• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফিরলেন বরুণ এবং সন্দীপ

করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফিরলেন বরুণ এবং সন্দীপ

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন বরুণ এবং সন্দীপ

সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন বরুণ এবং সন্দীপ

ভাল খবর হল করোনার বিরুদ্ধে জিতে অবশেষে বাড়ি ফিরলেন বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়ারিওর। কলকাতা নাইট রাইডার্সের এই দুই ক্রিকেটার সবার প্রথমে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন

  • Share this:

    #চেন্নাই: গত কয়েকদিন মোটেই আনন্দে কাটেনি এই দুজন ক্রিকেটারের। মূলত এই দুজনকে দিয়ে আইপিএলে শুরু হয়েছিল করোনা ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়া। বরুণ চক্রবর্তী তবুও দলের হয়ে সব কটা ম্যাচ খেলেছিলেন। কিন্তু সন্দীপ ওয়ারিয়র সুযোগ পাননি একটি ম্যাচেও। বায়ো বাবল কী করে ভাঙল? বারবার উঠেছে প্রশ্নটা। সেই উত্তর অবশ্য এখনও খোঁজা চলছে। উত্তর পাওয়া যাবে কিনা বলবে সময়। তবে ভাল খবর হল করোনার বিরুদ্ধে জিতে অবশেষে বাড়ি ফিরলেন বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়ারিওর।

    কলকাতা নাইট রাইডার্সের এই দুই ক্রিকেটার সবার প্রথমে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তারপর দুই আক্রান্ত ক্রিকেটারকে ১০ দিনের নিভৃতবাসে পাঠিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এই নিভৃতবাস কাটিয়ে বাড়ি ফিরলেন বরুণ ও সন্দীপ। তবে সুস্থ থাকলেও কেকেআর-এর চিকিৎসকদের সঙ্গে দুই ক্রিকেটারকে নিয়মিত যোগাযোগ রাখার নির্দেশ দিয়েছে বিসিসিআই।

    এই বিষয়ে এক বোর্ড কর্তা বলেন, “বরুণ ও সন্দীপ ১০ দিনের নিভৃতবাস কাটিয়ে ইতিমধ্যেই বাড়ি পৌঁছে গিয়েছে। তবে ওদের স্বাস্থ্যের ব্যাপারটা কলকাতা নাইট রাইডার্সের ডাক্তাররা দেখভাল করবে।” চলতি বছর আইপিএল মাঝপথে বাতিল হয়ে যাওয়ার আগে এই দুই ক্রিকেটার প্রথম আক্রান্ত হয়েছিলেন। পরে অনুশীলন করার সময় সন্দীপ ওয়ারিওরের থেকে ভাইরাস দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্রের শরীরে ছড়িয়ে যায়। সেই ঘটনার পরেও আইপিএল বন্ধ করে করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়নি বিসিসিআই।

    তবে চেন্নাই সুপার কিংস শিবির ও ঋদ্ধিমান সাহা কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার পর গত ৪ মে ক্রোড়পতি লিগ এবারের মতো বাতিল করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বোর্ড। দুজনেই জানিয়েছেন আপাতত শরীরে কোনও সমস্যা নেই। নিঃশ্বাস স্বাভাবিক রয়েছে। আপাতত বাড়িতেই বিশ্রাম করবেন এই দুজন ক্রিকেটার। কেকেআর দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে প্রতিদিন দলের ডাক্তাররা খোঁজ নেবেন এই দুই ক্রিকেটারের। দলের পক্ষ থেকে সবরকম সাহায্য করা হবে।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: