Narada Scam Update: চাপ সৃষ্টি করতেই সিবিআই অফিসে মুখ্যমন্ত্রী, হাইকোর্টের শুনানিতে অভিযোগ তুষার মেহতার

মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ ,সিবিআই-এর৷

কলকাতা হাইকোর্টে চলছে নারদ মামলার (Narada Scam Update) শুনানি৷ সওয়াল জবাব চলছে চার নেতা এবং সিবিআই-এর আইনজীবীদের মধ্যে৷

  • Share this:

    #কলকাতা: গত সোমবার সিবিআই দফতরে গিয়ে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার অফিসারদের উপরে চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কলকাতা হাইকোর্টে নারদ মামলার শুনানিতে সিবিআই-এর হয়ে সওয়াল করতে গিয়ে এমনই গুরুতর অভিযোগ করেছেন সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতার৷ একই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, খোদ রাজ্যের আইনমন্ত্রী মলয় ঘটক প্রচুর সংখ্যক সমর্থকদের নিয়ে সশরীরে সিবিআই-এর বিশেষ আদালতে হাজির থেকে বিচারকের উপরে চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন৷ এ সবই পরিকল্পনা মাফিক করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন তুষার মেহতা৷

    প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে ভার্চুয়াল শুনানি চলাকালীন তুষার মেহতা এ দিন অভিযোগ করেন, চার অভিযুক্ত নেতাকে গ্রেফতারির খবর পেয়েই নিজাম প্যালেসে সিবিআই দফতরে হাজির হন মুখ্যমন্ত্রী৷ সেখানে গিয়ে তিনি তাঁকেও গ্রেফতার করার জন্য সিবিআই অফিসারদের বলেন৷ নিঃশর্তভাবে অভিযুক্তদের ছেড়ে দেওয়ার জন্য়ও তিনি দাবি জানান বলে অভিযোগ করেন তুষার মেহতা৷ এর পাশাপাশি, মুখ্যমন্ত্রী দীর্ঘক্ষণ সিবিআই অফিসে বসে থেকে চাপ সৃষ্টির চেষ্টা করেন বলেও অভিযোগ করেছেন তুষার মেহতা৷

    প্রসঙ্গত, গত সোমবার নারদ কাণ্ডে ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতারির খবর পেয়েই নিজাম প্যালেসে সিবিআই দফতরে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ প্রায় ৬ ঘণ্টা সেখানে ছিলেন তিনি৷ যদিও তৃণমূল নেতা এবং মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের হয়ে সওয়াল করতে গিয়ে এ দিন আইনজীবী অভিষেক মনু সিংভি আদালতে দাবি করেন, দলীয় নেতাদের প্রতি সহানুভূতি জানাতেই সিবিআই অফিসে যান মুখ্যমন্ত্রী৷

    এ দিন সিবিআই অফিসে মুখ্যমন্ত্রী এবং নিম্ন আদালতে আইনমন্ত্রীর উপস্থিতির কথা উল্লেখ করে একগুচ্ছ অভিযোগ করেছেন তুষার মেহতা৷ তিনি অভিযোগ করেন, গত সোমবার চার নেতাকে গ্রেফতারের পর ইচ্ছাকৃত ভাবে সিবিআই অফিস চত্বরে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানো হয়৷ ফলে একদিকে যেমন ধৃত নেতাদের মেডিক্যাল টেস্ট করাতে নিয়ে যাওয়া যায়নি, সেরকমই তাঁদের সশরীরে আদালতেও পেশ করানো যায়নি৷ এমন কি, আদালতে কেস ডায়েরি পেশ করতে গিয়েও সমস্যায় পড়়েন সিবিআই-এর আইনজীবীরা৷ সিবিআই অফিসারদের হুমকি দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ করেন সলিসিটর জেনারেল৷

    এই সমস্ত অভিযোগ করে তুষার মেহতা দাবি করেন, এর পরেও ধৃত নেতাদের জামিন দিলে ভবিষ্যতেও এই ধরনের ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করা হলে একই ভাবে তদন্তকারী সংস্থার উপরে চাপ সৃষ্টির কৌশল নেওয়া হবে৷ যদিও অভিষেক মনু সিংভি পাল্টা যুক্তি দিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী বা তৃণমূলের অন্য বিধায়করা কেউই সিবিআই অফিসে গিয়ে অশান্তি করেননি৷ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ জানিয়েছেন তাঁরা৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: