• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • YOUNG MAN KILLED IN HARIDEVPUR AFTER GETTING ELECTROCUTED DMG

হঠাৎ ছিঁড়ে পড়ল তার, বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ফের শহরে বেঘোরে প্রাণ গেল যুবকের

মৃত মানিক বারুই৷

তিন বছর আগে জামাইষষ্ঠীর ঠিক পরের দিন অটো দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল মানিকের মা এবং বোনের৷ সেই জামাইষষ্ঠীর পরের দিনই দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল মানিকের৷

  • Share this:

    #কলকাতা: ফের শহরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হল এক যুবকের৷ এ বার ঘটনাস্থল দক্ষিণ শহরতলির হরিদেবপুর অঞ্চল৷ তবে এবার জমা জলের মধ্যে নয়, বাইক চালিয়ে যাওয়ার সময় আচমকাই বিদ্যুতের খুঁটি থেকে তার ছিঁড়ে পড়ল যুবকরে শরীরে৷ যার জেরে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হল তাঁর৷

    মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনা ঘটেছে হরিদেবপুরের বাইশ বিঘা রোডে৷ মৃত যুবকের নাম মানিক বারুই (৩৬)৷ জোকার গোপালনগরের বাসিন্দা মানিক পেশায় গাড়ি চালানোর পাশাপাশি জিম ট্রেনার হিসেবে কাজ করতেন৷

    যেভাবে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে, তাকে দুর্ভাগ্যজনক বললেও বোধ হয় কম বলা হয়৷ স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটা নাগাদ ওই রাস্তা দিয়ে বাইকে চালিয়ে যাচ্ছিলেন মানিক৷ তখন প্রবল বৃষ্টির সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়ায়ও বইছিল৷ মানিকের ঠিক আগে আরও দু'টি গাড়ি বেরিয়ে যায়৷ কিন্তু মানিক ওই বিদ্যুতের খুঁটির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় আচমকা একটি বিদ্যুতের তার ছিঁড়ে ওই যুবকের গায়ের উপরে পড়ে৷ বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বাইক নিয়েই রাস্তার উপরে পড়ে যান মানিক৷ দুর্ঘটনার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে এলাকাবাসীরা ছুটে এসে পুলিশকে খবর দেন৷ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেহ উদ্ধার করা হয়৷ ওই এলাকাটি পশ্চিমবঙ্গ বিদ্যুৎ বণ্টন নিগমের মধ্যে পড়ে৷

    মানিকের বাড়িতে আরও তাঁর স্ত্রী, ছোট মেয়ে ছাড়াও বৃদ্ধ বাবাও রয়েছেন৷ মানিকই ছিলেন পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী৷ ঘটনাচক্রে তিন বছর আগে জামাইষষ্ঠীর ঠিক পরের দিন অটো দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল মানিকের মা এবং বোনের৷ সেই জামাইষষ্ঠীর পরের দিনই দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল মানিকের৷ কাকতালীয় হলেও তিন বছরের তফাতে এই ঘটনায় যেন আরও বেশি করে স্তম্ভিত মৃত যুবকের পরিবার৷

    গত মাসেই কলকাতায় রাজ ভবনের কাছে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছিল ফরাক্কার বাসিন্দা এক যুবকের৷ ঘটনার দায় কার, তখন বেশ কিছুদিন তা নিয়ে চাপানউতোর চলেছিল পুরসভা এবং সিইএসসি-র মধ্যে৷ হরিদেবপুরের ঘটনাতেও এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই এলাকার বিদ্যুতের খুঁটিগুলির ঠিকমতো রক্ষণাবেক্ষণ হয় না৷ হয়তো এই গাফিলতিরই মাশুল দিতে হল যুবককে৷ ময়নাতদন্তের পর যুবকের দেহ তাঁর পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে৷

    Sukanta Mukherjee
    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: