সরকারের সঙ্গে যুদ্ধ করতে গিয়ে ট্যুইটে বানানই ভুল করে বসলেন রাজ্যপাল

সরকারের সঙ্গে যুদ্ধ করতে গিয়ে ট্যুইটে বানানই ভুল করে বসলেন রাজ্যপাল

অবশ্য সে বানান ভুলের ট্যুইট বেশি ক্ষণ স্থায়ী হয়নি৷ খানিক বাদেই ভুল বানানের ট্যুইট ডিলিট করেন জগদীপ ধনখড়৷ ঠিক বানান লিখে সেটি ফের ট্যুইট করেন৷

  • Share this:

#কলকাতা: বিলে রাজ্যপালের সই না হওয়ায় বিধানসভা স্থগিত হওয়ার ঘটনায় রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করে একের পর এক ট্যুইট করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়৷ লিখলেন, 'বিল নিয়ে রাজ্যপালের গড়মসি করছে, সরকারের এই অভিযোগ ফাঁপা৷ সরকার ধীর গতিতে চলছে আর রাজ্যপাল রাবার স্ট্যাম্প নয়৷ জুতোটা আসলে অন্য পায়ে গলিয়ে ফেলেছে৷' কিন্তু সরকারের বিরুদ্ধে রণংদেহী মূর্তিতে যুদ্ধ করতে গিয়ে শেষমেশ ট্যুইটারে বানান ভুল করে বসলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়৷

রাজ্যপালের বানান ভুলের সেই ট্যুইট রাজ্যপালের বানান ভুলের সেই ট্যুইট

হঠাত্‍ রাতে একের পর এক ট্যুইট৷ স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে রাজ্যপালের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই মোটামুটি যে ভাবে সরকারের সঙ্গে সরাসরি সংঘাতে যাচ্ছেন আর কি! এই পর্যন্ত সব কিছু ঠিকঠাক৷ রাজ্যপাল সরকারের সমালোচনা করছেন ট্যুইটারে বোঝা গেল৷ দ্বিতীয় ট্যুইটটিতে রাজ্যপাল লিখছেন, 'এই দেরি হওয়ার দায় শুধুমাত্র সরকারের৷ সরকার নানা অজুহাত খুঁজে বেড়াচ্ছে, তথ্যগুলিতেই তা প্রকাশ পাচ্ছে৷'

বানান ঠিক করার পর সেই ট্যুইট বানান ঠিক করার পর সেই ট্যুইট

এই দ্বিতীয় ট্যুইটেই সব গোল পাকলো৷ 'Delay'বানান লিখে ফেললেন 'Dwlay'৷ অবশ্য সে বানান ভুলের ট্যুইট বেশি ক্ষণ স্থায়ী হয়নি৷ খানিক বাদেই ভুল বানানের ট্যুইট ডিলিট করেন জগদীপ ধনখড়৷ ঠিক বানান লিখে সেটি ফের ট্যুইট করেন৷

যাবতীয় ঘটনার সূত্রপাত মঙ্গলবার বিধানসভায়৷ বিলে রাজ্যপালের সই আটকে থাকায় বিধানসভা দু দিনের জন্য স্থগিত৷ মঙ্গলবার এমনই নজিরবিহীন ঘোষণা করেছেন বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এরপরই জবাব আসে রাজভবন থেকে৷ রাজভবন থেকে রাজ্যপাল জানান, এই অভিযোগে তথ্যগত ভুল রয়েছে৷ অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে সব বিষয় দেখা হয়৷ প্রতি দফতরের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত৷ সংশ্লিষ্ট দফতর থেকে সন্তোষজনক উত্তর মেলেনি৷ তাই জন্যই বিল আটকে৷

রাজভবনে আটকে রয়েছে গণপিটুনি বিল৷ ২৯ তারিখ ওই বিল রাজভবনে পাঠানো হয়৷ ৩০ তারিখ ছুটি থাকায় ১ তারিখ বিলটি হাতে পান রাজ্যপাল৷ হাউজে বিল নিয়ে কী আলোচনা, তা জানতে চান রাজ্যপাল৷ তাই আটকে গণপিটুনি প্রতিরোধ বিল৷ রাজভবনে আটকে রয়েছে আরও ৩টি বিল৷ আটকে রয়েছে তফশিলি জাতি-উপজাতি নির্যাতন প্রতিরোধ বিল, পুর আইন সংশোধনী বিল, পশ্চিমবঙ্গ লিফট এসকালেটর ও ট্র্যাভেলেটর বিল৷

তারপর রাতে একের পর এক ট্যুইটে রাজ্য সরকারের তীব্র সমালোচনা শুরু করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়৷

First published: 12:06:16 AM Dec 04, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर