• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • WEST BENGAL GOVERNMENT FORMED 5 MEMBERS COMMITTEE ON ZIKA VIRUS SB

Zika Virus Threat in Bengal: বাংলাতেও কি জিকা ভাইরাসের আশঙ্কা? গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নবান্নের!

ভয়ের নাম জিকা

Zika Virus in Bengal: শুধুমাত্র জিকা ভাইরাসের জন্য পাঁচ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করেছে নবান্ন। সেই কমিটি এই ভাইরাস সংক্রান্ত নানা বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ দেবে।

  • Share this:

    #কলকাতা: এক করোনায় রক্ষে নেই, দোসর জিকা ভাইরাস। এবার জিকা (Zika) ভাইরাসের সন্ধান পাওয়া গেল কেরলে। এই প্রথম কোনও ব্যক্তির দেহে জিকা ভাইরাস মিলল সেখানে। কেরলের স্বাস্থ্য মন্ত্রী বীণা জর্জ (Veena George) এই খবর জানিয়েছেন। আর কেরলের ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারও। শুধুমাত্র জিকা ভাইরাসের জন্য পাঁচ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করেছে নবান্ন। সেই কমিটি এই ভাইরাস সংক্রান্ত নানা বিষয়ে সরকারকে পরামর্শ দেবে।

    ইতিমধ্যেই নবান্নের তরফে প্রতিটি জেলা প্রশাসনের কাছে বার্তা পাঠানো হয়েছে। কোনও ব্যক্তির শরীরে যদি জিকা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দেয়, সঙ্গে সঙ্গে তা স্বাস্থ্য দফতরে জানানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। জিকা ভাইরাসে যেহেতু গর্ভবতী মহিলাদের আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি, তাই অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের দিকে বিশেষ নজরের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    প্রসঙ্গত, জিকা হল একটি মশা বাহিত রোগ। মশার কামড় থেকে এই রোগ ছড়িয়ে পড়ে। এর বাহক এডিস মশা। দিনের বেলায় সাধারণত এই মশা কামড় দেয়। চিকুনগুনিয়া (Chikungunya) রোগের মতো একই উপসর্গ দেখা যায় জিকা ভাইরাসের ক্ষেত্রে। সাধারণত জিকা ভাইরাসের ক্ষেত্রে ভয়াবহ শারীরিক কোনও ক্ষতি হয় না। তবে যদি কোনও গর্ভবতী মহিলার ক্ষেত্রে জিকা ভাইরাসের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায় তাহলে ইনফেকশন হতে পারে। যৌন ক্রিয়াকলাপের মাধ্যমে ও রক্তের মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে।

    কোভিড ১৯ ভাইরাস এখনও যায়নি, এবার জিকা ভাইরাসের উপস্থিতি সমস্যার কারণ তো বটেই। করোনা ভাইরাসের ক্ষেত্রে প্রথম সন্ধান মিলেছিল কেরলে, এবার সেই একই রাজ্যে সন্ধান পাওয়া গেল জিকা ভাইরাসেরও। জানা গিয়েছে ২৪ বছর বয়সী এক গর্ভবতীর দেহে ওই ভাইরাসের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। তাঁর বাড়ি পারাস্সালা এলাকায়। তিরুবনন্তপুরমের একটি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছে।

    এখনও পর্যন্ত ওই এলাকার ১৯ জনের নমুনা পাঠানো হয়েছে ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ভাইরোলজিতে। তবে এখনও পর্যন্ত কতজনের রিপোর্ট পজিটিভ আছে তা নিশ্চিত করে NIV-র তরফে কিছু জানানো হয়নি। এদিকে জিকা ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হতেই তৎপর সেখানকার কেরলের স্বাস্থ্য বিভাগ। পরিস্থিতি যাতে হাতের বাইরে না বেরিয়ে যায় তার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে তারা। সমস্ত পদ্ধতি মেনে জিকা ভাইরাস দূর করার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসাররা ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন। প্রতিটি জেলাকে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে। যে কোনও রকম পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলে দেওয়া হয়েছে।

    Published by:Suman Biswas
    First published: