কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বায়ুদূষণ রুখতে সিগন্যালের লাল আলোয় বন্ধ রাখুন গাড়ির ইঞ্জিন, নিউটাউনে অভিনব প্রচার

বায়ুদূষণ রুখতে সিগন্যালের লাল আলোয় বন্ধ রাখুন গাড়ির ইঞ্জিন, নিউটাউনে অভিনব প্রচার

যাত্রীদের উদ্দেশে তাঁদের অনুরোধ, সিগন্যাল লাল থাকাকালীন গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ রাখুন। কিছুক্ষণ ইঞ্জিন বন্ধ রাখলে পরিবেশে দূষণের মাত্রা কিছুটা হলেও রোধ করা সম্ভব।

  • Share this:

#কলকাতা: নিউ নর্মালে স্বাভাবিক করা জীবনযাত্রা। ধীরে ধীরে খুলছে একাধিক অফিস। ফলে নিত্যদিন বাড়ছে অফিস যাত্রীর সংখ্যা। তার সাথে পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে গাড়ি। ফলে গাড়ি থেকে বাড়ছে দূষণের মাত্রা। তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাধের ‘প্ল্যানড সিটি’তে দূষণ রোধে ব্যবস্থা নিচ্ছে হিডকো ও এনকেডিএ। তাছাড়া নিউটাউন গ্রিন সিটি তাই তা রক্ষা করতে তৎপর সব পক্ষই। এই অবস্থায় গাড়ির ধোঁয়া থেকে তৈরি হওয়া দূষণ নিয়ন্ত্রণে এবার একযোগে প্রচার অভিযানে নামল বিধাননগর পুলিস, নবদিগন্ত এবং হিডকো কর্তৃপক্ষ। পেট্রোল, ডিজেল চালিত গাড়ির চালক ও যাত্রীদের উদ্দেশে তাঁদের অনুরোধ, সিগন্যাল লাল থাকাকালীন গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ রাখুন। কিছুক্ষণ ইঞ্জিন বন্ধ রাখলে পরিবেশে দূষণের মাত্রা কিছুটা হলেও রোধ করা সম্ভব।

আজ থেকেই সল্টলেক, নিউটাউনের বিভিন্ন জায়গায় স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তায় প্রচার অভিযানে নামা হল। ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে এই প্রচার। হিডকো সূত্রে জানা গিয়েছে, বিধাননগর পুলিস কমিশনারেট এলাকার যে সব ক্রসিংয়ে গাড়ির চাপ সবচেয়ে বেশি, সেখানে থাকবে বাড়তি নজরদারি। মূলত পাঁচটি ক্রসিংয়ে বাড়তি উদ্যোগ নিয়েই প্রচার চালানো হবে। সবচেয়ে বেশি গাড়ি থাকে সেক্টর ফাইভের কলেজ মোড়, টেকনোপলিস, নিউটাউনের ইকোপার্ক, বিশ্ববাংলা গেট এবং সিটি সেন্টার ২। ফলে এই সব জায়গায়া বাতাসে ভাসমান ধূলিকণার মাত্রাও অনেক বেশি। আর এই সব জায়গায় একাধিক অফিস থাকায়, গাড়ি যাতায়াতের সংখ্যাও অনেক বেশি।

হিডকো চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন জানিয়েছেন, "সিগন্যালে দাঁড়িয়ে থাকার সময় ইঞ্জিন বন্ধ রাখার জন্য আবেদন জানানো হবে চালকদের। এতে যেমন জ্বালানি সাশ্রয় হবে, তেমন‌ই পরিবেশে দূষণের মাত্রাও বেশ খানিকটা কমবে।"এই কাজে সহায়তা করবে ইন্ডিয়ান অয়েল করপোরেশন। বায়ু দূষণের সমীক্ষা বলছে, এক লিটার পেট্রল অথবা ডিজেল থেকে আড়াই কেজি পর্যন্ত কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গত হতে পারে। যা পরিবেশের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর। তাই গাড়ির জ্বালানি থেকে তৈরি হওয়া দূষণকে নিয়ন্ত্রণ করতে বিশেষভাবে তৎপর হয়েছে হিডকো এবং নবদিগন্ত কর্তৃপক্ষ। বিধাননগর পুলিস ও বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সদস্যরা ক্রসিংগুলিতে তাই আগামী ১৫ দিন প্রচার চালাবেন। স্বেচ্ছাসেবকদের হাতে থাকবে প্ল্যাকার্ড। সিগন্যালে দাঁড়িয়ে থাকার সময় প্ল্যাকার্ড হাতে গাড়ির সামনে দাঁড়াবেন তাঁরা। প্ল্যাকার্ডে লেখা থাকছে ‘গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ রাখুন।’ যদি কোন‌ও চালক সিগন্যালে দাঁড়িয়ে থাকাকালীন গাড়ির ইঞ্জিন চালু রাখেন, সেক্ষেত্রে তাঁদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলবেন স্বেচ্ছাসেবকরা। বিষয়টি সম্পর্কে বোঝানো হবে চালকদের।

সেক্টর ফাইভ বা নিউটাউন এই মুহূর্তে তথ্যপ্রযুক্তি হাব। বহু মানুষ যেমন গণ পরিবহন ব্যবস্থার মাধ্যমে যাতায়াত করেন। তেমনি অনেকেই আবার যাতায়াত করেন নিজের গাড়িতে। ফলে গাড়ির সংখ্যা এখানে অনেক বেশি। এছাড়া বিভিন্ন সিগন্যালে আগে কে অতিক্রম করে যাবেন তার জন্যে অনেকেই গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করতে চান না। তার জেরেই এই দূষণ সমস্যা তৈরি হয়। তবে শুধু ১৫ দিনের প্রচার নয়। হিডকো ও নবদিগন্ত চাইছে সারাবছর এই প্রচার চলুক। আরও নানা উপায়ে এই প্রচার চালাতে ভাবনা চিন্তা শুরু হয়েছে। তাহলেই এই পরিকল্পিত গ্রিন সিটি'তে দূষণের মাত্রা কমিয়ে ফেলা যাবে। তবে প্রশাসনের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে নিউটাউনের বাসিন্দারা।

Published by: Dolon Chattopadhyay
First published: December 1, 2020, 9:18 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर