‘‘ মহানায়কের কেরিয়ার এতটাই পজিটিভ যে ‘নেগেটিভ’ দিকগুলো বায়োপিকে না দেখালেও চলে !’’– News18 Bengali

‘‘ মহানায়কের কেরিয়ার এতটাই পজিটিভ যে ‘নেগেটিভ’ দিকগুলো বায়োপিকে না দেখালেও চলে !’’

এই ছবি প্রচলিত বায়োপিকের আধারে ধরা নেই, আমরা ধরতে চেয়েছি তাঁকে, এক নিষ্ঠাবান ‘ নায়কের ’ কাঠামোগত বিশ্লেষনের নিরীখে।

Siddhartha Sarkar
Updated:May 12, 2017 12:35 AM IST
‘‘ মহানায়কের কেরিয়ার এতটাই পজিটিভ যে ‘নেগেটিভ’ দিকগুলো বায়োপিকে না দেখালেও চলে !’’
Siddhartha Sarkar
Updated:May 12, 2017 12:35 AM IST

#কলকাতা:  দক্ষিণ কলকাতার ভবানীপুরের ইন্দিরা সিনেমা হল ৷ সময় তখন দপুর আড়াইটা ৷ মাল্টিপ্লেক্সের যুগে সিঙ্গল স্ক্রিন থিয়েটারের কদর এখন অনেকাংশেই কমে গিয়েছে, তাই সপ্তাহের ব্যস্ত দিনে সিনেমাপ্রেমীদের ভিড় প্রায় নেই বললেই চলে ৷ এমন সময় হঠাৎই সিনেমা হলের মাথায় একটা সাদা-কালো ছবির পোস্টার দেখে থমকে গেলেন পথ-চলতি অনেক মানুষই ৷ অনেকে আবার নিজের কাজ ভুলে কৌতূহলবশত সোজা ঢুকেই পড়লেন পেক্ষাগৃহে ৷ টিকিট কাউন্টারে গিয়ে তাঁদের প্রশ্ন, ‘‘ আচ্ছা স্ত্রী ছবির শো-টাইম কখন ? উত্তম কুমারের স্ত্রী কি আবার রিলিজ করেছে ? ’’

উত্তরটা হল, এটা আসলে একটা সিনেমার সেট ৷ বেশ কয়েকমাস ধরেই মহানায়ক উত্তম কুমারের জীবনের নানা কাহিনী নিয়ে ছবি তৈরির কাজ করছেন পরিচালক প্রবীর রায় ৷ শ্যুটিংয়ের কাজও শেষ ৷ ছবির নাম ‘যেতে নাহি দিব’ ৷ শহরের অন্যান্য বেশ কিছু সিনেমা হলের মতো ভবানীপুরের এই ইন্দিরাতেও ১৯৭২ সালে মুক্তি পেয়েছিল উত্তম কুমার , সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, আরতি ভট্টাচার্য অভিনীত সুপারহিট ছবি ‘স্ত্রী’ ৷ পরিচালক প্রবীর রায় নিজের বায়োপিকে মহানায়কের কেরিয়ারের বিভিন্ন চড়াই-উতরাই , তাঁর স্টারডমকেই তুলে ধরতে চেয়েছেন ৷ কীভাবে নিজের বিভিন্ন ছবি প্রিমিয়ারের দিন কয়েকশো ভক্তদের সীমাহীন ভালবাসা আর আবেগের ‘শিকার’ হতেন মহানায়ক ৷ নিজের ছবিতে সেটাকেই তুলে ধরতে চেয়েছেন পরিচালক ৷ প্রবীরবাবুর  কথায়, ‘‘এই ছবি প্রচলিত বায়োপিকের আধারে ধরা নেই, আমরা ধরতে চেয়েছি তাঁকে, এক নিষ্ঠাবান নায়কের কাঠামোগত বিশ্লেষনের নিরীখে। এমনই এক নায়ক এর জীবন-দর্শন অনুপ্রাণিত করে আজও, যে অভিনেতা দর্শকদের মনের অনেকটা জুড়ে কর্তৃত্ব করতে পারেন , তিনিই তো সত্যিকারের একজন ‘সুপারস্টার’ বা মহাতারকা।’’

কিংবদন্তী মানুষ সমাজের সব ক্ষেত্রেই রয়েছেন ৷ কিন্তু যতদিন বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি থাকবে, ততদিন প্রকৃত অর্থে ‘কিংবদন্তী’ এবং ‘মহানায়ক’ একজনকেই বোঝাবে, তিনি উত্তম কুমার ৷ তাঁর ভুবনভোলানো হাসি, তাঁর অভিনয়ের দক্ষতা, তাঁর ব্যক্তিত্ব , চিরকালই মুগ্ধ করেছে বাংলার মানুষকে ৷ স্বয়ং সত্যজিৎ রায় বলে গিয়েছেন, উত্তম কুমারকে ঘিরে একটা ইন্ডাস্ট্রি তিন দশক ধরে চলেছে ৷ গোটা বিশ্বে কোথাও এমন নজির নেই ৷ সেই মহানায়ককে নিয়ে ছবি তৈরি করা সহজ কাজ নয় ৷ এখনও পর্যন্ত মহানায়ককে নিয়ে সেভাবে কোনও বায়োপিক তৈরিও হয়নি বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে ৷ কিন্তু সেই কাজেই এবার হাত দিয়েছেন পরিচালক প্রবীর রায় ৷

বাংলা ছবির ‘স্বর্নযুগ’ যে সময়টাকে ধরা হয়, সেসময়  উত্তম কুমার অভিনীত ছবি বছরে প্রায় ১৪-১৫টা মুক্তি পেত ৷ সব ছবিই তখন এক একটা সুপারহিট ৷ পরিচালক প্রবীর রায়ও তাঁর ছবিতে মহানায়ককে যতটা সম্ভব, জীবন্ত করে তুলতে চেয়েছেন ৷ তাঁর মতে, ‘‘ উত্তম কুমার, উত্তম কুমার হয়েছেন তাঁর অভিনয়ের জন্য ৷ ওঁর ব্যক্তিগত জীবন আমি আমার ছবিতে খুব একটা তুলে ধরতে চাইনি ৷ চাইনি কোনও বিতর্কিত কিছু দেখাতেও ৷ কারণ সব মানুষের ব্যক্তিগত জীবনেই অনেক পজিটিভ-নেগেটিভ বিষয় থাকে ৷ ওঁর জীবনে পজিটিভ দিকগুলো এতই বেশি ৷ যে ছোটখাটো নেগেটিভগুলি সিনেমায় আর না দেখালেও চলে ৷ ’’

ছবিতে উত্তম কুমারের ভূমিকায় অভিনয় করতে দেখা যাবে সুজন মুখোপাধ্যায়কে ৷এছাড়া অন্যান্য ভূমিকায় রয়েছেন মল্লিকা সিনহা রায়, উজ্জ্বয়িনী বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রিয়া মালাকার, স্বস্তিকা দত্ত, সুদীপ সরকার প্রমুখ৷ ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন অশোক রায় ৷

First published: 09:31:34 PM May 06, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर