কলকাতা

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

শীঘ্রই কি খুলবে স্কুল? ক্লাস চালুর পক্ষেই সওয়াল এবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের

শীঘ্রই কি খুলবে স্কুল? ক্লাস চালুর পক্ষেই সওয়াল এবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের

এবার কি তাহলে ক্লাসরুমে ক্লাস শুরু হচ্ছে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের?

  • Share this:

#কলকাতা: এবার কি তাহলে ক্লাসরুমে ক্লাস শুরু হচ্ছে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের? অন্তত সোমবার মধ্যশিক্ষা পর্ষদ, উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের তরফে এমনটাই মতামত গেল রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দফতরের কাছে। সূত্রের খবর, এই দিনের বৈঠকে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ, উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতিরা ক্লাস চালুর পক্ষে সওয়াল করেছেন।

সোমবার মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা ও সিলেবাস সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে চূড়ান্ত মতামত নেওয়ার জন্য স্কুল শিক্ষা সচিব বৈঠক করেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ এবং সিলেবাস কমিটির সঙ্গে। বৈঠকে পর্ষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কার্তিক মান্না, উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস, সিলেবাস কমিটির চেয়ারম্যান অভীক মজুমদার এর পাশাপাশি দীর্ঘদিন অসুস্থতা কাটিয়ে এই দিনের বৈঠকে যোগ দেন পর্ষদের স্থায়ী সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়ও। সূত্রের খবর, এই দিনের বৈঠকে শুরু থেকে শেষ পর্যন্তই কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় মাধ্যমিক পরীক্ষার সিলেবাস থেকে শুরু করে পরীক্ষা কবে নেওয়া সম্ভব তা নিয়ে বিস্তারিত ব্যাখ্যা দেন।

মাধ্যমিক স্তরের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ সিলেবাস শেষ হলেও উচ্চমাধ্যমিকের যেহেতু ক্লাসরুমে কোন ক্লাসই করা যায়নি তাই  ক্লাসরুমে পঠন-পাঠন শুরু করা যায়নি। আর সেক্ষেত্রে অবিলম্বে ক্লাসরুমে ক্লাস চালু করা দরকার বলেই দুই বোর্ডের তরফে ব্যাখ্যা দেওয়া হয়েছে স্কুল শিক্ষা সচিবকে বলেই সূত্রের খবর। যদিও এই বিষয় নিয়ে মন্তব্য করতে চাননি মধ্যশিক্ষা পর্ষদ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের কোনও অধিকারিকই। তবে সে ক্ষেত্রে ক্লাস চালু হলে কিভাবে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্লাস করানো হবে সেই বিষয় যাবতীয় বিধি তৈরি হয়ে গেছে বলেও স্কুল শিক্ষা দফতর সূত্রের খবর।

এই দিনের বৈঠকে ক্লাস চালুর পক্ষে সওয়াল করলেও মধ্যশিক্ষা পর্ষদ,উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ কবে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নিতে পারবে তা নিয়ে চূড়ান্ত মতামত নেওয়া হয়। বৈঠকে উপস্থিত থেকে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাস জানান, জুনের আগে কোনভাবেই উচ্চমাধ্যমিক নেওয়া সম্ভব নয়  বলেই সূত্রের খবর।

অন্যদিকে, বৈঠকে উপস্থিত থেকে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের স্থায়ী সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় জানান, মে-জুন মাসের আগে মাধ্যমিক নেওয়া সম্ভব নয়, কারণ পরীক্ষা নেওয়ার আগে প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য অন্তত তিন-চার মাস সময় লাগবে । তবে ফেব্রুয়ারি মাসে ও মার্চ মাসে কেন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া যাবে না, তা নিয়েও স্কুল শিক্ষা সচিবের প্রশ্নের মুখে পড়ে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। তবে সে ক্ষেত্রে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের তরফে আইসিএসই, সিবিএসই বোর্ডের পরীক্ষার কথা মাথায় রাখতে বলা হয়েছে। কারণ, ওই দুই বোর্ডের দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা যদি মার্চ মাসে হয়ে যায় সে ক্ষেত্রে এ রাজ্যের উচ্চমাধ্যমিকে পড়ুয়ারা  বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা থেকে অনেকটাই পিছিয়ে পড়বে। সে ক্ষেত্রে উচ্চমাধ্যমিকের পরীক্ষা সূচি চূড়ান্ত করার আগে এই বিষয়টিও যাতে মাথায় রাখা হয় তা নিয়েও কার্যত সতর্ক করেছে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ।

অন্যদিকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের কতটা সিলেবাস কাটছাঁট হবে তা নিয়ে ইতিমধ্যেই দুই বোর্ডের তরফে রিপোর্ট জমা পড়েছে স্কুল শিক্ষা দফতরে। সূত্রের খবর,  স্কুল শিক্ষা দফতরের রিপোর্ট জমা পরপর মুখ্যমন্ত্রী দফতরে তা ইতিমধ্যেই পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। মূলত দুই বোর্ডের তরফেই মাধ্যমিকের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ সিলেবাস এবং উচ্চমাধ্যমিকের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ সিলেবাস কাটছাঁটের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে । যদিও এই দিনের বৈঠকে স্কুল শিক্ষা সচিব কার্যত স্পষ্ট করে দিয়েছেন যাবতীয় সিদ্ধান্ত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নেবেন। সে ক্ষেত্রে চলতি সপ্তাহের মধ্যেই কোন সিদ্ধান্ত বেরিয়ে আসে নাকি সেই দিকেই নজর মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের।

সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by: Elina Datta
First published: October 12, 2020, 6:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर