#Election LIVE: মাথাভাঙা যাচ্ছেন মমতা, কমিশনে তৃণমূল! পাল্টা আক্রমণ মোদির

হুগলির ১০, হাওড়ার ৯ , দক্ষিণ ২৪ পরগনার ১১, আলিপুরদুয়ারের ৫ ও কোচবিহারের ৯ আসনে ভোট। চতুর্থ দফা ভোটে মোতায়েন থাকছে ৭৯ হাজার ৩০০ আধাসেনা ।

  • News18 Bangla
  • | April 10, 2021, 16:15 IST
    facebookTwitterLinkedin
    LAST UPDATED A MONTH AGO

    AUTO-REFRESH

    HIGHLIGHTS

    17:56 (IST)

    কোচবিহারে ৭৬.৭৩, আলিপুরদুয়ারে ৭৩.৬৫, দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায় ৭৫.৪৯, হাওড়ায় ৭৫.০৩ এবং হুগলিতে ৭৬.০২ শতাংশ ভোট পড়েছে৷

    17:55 (IST)

    চতুর্থ দফায় বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত রাজ্যে ভোটদানের হার ৭৬.১৬ শতাংশ৷ 

    16:17 (IST)

    'সমস্যা কেন্দ্রীয় বাহিনীর নয়, সমস্যা আপনার হিংসাত্মক রাজনীতির, প্ররোচনামূলক বক্তৃতার৷' কল্যাণীর সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র আক্রমণ নরেন্দ্র মোদির৷ 

    15:58 (IST)

    কোচবিহারে ভোট পড়েছে ৭০.৩৯ শতাংশ, আলিপুরদুয়ারে ৬৮.৩৯ শতাংশ, দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায় ৬৪.২৬ শতাংশ, হাওড়ায় ৬৪.৮৮ শতাংশ, হগলিতে ভোট পড়েছে ৬৭.৪৫ শতাংশ৷ 

    15:56 (IST)

    বেলা তিনটে পর্যন্ত পাঁচ জেলায় ভোট দানের গড় হার ৬৬.৭৬ শতাংশ, জানাল নির্বাচন কমিশন৷

    15:56 (IST)

    বেলা তিনটে পর্যন্ত পাঁচ জেলায় ভোট দানের গড় হার ৬৬.৭৬ শতাংশ, জানাল নির্বাচন কমিশন৷

    15:38 (IST)

    মাথাভাঙায় যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আজ বিকেলেই শিলিগুড়ি পৌঁছচ্ছেন তৃণমূলনেত্রী৷ 

    15:37 (IST)

    মাথাভাঙার ঘটনায় কলকাতায় নির্বাচন কমিশনে দফতরে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি দল৷ কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে সরব তৃণমূল সাংসদরা৷

    13:33 (IST)

    কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ করা হচ্ছে। কোচবিহারে ভয়ের পরিবেশ তৈরি করেছে তৃণমূল। মাথাভাঙা কাণ্ডে তৃণমূলকে নিশানা নিশীথ প্রামাণিকের।   

    13:33 (IST)

    অমিত শাহের নির্দেশে সন্ত্রাস চালিয়েছে বাহিনী। ভোট লুট করা হয়েছে। মাথাগুড়িতে গুলি চালানোর ঘটনায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আক্রমণ রবীন্দ্রনাথ ঘোষের।   

    কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চার জনের মৃত্যুর ঘটনার পর মাথাভাঙায় যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আগামিকালি শীতলকূচির ওই গ্রামে পৌঁছবেন তিনি৷ এই ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের গিয়ে অভিযোগ জানিয়েছে তৃণমূলের প্রতিনিধি দল৷

    যদিও সিআইএসএফ-এর তরফে নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, আত্মরক্ষার জন্যই গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে বাহিনী৷ রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রথমেই শরীর লক্ষ্য করে নয়, বরং জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে দু' দফায় শূন্যে ৮ রাউন্ড গুলি চালিয়েছিলেন সিআইএসএফ জওয়ানরা৷ কিন্তু তার পরেও 'দুষ্কৃতীরা' আক্রমণ করাতেই গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে বাহিনী৷

    এই ঘটনার জন্য পরস্পরকে দুষেছে বিজেপি এবং তৃণমূল কংগ্রেস৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ তৃণমূল নেতৃত্ব এই ঘটনার জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহকে দায়ী করেছেন৷ অন্যদিকে রাজ্যে প্রচারে এসে পাল্টা ঘটনার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকেই আঙুল তুলেছেন নরেন্দ্র মোদি৷