Moinuddin Shams Passes Away: করোনা-মুক্ত হয়েও প্রাণহানির আশঙ্কা থাকছেই, প্রমাণ দিয়ে গেলেন মইনুদ্দিন শামস!

প্রয়াত নলহাটির প্রাক্তন বিধায়ক

করোনায় প্রয়াত নলহাটির প্রাক্তন বিধায়ক মইনুদ্দিন শামস (Moinuddin Shams)। রবিবার সকালে মৃত্যু হয়েছে তাঁর।

  • Share this:

    কলকাতা: রাজ্যে করোনা চিত্রে (West Bengal Corona Update) সামান্য আশার আলো দেখা গেলেও মারণ ভাইরাস প্রাণ কাড়ল আরও এক প্রবীণ রাজনীতিবিদের। কোভিড আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হলেন নলহাটি বিধানসভার প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক মইনুদ্দিন শামস (Moinuddin Shams)। ২০১৬ সালে নলহাটি কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের টিকিটে লড়ে জিতলেও, এবার তাঁকে টিকিট দেননি তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যেপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তাই কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়ে এবার ওই কেন্দ্রে নির্দল হিসেবে লড়েছিলেন শামস। কিন্তু জিততে পারেননি তিনি। আর ভোট মিটতে না মিটতেই মারণ ভাইরাসের থাবায় প্রাণ খোয়ালেন তিনি।

    মইনুদ্দিন শামসের পরিবার সূত্রে খবর, দিন কয়েক আগেই শরীরে করোনার একাধিক উপসর্গ দেখা দেয় তাঁর। চিকিৎসকরা তাঁর করোনা টেস্টের পরামর্শ দেন। গত ৫ মে মইনুদ্দিন শামসের করোনা ধরা পড়ে। কিন্তু এরপর থেকেই তাঁর শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তাঁকে ভর্তি করা হয় কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সেখানকার চিকিৎসায় ভালো সাড়াও দেন তিনি। মাত্র চার দিন আগে কোভিডমুক্ত হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন। কিন্তু ফের অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। আর রবিবার সকালে মৃত্যু হয় প্রবীণ এই রাজনীতিকের। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৪ বছর।

    সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হয়েই মৃত্যু হয় প্রবীণ রাজনীতিবিদ, নদিয়ার শান্তিপুরের প্রাক্তন বিধায়ক অজয় দে'র। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭০। তিনিও কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। কয়েকদিন আগেই অজয় দে'র শরীরে করোনার নানা উপসর্গ দেখা দিয়েছিল। এরপরই বর্ষীয়ান এই রাজনীতিবিদের করোনা পরীক্ষা করালে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তারপর থেকে হোম আইসোলেশনেই ছিলেন তিনি। কিন্তু হঠাৎই শারীরিক অবস্থার অবনতি হয় তাঁর। এরপরই কলকাতার বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয় তাঁকে। কিন্তু পরিস্থিতি ক্রমশই উদ্বেগজনক হয়ে ওঠে। শেষ পর্যন্ত তাঁকে ভেন্টিলেশনে দিতে হয়। শুক্রবার সকালে সেখানেই প্রয়াত হন তিনি।

    প্রসঙ্গত, রাজ্যে করোনার সংক্রমণ কমলেও ভয়াবহ আকার নিচ্ছে করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেন। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের দেওয়া শনিবারের রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলায় করোনায় প্রাণ গিয়েছে ১৫৪ জনের। কিছুতেই মৃত্যুর হার কমানো যাচ্ছে না। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ হাজার ৮৬৩ জন। একইসঙ্গে করোনামুক্ত হয়ে উঠেছেন ১৯ হাজার ২০২ জন।

    Published by:Suman Biswas
    First published: