• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • দরজায় ভোট, সরকারি আধিকারিকদের উদ্দেশে কড়া বার্তা ধনখড়ের! কিন্তু কেন?

দরজায় ভোট, সরকারি আধিকারিকদের উদ্দেশে কড়া বার্তা ধনখড়ের! কিন্তু কেন?

ধনখড়ের হুঁশিয়ারি

ধনখড়ের হুঁশিয়ারি

প্রশাসনকে পঙ্গু করে দেওয়া হয়েছে বলে আগেও বারবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে বিঁধেছেন ধনখড়।

  • Share this:

    #কলকাতা: তাঁর আর রাজ্য সরকারের সংঘাত এখন সর্বজনবিদীত। এ রাজ্যে রাজ্যপাল হয়ে আসা ইস্তক শাসক দলের সঙ্গে তাঁর দূরত্ব দিনদিন বেড়েছে। একইসঙ্গে তাঁকে 'বিজেপির এজেন্ট' বলে বারবার আক্রমণও শানিয়েছে তৃণমূল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় যেন আছেন নিজের অবস্থানেই। প্রশাসনকে পঙ্গু করে দেওয়া হয়েছে বলে আগেও বারবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে বিঁধেছেন ধনখড়। কিন্তু বর্তমানে পুলিশ-প্রশাসন নির্বাচন কমিশনের অধীনে হলেও পুলিশ ও প্রশাসনিক অফিসার-কর্মীদের উদ্দেশে দায়িত্বপালনের বার্তা দিলেন রাজ্যপাল।

    তিনি বলেন, 'আমি সমস্ত সরকারি আধিকারিকদের অনুরোধ করছি, আপনারা রাজনীতিকদের মতো কাজ করবেন না। আপনারা সরকারের কাজ করুন। সরকারি কাজ করুন। আপনারা সরকারি কর্মচারী। সেটা আপনাদের দায়িত্ব। কিন্তু সরকারি ক্ষমতা দিয়ে আপনারা যদি কোনও রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করেন, তাহলে আইনের হাত থেকে রক্ষা পাবেন না।' একইসঙ্গে তিনি ট্যুইটে লেখেন, 'সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য রাজ্যের পুলিশ-প্রশাসনকে নিজেদের দায়িত্ব পালন করতে হবে।'

    তবে, শুধু পুলিশ-প্রশাসন নয়, সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশেও বার্তা দিয়েছেন বাংলার রাজ্যপাল। ট্যুইটে তিনি লিখেছেন, 'মিডিয়ার ভূমিকাও আমজনতার নজরে রয়েছে। স্বচ্ছ প্রশাসন থাকলেই স্বচ্ছ নির্বাচন সম্ভব। কিন্তু গণতন্ত্র তখনই আঘাতপ্রাপ্ত হয়, যখন সংবাদমাধ্যম রাজনৈতিক মতাদর্শের নীচে চাপা পড়ে যায়। অথচ গণতন্ত্র রক্ষার জন্য সংবাদমাধ্যমের সতেজ থাকা ভীষণ জরুরি।'

    উল্লেখ্য, রাজ্যপালের সঙ্গে শাসক তৃণমূলের সংঘাত এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে, নন্দীগ্রামে আহত হওয়ার পর মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায় কলকাতায় আসা মাত্রই এসএসকেএম-এ পৌঁছে গিয়েছিলেন ধনখড়। কিন্তু সেখানেও তাঁকে প্রবল বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছিল। শুনতে হয়েছিল গো ব্যাক স্লোগানও। রাজ্যপালের গাড়ি লক্ষ্য করে জুতোও ছোঁড়া হয় বলে অভিযোগ ওঠে। রাজ্যপাল মুখ্যমন্ত্রীকে দেখে বেরনোর পরেও তাঁর গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ চলে। তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের অভিযোগ, বিজেপির ষড়যন্ত্রেই মুখ্যমন্ত্রীর উপরে হামলা হয়েছে। এর আগেও বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়েছে রাজ্যপালকে। ভোটের মুখে সেই প্রবণতা বাড়ে কিনা, সেটাই এখন দেখার।
    Published by:Suman Biswas
    First published: