• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • Abhisekh Banerjee| মমতা নয়, আজ প্রথম পত্রের অঙ্কপরীক্ষা লোকসভার ফার্স্ট বয় অভিষেকের

Abhisekh Banerjee| মমতা নয়, আজ প্রথম পত্রের অঙ্কপরীক্ষা লোকসভার ফার্স্ট বয় অভিষেকের

চলছে তৃতী দফার ভোটগ্রহণ, মমতা নয়, আজ পরীক্ষাটা অভিষেকের। ফাইল চিত্র

চলছে তৃতী দফার ভোটগ্রহণ, মমতা নয়, আজ পরীক্ষাটা অভিষেকের। ফাইল চিত্র

প্রশ্ন উঠছে, অভিষেক-হাওয়া কতটা কাজ করবে এবার? পর্যবেক্ষকদের মত, আজই সেই অ্যসিড টেস্টের প্রথম দফায় নেমেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্য অভিষেক।

  • Share this:

#কলকাতা: আজ, ৬ এপ্রিল রাজ্যের ৩১টি আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। সংবাদমাধ্যমে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে তুলে ধরছে প্রতিটি আসনেরই ছবি-খবর। কিন্তু রাজনীতির পাশা খেলেন যারা তারা আসলে চেয়ে আছেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায়। কারণ অতি দুর্যোগেও এই জেলাই তৃণমূলের গড়। আর সেই গড়ের অধিপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, যিনি নিজের কেন্দ্রে (ডায়মন্ড হারবার) ২০১৯ লোকসভা ভোটে বিজেপিকে হারিয়েছিলেন ৩ লক্ষের বেশি ভোটে। স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে, অভিষেক-হাওয়া কতটা কাজ করবে এবার? পর্যবেক্ষকদের মত, আজই সেই অ্যসিড টেস্টের প্রথম দফায় নেমেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্নেহধন্য অভিষেক।

ডায়মণ্ডহারবার লোকসভার অন্তর্গত মোট সাতটি আসন। এর মধ্যে আজ ভোট ফলতা, বিষ্ণুপুর, সাতগাছিয়া, বিষ্ণুপুরে। সব কটিতে জিতেছিল তৃণমূল। লোকসভা ভোটে যখন পদ্মাসনে থিতু হচ্ছে এক একটি অঞ্চল তখনও এই দক্ষিণ চব্বিশের ৩১টি আসনেই এগিয়ে ছিল তৃণমূল। ৩ লক্ষেরও বেশি ব্যবধানে জেতেন অভিষেক নিজের কেন্দ্রে। গোটাটাই যে তাঁর সাংগঠনিক শক্তির জোর, একথা স্বীকার করতে দ্বিধা করেনি কেউ। তবে সময় যায় বটপতায়। রঙ্গমঞ্চে নতুন নতুন খেলা শুরু হয়। দক্ষিণ চব্বিশও তার ব্যতিক্রম নয়। আর সেই কারণেই আজ আবারও পরীক্ষার্থী অভিষেক।

অভিষেকের প্রধান লড়াই দুই 'আ'-এর সঙ্গে। এই দুই আ হল আমফান আর আব্বাস। গত বছর এই অঞলকেই ক্ষতবিক্ষত করেছিল আমফান ঝড়। ভেঙে যায় লক্ষ লক্ষ বাড়ি। বহু মানুষকে আগেভাগে রিলিফ ক্যাম্পে আনা থেকে ত্রাণ দেওয়া, শাসকদল করেছে। তবে বেনজির অভিযোগের আঙুল উঠেছে শাসকদলের বিরুদ্ধে, বহু নীচুতলার নেতাকর্মী ত্রাণসামগ্রী চুরির অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে সেই অভিযোগকে স্বীকারও করে নিয়েছেন,যারা ক্ষতিপূরণ পাননি, তাঁদের হাতে টাকা পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন নিজেই। অভিষেক যদি দক্ষিণ দূর্গের দখলদারি রাখতে পারেন তবে প্রমাণ হবে তাঁর করিশ্মা ছাপিয়ে গিয়েছে অভিযোগকে, আরও একবার।

একসময়ে দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার একটা বড় এলাকা জুড়ে প্রভাব ছিল আরএসপি-র। ম্যানেজমেন্ট পড়ে আসা চৌখস বক্তা অভিষেক মূলত যুবমনে ঢেউ তুলে ক্ষমতার হস্তান্তর সম্প‌ন্ন করেছিলেন গত এক দশকে। সঙ্গে ছিল সংখ্যালঘু ভোটের ভরসা। কিন্তু শেষ কয়েক মাসে ধর্মীয় জলসা থেকে রাজনীতির মঞ্চে আব্বাস সিদ্দিকির উঠে আসা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য চ্যালেঞ্জ। আব্বাসও যুবনেতা, মুসলমান সমাজে তিনি প্রভাবহীন নন। কাজেই আব্বাসের প্রার্থীর জন্য ভোট পড়া মানেই বুঝতে হবে অভিষেকের পায়ের তলার জমি সরছে।

এখানেই শেষ নয়, দক্ষিণ চব্বিশে একাধিক বার সভা করতে এসেছেন নরেন্দ্র মোদি, জে পি নাড্ডা, অমিত শাহ-রা। সাধারণ মৎস্যজীবী থেকে ধর্মপ্রবণ মানুষ, গোটা জেলাকেই নানা প্রতিশ্রুতিতে ভরিয়ে দিয়েছেন তাঁরা। এই প্রতিশ্রুতিতে যদি ভক্তমন গলে যায়, তবে দুর্গে ফাটল ধরতেই পারে!

অভিষেকের অনুকুলে রয়েছে বেশ কয়েকটি ফ্যাক্টর। লোকসভা ভোটের আগেই নিস্ক্রিয় হয়ে গিয়েছিলেন দক্ষিণ-‌জয়ে দলের প্রধান সেনাপতি শোভন চট্টোপাধ্যায়। তার চলে যাওয়াও সেদিন ভোট কাটতে পারেনি। বিজেপির হয়ে প্রথম থেকে ঘুঁটি সাজালেও আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য সন্ন্যাসে শোভন চট্টোপাধ্যায়। কাজেই তাঁর হাতে পদ্মের শ্রীবৃ্‌দ্ধি সম্ভব নয়। অন্য দিকে এই অঞ্চলে পা রেখে ব্যর্থ মনোরথ হয়ে ফিরে গিয়েছেন যোগী আদিত্যনাথের মতো ডাকসাইটে বিজেপি নেতা। কাঙ্খিত ভীড় হয়নি।

রাজনীতির দাবাড়ুরা এই পরিস্থিতিতে বলবেন অভিষে‌কের কাজ ঘরের ঝগড়া নীরবে ঘরে মেটানো, পড়শিকে সুযোগ না করে দেওয়া। তা কি সম্ভব হবে নাকি বিজেপি প্রতিষ্ঠানবিরোধিতাকে কাজে লাগিয়ে সোনার ফসল ঘরে তুলবে তা সময় বলবে। তবে এখন, এই প্রতিবেদন লেখার সময় অঙ্ক পরীক্ষার প্রথম পত্র দিচ্ছেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ পরীক্ষাটা তাঁর। প্রশ্নও সুবিধের নয়। অবশ্য লোকসভার ট্র্যাকরেকর্ড অনুযায়ী অভিষেক ফার্স্টবয়।

Published by:Arka Deb
First published: