'জনকল্যাণে জীবন দিয়ে দেবো', এই বার্তা দিতে খড়্গপুরকেই কেন বাছলেন মোদি?

'জনকল্যাণে জীবন দিয়ে দেবো', এই বার্তা দিতে খড়্গপুরকেই কেন বাছলেন মোদি?

খড়্গপুরে নরেন্দ্র মোদি। ছবি ট্যুইটার থেকে নেওয়া।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সদ্য প্রকাশিত দশটি অঙ্গীকারকে একহাত নিয়ে মোদি বললেন, বাংলার যুবসমজারে দশ বছর কেড়ে নিয়েছে তৃণমূল সরকার।

  • Share this:

    #কলকাতা: 'গত ৭০ বছর অনেককে সুযোগ দিয়েছেন আপনারা। আমাদের পাঁচ বছর দিন, আমরা ৭০ বছরের ক্ষতিপূর্ণ করে দেবো। আপনার কল্যাণে জীবন দিয়ে দেবো।' ভোটপ্রচারে আর ক্ষমতাদখলে মরিয়া নরেন্দ্র মোদি  খড়্গপুরের জনসভা থেকে এমনটাই বললেন আজ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলের সদ্য প্রকাশিত দশটি অঙ্গীকারকে একহাত নিয়ে মোদি বললেন, বাংলার যুবসমজারে দশ বছর কেড়ে নিয়েছে তৃণমূল সরকার।

    এ দিন নরেন্দ্র মোদি বলেন, বাংলার উন্নয়নের পথে দাঁড়িয়ে রয়েছেন দিদি। আপনারা বিশ্বাস করেছিলেন দিদিকে। আর উনি আপনাদের স্বপ্ন চুরমার করে দিয়েছেন। আজকে দশটি অঙ্গীকারের কথা বলছেন। বাংলার মানুষ আপনাকে ১০ বছর সময় দিয়েছিলেন। আপনি লুঠতরাজের সরকার চালিয়েছেন।

    ভোটের মুখে, যখন প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এ রাজ্যে আসছেন, সুর চড়াচ্ছেন বিজেপি নেতারা, এদিনও যে তাঁর বাত্যয় হবে না তা তো জানাই ছিল, বিশেষত মঞ্চে যখন মোদি। কিন্তু প্রশ্ন অন্যত্র। মোদি হোন বা শাহ, শক্তিপ্রদর্শন অথবা বিপক্ষকে তীব্র আক্রমণের জন্য বারবার খড়্গপুরকেই বেছে নিচ্ছেন কেন বিজেপির হেভিওয়েট নেতারা?

    রাজনৈতিক মহলের  পর্যবেক্ষণ, আসলে খড়্গপুর হল বিজেপির প্রেস্টিজ ফাইট। এই আসনে একচেটিয়া দখলদারি ছিল কংগ্রেসের। জ্ঞানসিং সোহনপাল এখানে কিংবদন্তি ছিলেন। দশবারের সাংসদ 'চাচা'-কে ভালোবাসতেন আবালবৃদ্ধবনিতা। তিনিও মন দিয়ে ছোটবড় সব মানুষের সব সমস্যার কথা শুনতেন।  এই জ্ঞানসিং সোহনপালের ঝড়ই ২০১৬ সালে থামিয়ে দেন দিলীপ ঘোষ। অসম্ভবকে সম্ভব করাই ছিল এই পদ্মপ্রতিষ্ঠা।

    ক্রমে দিলীপ ঘোষ সাংসদ হন। পুনরায় উপনির্বাচন হয় কেন্দ্রটিতে। নিয়তির মুচকি হাসি এমনই যে বিজেপিকে হারতে হয় এই আসনেই।  এই আসনটি যেনতেন প্রকারেণ ফেরাতে মরিয়া বিজেপি শিবির। অথচ দিলীপ ঘোষকে আরও একবার অগ্নিপরীক্ষায় নামায়নি দল। দলেরই এক সংগঠকের ব্যখ্যায়, "দিলীপদা অল আউট খেলছেন, তাঁকে কোনও একটি কেন্দ্রে আটকে রাখতে চায়নি দল।" কিন্তু আসনটিও রাখতে  হবে। এদিকে প্রার্থী হয়েছেন হিরণের মতো রাজনীতির এক নবাগত। এই কারণেই গড়রক্ষার যাবতীয় তৎপরতা।

    Published by:Arka Deb
    First published: