Corona In Bengal: বন্ধ লোকাল ট্রেন, বাটা থেকে বরানগর, ইছাপুর থেকে সোনারপুর,সাইকেলই ভরসা সাধারণ মানুষের

বৈদ্যবাটি থেকে চাঁদনি- প্রায় ৪১ কিলোমিটার। ট্রেন বন্ধ থাকায় সাইকেলেই অফিস যাচ্ছেন জয়ন্ত দাস। সাইকেলেই অফিস থেকে বাড়ি।

বৈদ্যবাটি থেকে চাঁদনি- প্রায় ৪১ কিলোমিটার। ট্রেন বন্ধ থাকায় সাইকেলেই অফিস যাচ্ছেন জয়ন্ত দাস। সাইকেলেই অফিস থেকে বাড়ি।

  • Share this:

    #কলকাতা: ফিরে এল চাকা। ফিরে এল সাইকেল। ২০২০-র কষ্টের স্মৃতি ২০২১-শেও। বন্ধ লোকাল ট্রেন। বাটা থেকে বরানগর, ইছাপুর থেকে সোনারপুর- আবার সাইকেলে মাইলখানেক রাস্তা পাড়ি।

    বিশ ছাড়িয়ে একুশ। এখনও করোনা-বিষের জ্বালা। ফিরে ফিরে আসছে বিশের অনেক বিষময় ছবি। আকারে বাড়ছে সংক্রমণ। মোকাবিলায় হাতিয়ার আকারে ছোট লকডাউন। লোকাল ট্রেন বন্ধ। এই পরিস্থিতিতে ফিরল সেই বাঁই বাঁই সাইকেলও। বাসে বাদুড়ঝোলা ভিড়। পাদানিতেই সংক্রমণের আশঙ্কা। ফলে বাসযাত্রা নৈব নৈব চ। অতএব নিরাপদ দু-চাকাই ভরসা দিন আনা দিন খাওয়া মানুষদের।

    যেমন তন্ময় বর্ধন। থাকেন ইছাপুরে। ইছাপুর থেকে শিয়ালদা- একুশ বছরের ডেইলি প্যাসেঞ্জার। গত বছরের পর ফের বন্ধ লোকাল ট্রেন। ভরসা সেই সাইকেল।

    বৃহস্পতিবারের সকালে হাওড়া ব্রিজ ছিল সাইকেলময়। চাকরি বাঁচানোর দায়, বাসে উঠলে সংক্রমণের ভয়। ফলে প্যাডেলে চাপ। সাইকেলেই মাইলখানেক রাস্তা পাড়ি। ট্রেন বন্ধ করার আগে সময় পেলে ভাল হত। মনে করেন অনেকেই।

    বৈদ্যবাটি থেকে চাঁদনি- প্রায় ৪১ কিলোমিটার। ট্রেন বন্ধ থাকায় সাইকেলেই অফিস যাচ্ছেন জয়ন্ত দাস। সাইকেলেই অফিস থেকে বাড়ি। অফিস না গেলে কর্মহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কা।

    সাইকেল-সফরে পাল্লা দিচ্ছেন মহিলারাও। যেমন বিজলি দে। সোনারপুর থেকে বাটানগর সাইকেলেই যেতে হচ্ছে তাঁকে।

    অনেকেই বলছেন, সংক্রমণের শৃঙ্খল ভাঙতে জোর দিতে হবে শৃঙ্খলাতেই। বরানগরের তন্ময় বা সোনারপুরের বিজলিরা ভালই জানেন। তাই সংসারের ব্যালান্স রাখতে সাইকেলের ব্যালান্স বজায় রাখাই এখন তাঁদের লক্ষ্য।
    Published by:Dolon Chattopadhyay
    First published: