ভাঙা পায়েই আজ থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 

ভাঙা পায়েই আজ থেকে নির্বাচনী প্রচার শুরু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 

আজ বাঘমুন্ডি ও বলরামপুর দুই জায়গায় সভা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আজ বাঘমুন্ডি ও বলরামপুর দুই জায়গায় সভা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

  • Share this:

#কলকাতা: ২০১১ সালে ক্ষমতায় আসার পরে জঙ্গলমহল নিয়ে একাধিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বাধীন সরকার। সেই পরিকল্পনায় বদল এসেছিল জঙ্গলমহলের অন্যতম জেলা পুরুলিয়ার। ২০১১ সালের পর ২০১৩ সালের পঞ্চায়েত, ২০১৪ সালের লোকসভা, ২০১৬ সালের বিধানসভা, ২০১৮ সালের পঞ্চায়েতে পুরুলিয়া ভালো ফল দিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসকে। শেষ মেষ ২০১৯ সালে লোকসভায় এই জেলার একমাত্র আসন হাতছাড়া হয়েছে তৃণমূলের। ভোটের ব্যবধান কমেছে একাধিক বিধানসভায়। আদিবাসী ভোট ব্যাঙ্ক মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। এবার সেই পুরুলিয়া জেলা পুনরুদ্ধারে সচেষ্ট হল তৃণমূল কংগ্রেস।

বিধানসভা ভোটে এই জেলা থেকে ভালো ফল করতে চায় শাসক দল। তাই পরপর দু'দিন তৃণমূল কংগ্রেস মেগা শো করতে চায় জঙ্গলমহলের এই জেলা থেকে। তাই আজ বাঘমুন্ডি ও বলরামপুর দুই জায়গায় সভা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আর আগামীকাল এখানে সভা করবেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। পুরুলিয়া জেলার ৯ আসনের মধ্যে ৪ বিধানসভা আসনে নতুন মুখ নিয়ে এসেছে তৃণমূল কংগ্রেস। জঙ্গলমহলের পাশাপাশি দুই জেলার জেলা পরিষদের দুই সভাধিপতি সহ চার পদাধিকারীকেও বিধানসভা ভোটে প্রার্থী করেছে দল। পুরুলিয়া কেন্দ্রে সভাধিপতি সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়কেই প্রার্থী করা হয়েছে। রাজনৈতিক মহলের মতে লোকসভা ভোটে পুরুলিয়ায় ‘বিপর্যয়ের’ পরে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে ঘুরে দলের কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করে ফের দলের কাজে নামানোর চেষ্টা চালিয়েছিলেন সুজয়বাবু।

সম্প্রতি পুরুলিয়া শহরে দলের কিছু কর্মসূচিতে তাঁর সক্রিয়তা দেখেই তাঁর নাম এই কেন্দ্রের জন্য বিবেচিত হয়েছে। যদিও পুরুলিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের নেতৃত্বের একাংশ সুজয়বাবুকে প্রার্থী করা যাবে না বলে প্রকাশ্যে দাবিও জানিয়েছিল। যদিও সুজয়বাবু জানিয়েছেন, "পুরুলিয়া উদ্ধারের জন্য দলের প্রতিটি কর্মীকে নিয়ে নির্বাচনে ঝাঁপাব।" পুরুলিয়ার বাঘমুণ্ডিতেও প্রার্থী করা হয়েছে দলের জেলা যুব সভাপতি সুশান্ত মাহাতোকে। জেলা কংগ্রেস সভাপতি নেপাল মাহাতোর গড় বলে পরিচিত এই কেন্দ্র এ বার ছিনিয়ে আনবেন বলে দাবি করছে তৃণমূলের সুশান্ত।জয়পুরে প্রার্থী করা হয়েছে আড়শা পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি উজ্জ্বল কুমারকে। বিদায়ী বিধায়কের হয়ে এলাকায় সাংগঠনিক কাজ করেছেন। তিনিও নতুন প্রজন্মের প্রতিনিধি। রঘুনাথপুরের প্রার্থী হয়েছেন ছাত্রাবস্থায় টিএমসিপির সক্রিয় নেতা হাজারি বাউরি। এখন দলের জেলা সাধারণ সম্পাদক, প্রাথমিক স্কুল শিক্ষক। দলের একটি সূত্রের দাবি,বিভিন্ন কেন্দ্রে দরকার হয়ে পড়েছিল নতুন মুখ। যাদের ওপর ভরসা করে পুরুলিয়া  ছিনিয়ে আনতে পারবে ঘাস ফুল শিবির। সেই নতুন প্রজন্মকে সামনে রেখেই আজ বার্তা দেবেন আহত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Published by:Ananya Chakraborty
First published: