সূচিতে ছিল না শুরুতে, হঠাৎ কেন নেতাজি ভবনে গেলেন মোদি

সূচিতে ছিল না শুরুতে, হঠাৎ কেন নেতাজি ভবনে গেলেন মোদি
নেতাজি ভবনে নরেন্দ্র মোদি।

সূত্রের খবর, নেতাজির পরিবারবর্গ কোনও ভাবেই চাননি এই অনুষ্ঠানে কোনও রাজনৈতিক রঙ লাগুক।

  • Share this:

    #কলকাতা: সকাল থেকেই ট্যুইটারে চলছে ঠাণ্ডাযুদ্ধ। নরেন্দ্র মোদির ট্যুইটে যেমন প্রাধান্য পাচ্ছিল পরাক্রম দিবস, মমতা প্রথম থেকেই স্পষ্ট করছিলেন পরাক্রম নয়, দেশনায়ক শব্দটিকেই প্রাধান্য দিতে চাইছেন তিনি। বেলা গড়াতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যাত্রাপথই অভিমুখ হল নরেন্দ্র মোদির।

    শনিবার সকালটা মমতা শুরু করেন নেতাজি ভবনের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে। তাঁর প্রতিকৃতিতে মালা দেন মমতা। তারপর চলে যায় শ্যামবাজারে পদযাত্রায় যোগ দিতে। উল্লেখ্য নেতাজির জন্মজয়ন্তী পালনের অনুষ্ঠানে কলকাতায় আসার যে সূচি ছিল নরেন্দ্র মোদির, সেখানে নেতাজি ভবনের নামই ছিল না। সূত্রের খবর শেষ মুহূর্তে ন্যাশানাল লাইব্রেরি, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের পাশাপাশি এই স্থানটিকেও সফরসূচিতে যোগ করা হয়।

    নরেন্দ্র মোদির হেলিকপ্টার আরসিটিসি গ্রাউন্ডে নামে দুপুর ৩ টে ২৫ মিনিট নাগাদ। সেখান থেকে তিনি সরাসরি চলে যান নেতাজি ভবনে। ঘুরে ঘুরে দেখেন সুভাষচন্দ্রের বাড়ি। তাঁকে গোটা সংগ্রহশালা ঘুরিয়ে দেখান সুগত বসু। হরিপুরা কংগ্রেস নিয়ে একপ্রস্থ কথাও হয় মোদি-সুগত বসুর।


    সূত্রের খবর, নেতাজির পরিবারবর্গ কোনও ভাবেই চাননি এই অনুষ্ঠানে কোনও রাজনৈতিক রঙ লাগুক। তাই প্রধানমন্ত্রীকে তাঁরা সাদরে অভ্যর্থনা জানালেও বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, স্বপন দাশগুপ্তরা আজ সেখানে যেতে পারেননি

    রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মোদির কর্মসূচি একদম ঘড়ির কাঁটায় বাঁধা। নেতাজি ভবনে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল না সময়ানুগ কারণেই। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদক্ষেপই তাঁকে কার্যত নিয়ে গেল নেতাজি ভবনে। শেষ মুহূর্তে রদবদল হল সূচিতে। নেতাজি ভবন থেকে বেরিয়ে মোদি যান জাতীয় গ্রন্থাগারে। তারপর আসেন ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে। সেখান তাঁর সঙ্গে দেখা যায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কেও। এখানে একটি আন্তর্জাতিক আলোচনাচক্রে প্রধান বক্তা নরেন্দ্র মোদি।

    Published by:Arka Deb
    First published: