Home /News /kolkata /
Exclusive: জেলবন্দিদের মনে 'মেঘ'? খুঁজতে সংশোধনাগারগুলির কাছে রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের!

Exclusive: জেলবন্দিদের মনে 'মেঘ'? খুঁজতে সংশোধনাগারগুলির কাছে রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের!

সংশোধনাগার নিয়ে আদালত

সংশোধনাগার নিয়ে আদালত

Exclusive: রাজ্যের সমস্ত জেল বন্দিদের মনের কোণে  মেঘ জমেছে?  মানসিক সুস্থতা কতটা বন্দিদের? মনের বিকার আটকাতে গরাদের ভিতর পর্যাপ্ত কাউন্সেলিং হয়? পরপর সারপ্রাইজ ভিজিট জেলার  সংশোধনাগার গুলিতে।

  • Share this:

#কলকাতা: জেলবন্দিদের মনের 'মেঘ' খুঁজতে সারপ্রাইজ ভিজিট করেন আগেই বিচারপতি সৌমেন সেন। সেই ভিজিটে কিছু ত্রুটি সামনে আসে।সোমবার প্রধান বিচারপতি ডিভিশন বেঞ্চ সংশোধনাগার নিয়ে বিশদ রিপোর্ট তলব করে। সংশোধনাগারে সীমিত স্থানে অতিরিক্ত বন্দিদের নিয়ে চিন্তিত হাইকোর্ট (Calcutta High Court On Prisoners)। ৮ আগস্ট এর মধ্যে রিপোর্ট তলব প্রধান বিচারপতি ডিভিশন বেঞ্চের।

রাজ্যের বিভিন্ন সংশোধনাগারে বন্দিদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বর্তমানে সেই সংখ্যা অত্যধিক হওয়ার ফলে সীমিত জায়গার মধ্যে অধিক বন্দিদের থাকতে হচ্ছে। সোমবার হাইকোর্টের নির্দেশ,১) গত জানুয়ারি মাসে প্রায় ৩৬ জন মরণাপন্ন/সঙ্কটজনক বন্দিদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে।পুনরায় এই ধরনের মরণাপন্ন বন্দি আরও কত আছে তা পর্যালোচনা করে কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) কাছে রিপোর্ট পেশের নির্দেশ।

আরও পড়ুন : এ যেন পিতৃবিয়োগ! "উনি বলতেন আমার ৩ মেয়ে..." কান্নায় ভেঙে পড়লেন দেবশ্রী রায়

২) বহু বছর ধরে সাজাপ্রাপ্ত বন্দিদের মুক্তির জন্য একটি নির্দিষ্ট কমিটি রয়েছে। ওই কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সম্প্রতি প্রায় ১০০ জন বন্দিকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। জেলা আদালতের প্রক্রিয়ার জন্য সেই বন্দিদের এখনও পর্যন্ত ছাড়া সম্ভব হয়নি। হাইকোর্ট দ্রুত বিষয়টি নিষ্পত্তির নির্দেশ দিয়েছে। পাশাপাশি হাইকোর্টের (Calcutta High Court On Prisoners) নির্দেশ  পুনরায় রাজ্যকে পর্যালোচনা করে দেখতে হবে আরও কত জনকে মুক্তি দেওয়া যায়। তার তালিকা ওই বন্দি মুক্তি কমিটির কাছে পাঠাতে হবে।সেই রিপোর্টও ৮ আগস্ট হাইকোর্টে পেশের নির্দেশ।

৩) সংশোধনাগারে  (Calcutta High Court On Prisoners) বন্দিদের উপযুক্ত চিকিৎসা হচ্ছে কিনা সে বিষয়ে নজর রাখতে হবে। চিকিৎসা সংক্রান্ত রিপোর্ট পেশ করতে হবে। ৪) ভিন দেশ থেকে অনুপ্রবেশকারী হয়ে গ্রেফতার এবং যাদের সাজা ইতিমধ্যে শেষ হয়ে গিয়েছে এবং সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী যাঁরা মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে তাদের বিষয়টিও অতি দ্রুত যাতে নিষ্পত্তি হয় সে বিষয়ে একটি রিপোর্ট তৈরি করে আদালতে পেশের নির্দেশ।

আরও পড়ুন : চারটি বড় কারণেই স্বামীর প্রতি স্ত্রীর সন্দেহ পাহাড় প্রমাণ হয়, দিনের পর দিন বিরাট আকার নেয়

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে দেশের সমস্ত সংশোধনাগারের বন্দিদের মানসিক স্থিতি জরিপ করতে কর্মসূচি নেওয়া হয়। তারই অংশ হিসেবে কলকাতা হাইকোর্টের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি টিভি রাধাকৃষ্ণানের নির্দেশে একটি বিশেষ বেঞ্চ তৈরি হয়। বিচারপতি শম্পা সরকারের বেঞ্চে রাজ্যের সমস্ত সংশোধনাগারের (Correctional Centre) মানসিক স্থিতি নিয়ে জনস্বার্থ মামলার দেখভালের দায়িত্বে কলকাতা হাইকোর্ট (Calcutta High Court) লিগাল সার্ভিস অথরিটি।

রাজ্যের সমস্ত জেল বন্দীদের মনের কোণে  মেঘ জমেছে?  মানসিক সুস্থতা কতটা বন্দীদের? মনের বিকার আটকাতে গরাদের ভিতর পর্যাপ্ত কাউন্সেলিং হয়?  জেলে চিকিৎসক বা মনোবিদ রয়েছে? থাকল সংখ্যায় তাঁরা পর্যাপ্ত। পরপর সারপ্রাইজ ভিজিট হয় জেলার  সংশোধনাগার গুলিতে। কলকাতা হাইকোর্ট লিগাল সার্ভিস অথরিটি চেয়ারম্যান বিচারপতি সৌমেন সেন। মুর্শিদাবাদের বহরমপুরে বর্তমানে ৯-১০ জন বাংলাদেশী বন্দি রয়েছে। তাদের পরিস্থিতির খোঁজ নেয় অথরিটি। সারপ্রাইজ ভিজিটে কিছু গোলমাল নজরে আসে বলে সূত্রের খবর। অগাস্ট মাসে হাইকোর্টে (Calcutta High Court) স্বতঃপ্রণোদিত জনস্বার্থ মামলার পরবর্তী শুনানি।

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Calcutta High Court, West Bengal news

পরবর্তী খবর