাছ লাগালেই এই গরমে মিলবে মুক্তির স্বাদ

Air Purifying Indoor Plants | ঘরের বাতাসেও তাপ! এই ১০ গাছ লাগালেই এই গরমে মিলবে মুক্তির স্বাদ

Air-Purifying Indoor Plants: বাইরেও যেমন গরম, সমান তাপ ঘরের ভেতরেও। এখানে দেওয়া হল ১০ গাছের হদিশ যা ঘরের বাতাসকে বিশুদ্ধ রাখে।

  • Share this:

Air Purifying Indoor Plants : পরিবেশ দূষণের ঠেলায় গোটা বিশ্বেরই ত্রাহি ত্রাহি রব। বাড়ির অন্দরমহলেও ঢুকে পড়েছে এই বিষ। চারিদিকে গাছ কেটে ফেলার ফলে যেভাবে দূষণ বাড়ছে, তাতে কয়েকদিন পরে কিন্তু ঘরের বাইরে বা ভেতরের দূষণের কোনও তফাতই থাকবে না। সে কারণেই বাইরেও যেমন গরম, সমান তাপ ঘরের ভেতরেও।

তবে প্রাকৃতিক উপায়ে খুব সহজেই ঘরবাড়ির বাতাসকে বিশুদ্ধ, শীতল করে তোলা যায়। এজন্য ঘরে রাখতে হবে নির্দিষ্ট কিছু গাছ। প্রাকৃতিক গুণাগুণ সমৃদ্ধ এসব গাছ বিভিন্ন ক্ষতিকর পদার্থ দূর করে ঘরের বাতাসকে বিশুদ্ধ করতে সহায়তা করে। গাছ যেমন মন ভালো রাখে সেই সঙ্গে শরীরও ভালো রাখে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সুস্থ থাকতে বাড়িতে গাছ লাগানোর কোনও বিকল্প নেই। উদ্ভিদ ছাড়া ঘরের সাজসজ্জাতেও যেন পরিপূর্ণতা আসে না।

এখানে দেওয়া হল ১০ গাছের হদিশ যা ঘরের বাতাসকে বিশুদ্ধ রাখে...

এরিকা পাম: বাতাসকে শুদ্ধ করার ব্যাপারে এই ইন্ডোর প্ল্যান্টটির যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। এটিকে প্রকৃতি যেন বিশেষভাবে তৈরিই করেছে বাতাস পরিশুদ্ধ করার জন্য। বসার ঘরে রাখার জন্য এটা একেবারে আদর্শ একটি গাছ। অল্প আলো এবং মাঝে মধ্যে জল দেওয়া ছাড়া বিশেষ যত্নের দরকার পড়ে না।

জারবেরা ডেইজি: বাগানের সৌন্দর্যায়নের জন্য জারবেরা একটি অনন্য নাম। কিন্তু এর বিপুল পরিমাণ অক্সিজেন উৎপাদন ক্ষমতা এবং বাতাস থেকে দূষিত কণা দূর করার ক্ষমতা সম্পর্কে অনেকেরই ধারণা নেই। তবে এর জন্য শীতকাল ছাড়া সারা বছরই পর্যাপ্ত সূর্যরশ্মি প্রয়োজন হয়। ভালো করে জল দিতে হয়, যাতে মাটি সব সময় ভিজে থাকে। শোওয়ার ঘর এই গাছ রাখার আদর্শ জায়গা।

আরও পড়ুন - iPhone-এর ব্যাটারি নিঃশেষিত হচ্ছে দ্রুত? আপনার হাতেই রয়েছে সহজ উপায়

পিস লিলি: চমৎকার একটি বায়ু পরিশোধক গাছ। অল্প আলোতেই এই গাছ বেড়ে ওঠে। এর হলুদ পাতা বুঝিয়ে দেবে সে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি রোদ পাচ্ছে। স্বাভাবিক পরিমাণে জল দিলেই যথেষ্ট। ঘরের বাতাস থেকে বেনজিন, ট্রাইক্লোরোইথিলিন, ফর্মালডিহাইড, জাইলিন শোষণ করে। এতে গ্রীষ্মে ফুটবে খুব চমৎকার সাদা ফুল। তবে বিড়াল, কুকুর আর বাচ্চাদের কাছে থেকে দুরে রাখতে হবে এই গাছ। কারণ গলায় বা পেটে গেলে চুলকোবে।

ইংলিশ আইভি: নাসা-এর গবেষকদের মতে এই গাছ মাত্র ৬ ঘণ্টার মধ্যে ঘরের বাতাসের প্রায় ৬০ শতাংশ টক্সিন এবং ৫৮ শতাংশ পর্যন্ত দুর্গন্ধ শুষে নিতে পারে।

স্পাইডার প্ল্যান্ট: এই গাছটির বিশেষত্ব হল খুব কম আলোতেও এরা সালোকসংশ্লেষ করতে পারে। ফলে অক্সিজেনের জোগান অব্যাহত রাখে। স্টাইরিন, গ্যাসোলিন জাতীয় টক্সিন বাতাস থেকে শুষে নিতে সক্ষম। একটা গাছ প্রায় ২০০ বর্গ মিটার এলাকার বাতাস পরিশুদ্ধ করে তুলতে পারে।

ড্রাকেনা: প্রায় ৪০ রকমের ড্রাকেনা পাওয়া যায়। বাতাস থেকে বেনজিন, ফর্মালডিহাইড এবং জাইলিনের মতো বিপজ্জনক রাসায়নিক শুষে নিতে এর জুড়ি নেই।

উইপিং ফিগ: এটি ওয়েপিং ফিগার বা ফিকাস ট্রি নামেও পরিচিত। নাসার স্টাডি অনুসারে, এই প্ল্যান্ট বাড়ির ইনডোর-এয়ার টক্সিন ফর্মালডিহাইড এবং জাইলিন অপসারণে দারুণ কার্যকর।

স্নেক প্ল্যান্ট: ইন্ডোর প্ল্যান্টগুলির মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় স্নেক প্ল্যান্ট। NASA দ্বারা স্বীকৃত এই গাছ টক্সিন শোষণ বা অক্সিজেন সরবরাহ তো করেই সেই সঙ্গে রাতেও এরা অক্সিজেন ঘরের মধ্যে ছাড়তে থাকে। খুব আলো বা জলের প্রয়োজন হয় না এবং সহজে মরেও না এই গাছ। তাই বেডরুমে রাখার জন্য সব থেকে আদর্শ গাছ এটা। বিশেষত ট্রাইক্লোরোথাইলিন এবং ফর্মালডিহাইড জাতীয় টক্সিন শুষে বাতাস পরিষ্কার করে স্নেক প্ল্যান্ট।

আরও পড়ুন - WhatsApp Pay-তে এবার থেকে নতুন নিয়ম চালু! আর টাকা জালিয়াতির ভয় থাকবে না!

মানি প্ল্যান্ট: মানিপ্ল্যান্টকে সৌভাগ্যের গাছও বলা হয়। ধারণা করা হয়, এই গাছ বাড়িতে বা অফিসে লাগালে, বাড়ির সুখ- শান্তি আর ঐশ্বর্য বৃদ্ধি পায়। এর কারণ হিসেবে বলা হয়- গাছের প্রত্যেকটি শাখায় ৫টি করে পাতা থাকে। এই পাঁচটি পাতা ধাতু, কাঠ, জল, আগুন ও পৃথিবীর প্রতীক। এই পাঁচটি উপাদান সমৃদ্ধিকে আকর্ষণ করে। আলো ছাড়াও বেঁচে থাকতে পারে, তেমন কোনও যত্নেরও প্রয়োজন হয় না। ঘরের যে কোনও কোণে এই লতানো গাছটি দূষণ শোষণ করে বাতাসকে বাসযোগ্য করে রাখবে। এটি বেনজিন, ট্রাইক্লোরোইথিলিন, ফর্মালডিহাইড, জাইলিন শোষণ করে।

চাইনিজ এভারগ্রিন: ইন্ডোর গাছ হিসাবে চাইনিজ এভারগ্রিন গাছ খুবই পরিচিত । নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে যে এটির উৎপত্তি চীনে। সে দেশে এটি খুব জনপ্রিয়ও। একদিকে যেমন বিষাক্ত উপাদান সরিয়ে বাতাস বিশুদ্ধ রাখবে তেমনই সৌন্দর্য বর্ধনও হবে। একে লালন পালনের জন্য খুব বেশি যত্নের প্রয়োজন হয় না। ছায়াতে ভাল থাকে এরা। তবে খেয়াল রাখতে হয় যেন টবের মাটি ভিজে থাকে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

Tags: Home Decor, Indoor plants

পরবর্তী খবর