Home /News /kolkata /
Reasons in cyclones in May: আয়লা, আমফান থেকে অশনি- কেন মে মাসে বার বার আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড়?

Reasons in cyclones in May: আয়লা, আমফান থেকে অশনি- কেন মে মাসে বার বার আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড়?

কেন বার বার মে মাসে আছড়ে পড়ছে ঘূর্ণিঝড়? প্রতীকী ছবি

কেন বার বার মে মাসে আছড়ে পড়ছে ঘূর্ণিঝড়? প্রতীকী ছবি

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানাচ্ছেন, প্রাক বর্ষার মৌসুমে এপ্রিল এবং মে মাসই ঘূর্ণিঝড়ের উপযুক্ত মরশুম।

  • Share this:

#কলকাতা: মে মাস মানেই যেন ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ার ভয়৷ অন্তত গত কয়েক বছরের প্রবণতা তাই বলছে৷ আমফান, যশ বা অশনি- পরের পর ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি হচ্ছে মে মাসেই৷ মে মাসে কেন ঘূর্ণিঝড়ের প্রবণতা এত বেশি?

এর একাধিক কারণ দিচ্ছেন আবহবিদরা৷ আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানাচ্ছেন, প্রাক বর্ষার মৌসুমে এপ্রিল এবং মে মাসই ঘূর্ণিঝড়ের উপযুক্ত মরশুম। এর মধ্যে মে মাসে ঘূর্ণিঝড়  সবথেকে বেশি হয়।মে মাসে বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় হওয়ার উপযুক্ত পরিবেশ থাকে। বেশ কয়েকটি কারণে উপরে এই ঘূর্ণিঝড় নির্ভর করে। সেগুলি হল-

  • সমুদ্র পৃষ্ঠের তাপমাত্রা অন্যতম কারণ। সাধারণত 26° ন্যূনতম তাপমাত্রা থাকলে তবেই ঘূর্ণিঝড়ের উপযুক্ত হয় সাগর। বর্তমানে যেমন 30° তাপমাত্রা রয়েছে বঙ্গোপসাগরে।
  •  হাওয়া উপরের দিকে উঠতে পারে এরকম অনুকূল পরিস্থিতি থাকলে তবেই ঘূর্ণিঝড় হওয়ার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি হয়। যখন গরম কালে হিট ওয়েভ চলতে থাকে তখন হাওয়া উপর থেকে নীচের দিকে আসে। তাই ঘূর্ণিঝড় হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।
  • অনুঘটক- পূবালী হাওয়া অথবা নিম্নচাপ। কোনও ঘূর্ণাবর্ত থাকলেও তা ঘূর্ণিঝড় তৈরিতে সাহায্য করে। হঠাৎ সমুদ্রপৃষ্ঠে এরকম কোন সিস্টেম তৈরি হওয়া যা ঘূর্ণিঝড়ের অনুকূল পরিবেশ তৈরি করে।
  • ঘূর্ণন-  ঘূর্ণিঝড়ের ঘূর্ণিপাক সংগঠিত হতে সাহায্য করে এরকম শক্তি সমুদ্রপৃষ্ঠে তৈরি হওয়া।

এছাড়াও লা-লিনা কিংবা গ্লোবাল ওয়ার্মিং- এর জন্য সমুদ্রপৃষ্ঠ ঘূর্ণিঝড়ের উপযুক্ত হতে পারে।

আরও পড়ুন: জলভাগের ওপর দিয়ে দ্রুত গতি বাড়াচ্ছে অশনি, পুরীর সবচেয়ে কাছ দিয়ে বইবে হু হু করে হাওয়া, সঙ্গী প্রবল বৃষ্টি

বঙ্গোপসাগরের উপরে এসে অনেক দুর্বল ঘূর্ণাবর্ত বা নিম্নচাপও পুনরায় সজীব হয়ে ওঠে। বিভিন্ন মহাসাগর থেকে বঙ্গোপসাগরের উপরে পৌঁছে কোনও ঘূর্ণাবর্ত বা নিম্নচাপ  ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে, এরকম উদাহরণ রয়েছে।

আরও পড়ুন: সাগরে ফুঁসছে ঘূর্ণিঝড় 'অশনি', ২ জেলায় ৩০ মিনিটের মধ্যেই নামবে কাঁপিয়ে বৃষ্টি

হাওয়া অফিসের তথ্য বলছে, ২০০৯ সালের মে মাসে আয়লা আছড়ে পড়েছিল। ২০১৯ সালের মে মাসে এসেছিল ঘূর্ণিঝড় ফণি।(যদিও এর প্রভাব বাংলায় কম পড়েছিল)৷ ২০২০ সালের মে মাসে হয় আমফান। ২০২১-এর মে মাসে আছড়ে পড়েছিল ঘূর্ণিঝড় ইয়াস।

অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, প্রাক বর্ষার মরশুমে এপ্রিল ও মে মাসে যেমন ঘূর্ণিঝড় হওয়ার প্রবণতা বেশি, তেমনই অক্টোবর-নভেম্বর মাসে ঘূর্ণিঝড় হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে। তবে মে মাসে ঘূর্ণিঝড় হওয়ার উপযুক্ত পরিবেশ অনেকটাই বেশি হয়।

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

পরবর্তী খবর