• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • শহরে একের পর এক এটিএম জালিয়াতি, প্রতারিত SBI গ্রাহকেরা

শহরে একের পর এক এটিএম জালিয়াতি, প্রতারিত SBI গ্রাহকেরা

কলকাতায় পর পর ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। অ্যাকাউন্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা লোপাট এসবিআই গ্রাহকদের।

কলকাতায় পর পর ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। অ্যাকাউন্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা লোপাট এসবিআই গ্রাহকদের।

কলকাতায় পর পর ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। অ্যাকাউন্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা লোপাট এসবিআই গ্রাহকদের।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #কলকাতা: কলকাতায় পর পর ব্যাঙ্ক জালিয়াতি। অ্যাকাউন্ট থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা লোপাট এসবিআই গ্রাহকদের। সন্তোষপুর ও বাগুইআটির দুই গ্রাহকের অভিযোগ, তাঁদের অজান্তেই অ্যাকাউন্ট থেকে লোপাট হয়ে গিয়েছে টাকা। এরকম দুটি অভিযোগ জিমা পড়েছে সাইবার সেলে।

    এদেশের এটিএমে চিনা বিপদের শঙ্কা। সরকার বলছে, ভয়ের কিছু নেই। কিন্তু, শহর কলকাতার দুটো ঘটনা জানাচ্ছে, হ্যাঁ, ভয় পাওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

    উলুবেড়িয়ার পর সন্তোষপুর ৷ ব্যাঙ্ক জালিয়াতির শিকার সন্তোষপুরের ব্যবসায়ী ৷ যাদবপুর সন্তোষপুরের ২/সি অ্যাভেনিউর বাসিন্দা মৃণাল মণ্ডলের SBI যাদবপুর ইউনিভার্সিটি শাখার অ্যাকাউন্ট থেকে ২ লাখ ১৯ হাজার ৯৮৩ টাকা গায়েব হয়ে গিয়েছে ৷ খবর অনুযায়ী, গত ১৫ ও ১৭ অক্টোবর এটিএম থেকেই তুলে নেওয়া হয়েছে এই বড় অঙ্কের টাকা ৷ প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, ক্লোন করা হয়েছে এটিএম কার্ড ৷ ঘটনার তদন্তে নেমেছে লালবাজারের গোয়েন্দারা ৷ মৃণাল মণ্ডলের কাছে শেষ ৩টি ট্রানজাকশনের তথ্য চেয়েছে পুলিশ ৷

    একই ভাবে প্রতারিত হয়েছেন বাগুইআটির বাসিন্দা সুস্মিতা দাসও। অ্যাকাউন্ট থেকে ৮২ হাজার টাকা খোয়ালেন এসবিআই গ্রাহক। তেঘরিয়ার বাসিন্দা সুস্মিতা দাসের অভিযোগ, গত ২০ ও ২১ তারিখে তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়েছে ৮২ হাজার টাকা। তাঁর দাবি, সংবাদমাধ্যমে জালিয়াতির খবর দেখে সচেতন হন তিনি। এরপর, এটিএম কার্ডের মাধ্যমে অ্যাকাউন্ট থেকে ১ হাজার টাকা তোলেন। এটিএম রিসিপ্টের মাধ্যমেই জালিয়াতির বিষয়টি জানতে পারেন। এনিয়ে তাঁর কাছে তোনও এসএমএস আসেনি বলেও অভিযোগ ক্যালকাটা পাবলিক স্কুলের ওই শিক্ষিকার। এরপরই তিনি ওই এটিএম কার্ডটি ব্লক করান। প্রথমে বাগুইআটি থানায় ওই পরে বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

    শুক্রবার একইরকমভাবে প্রতারিত হয়েছেন পেশায় উলুবেড়িয়া আদালতের কর্মচারী গঙ্গারামপুরের বাসিন্দা রাজু দত্ত ৷ বিভিন্ন রাজ্য থেকে তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে ৭২ হাজার টাকা ৷

    ব্যাঙ্ক জালিয়াতির তদন্তে নেমেছে লালবাজার ও বিধাননগর সাইবার ক্রাইম থানা। কিন্তু, লোপাট হওয়া টাকা উদ্ধারের উপায় কী? কপালে চিন্তার ভাঁজ গ্রাহকদের।

    First published: