Home /News /kolkata /
BJP organizes Kali Puja: আমন্ত্রিত খোদ মোদি, বিতর্কের মধ্যেই রাজ্য বিজেপিতে কালী পুজোর আয়োজন 

BJP organizes Kali Puja: আমন্ত্রিত খোদ মোদি, বিতর্কের মধ্যেই রাজ্য বিজেপিতে কালী পুজোর আয়োজন 

রাজ্য বিজেপি দফতরে কালীপুজোর আয়োজন৷

রাজ্য বিজেপি দফতরে কালীপুজোর আয়োজন৷

গত সোমবার , দিল্লির  সংসদে রাজ্যের সাংসদ ও মহিলা মোর্চার প্রাক্তন সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে দেখতে পেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যে কালীপূজো নিয়ে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে চান।

  • Share this:

#কলকাতা: রাজ্য বিজেপিতে  'অকাল' কালীপূজো।  সৌজন্যে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। আগামী ২৮ জুলাই রাজ্য বিজেপির দপ্তরে এই কালী পূজোর আয়োজন করেছে রাজ্য বিজেপির মহিলা মোর্চা। পূজোয় প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানিয়ে চিঠি দেবে রাজ্য বিজেপি-র মহিলা মোর্চা। আশীর্বাদ চেয়ে আমন্ত্রণ জানানো হবে, সর্বভারতীয় সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎ প্রকাশ নাড্ডা ও মহিলা মোর্চার সর্বভারতীয় সভানেত্রী এবং  রাজ্যপালকে।

 এ দিকে, কালী বিতর্ক উস্কে দিয়ে, রাজ্য বিজেপির এই 'অকাল' কালী বন্দনাকে  কটাক্ষ করে নিজের ফেসবুকে মহুয়া লেখেন, 'বানরসেনারা যদি আমার কৃতিত্বে রাজ্যজুড়ে মা কালীর আরাধনায় বসে, তাহলে সেটাই হবে আমার মায়ের প্রতি  ভক্তির সবচেয়ে বড়  প্রমাণ।'

সম্প্রতি, মা কালীকে নিয়ে একটি পোস্টার বিতর্কে মহুয়ার মন্তব্যকে ঘিরে রাজ্য রাজনীতি রীতিমতো সরগরম। মহুয়ার মন্তব্যে হিন্দুদের আরাধ্য দেবী মা কালীকে অসম্মান করা হয়েছে বলে দাবি করে মহুয়াকে গ্রেপ্তারের দাবিতে সরব হয় বিজেপি৷ কেন্দ্রের নির্দেশে রাজ্য বিজেপির চুনোপুটি নেতা থেকে মায় ৭০ জন বিধায়কই। রাজ্যের বিভিন্ন থানায় মহুয়াকে গ্রেপ্তারের দাবিতে শতাধিক এফআইআর করেন তারা।

আরও পড়ুন: লক্ষ্য পঞ্চায়েত ভোট, নিচু তলার কর্মীদের সঙ্গে একাত্ম হতে 'সহভোজে' শুভেন্দু

রাজ্য মহিলা মোর্চার রাজ্য সভাপতি তনুজা চক্রবর্তীর অভিযোগ, '' প্রশাসনের কাছে এত অভিযোগ করেও কোন লাভ হয়নি। মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থাই নেয়নি তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেস বা রাজ্য প্রশাসন। উল্টে নুপূর শর্মার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে। এর বিরুদ্ধে আমরা নীরব প্রতিবাদ জানাতে  কালী পুজো করব। রাজ্যের কালী পুজো নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ব্যক্তিগত ভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সে কারণে আমরা এই পূজোয় তাঁকেও আমন্ত্রণ জানিয়ে আশীর্বাদ চাইব।'

 মোর্চা সূত্রে জানা গিয়েছে, পুজোয় মহিলা পুরোহিত, মহিলা ঢাকি,  মহিলা মোর্চার কর্মীরাই সব আয়োজন করবেন। এক কথায় পুরুষ বর্জিত উদ্যোগ। তনুজার মতে, আসলে, 'পুজোটা মা কালীর পূজো। তিনি মহিলা। আর, উদ্যোক্তা রাজ্য বিজেপির মহিলা মোর্চা। তাই, এই পুজোটা আমরা মহিলারাই করব।'

রাজ্য সভাপতির থেকে সবুজ সঙ্কেত পাওয়ার পরেই মোর্চার মহিলা কর্মীরা হৈ হৈ করে নেমে পড়েছেন পূজোর আয়োজনে।ইতিমধ্যেই  কুমারটুলিতে প্রতিমার অর্ডার দেওয়া হয়েছে।

তবে, এ পুজো তো শুধু ধর্মীয় উৎসব নয়। এর আয়োজনের কারণ পুরোদস্তুর রাজনৈতিক।  নিজেই স্বীকার করেছেন তনুজা। সে কারণে, বিজেপি-র এই ''অকাল " কালী পুজোকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক কর্মসূচিও নিয়েছে তারা। মায়ের পুজোর ভোগের চাল,ডাল সহ উপাচার সংগ্রহ করতে মানুষের দরজায় দরজায় যাবে মোর্চার মহিলারা৷

আরও পড়ুন: রাত পোহালেই একুশের সমাবেশ, কলকাতা জুড়ে তুঙ্গে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি

তবে, কর্মীদের সতর্ক করে তনুজা বলেছেন, 'দেখবেন, বামপন্থীরা বন্যাত্রাণে দূর্গত মানুষের জন্য  দুয়ারে দুয়ারে যায় লাল শালু পেতে ত্রান সংগ্রহ করতে। আমরা যেন কোনওভাবেই ওই লাল শালু ব্যবহার না করি। আমরা গেরুয়া কাপড় পেতে মানুষের কাছে মুষ্টি ভিক্ষা নেব।'

আগামী ২৪ ও ২৫ জুলাই  রাজ্য জুড়ে এই  'মুষ্টি ভিক্ষা কর্মসূচি থেকে সংগ্রহ করা চাল,ডাল দিয়ে মায়ের পূজোর ভোগ ও পরমান্ন রান্না করা হবে। তারপর, তা বিলি বণ্টন হবে মানুষের কাছে। কিন্তু, কোনওভাবেই একটি পয়সাও চাঁদা নেওয়া যাবে না।'

গত সোমবার , দিল্লির  সংসদে রাজ্যের সাংসদ ও মহিলা মোর্চার প্রাক্তন সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে দেখতে পেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যে কালীপূজো নিয়ে সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে চান। উত্তরে লকেট তাঁকে এ বিষয়ে আশ্বস্ত করেন।

রাজনৈতিক মহলের মতে, রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কাটতেই আবার কালী বিতর্ক উস্কে দিলেন প্রধানমন্ত্রী নিজেই।  তারই সূত্র ধরে, আবার ''অকাল" কালী পূজো করে তাঁকে এ রাজ্যে রাজনৈতিক ভাবে প্রাসঙ্গিক করতে চাইছে রাজ্য বিজেপি।

 তবে, বিজেপি মহিলা মোর্চার দাবি, তাদের এই প্রতীকী প্রতিবাদ- 'পুজোর পরিকল্পনা আগেই হয়েছিল। এর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর উদ্বেগ প্রকাশের কোনও সম্পর্ক নেই।  তবে, প্রধানমন্ত্রী সারা দেশের প্রধানমন্ত্রী। তিনি আমাদের রাজ্যের পুজোর বিষয়ে এতটা উদ্বিগ্ন জেনেই আমরা তাঁকে আমন্ত্রন জানাতে চাই।'

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

পরবর্তী খবর