শুভেন্দুকে আটকাতে ফের বৈঠকে বসতে চায় তৃণমূল

শুক্রবার সকাল থেকে প্রথমে সরকারি নিরাপত্তারক্ষী ছেড়ে দেন শুভেন্দু অধিকারী। একে একে পদত্যাগ করেন এইচডিএ চেয়ারম্যান, রাজ্য পরিবহণ, সেচ ও জলসম্পদ দফতরের মন্ত্রী থেকে।

শুক্রবার সকাল থেকে প্রথমে সরকারি নিরাপত্তারক্ষী ছেড়ে দেন শুভেন্দু অধিকারী। একে একে পদত্যাগ করেন এইচডিএ চেয়ারম্যান, রাজ্য পরিবহণ, সেচ ও জলসম্পদ দফতরের মন্ত্রী থেকে।

  • Share this:

#কলকাতা: "পদের মোহ আমার নেই। আমি জনগণের মধ্যেই থাকতে ভালোবাসি। চাইলে আমি সব পদ ছেড়ে চলে যাব।" গত কয়েকদিন ধরে ঘনিষ্ঠ মহলে এমনটাই জানিয়ে আসছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। অবশেষে সমস্ত পদ ছেড়ে দিলেন তিনি। মন্ত্রীত্ব থেকে চেয়ারম্যান সমস্ত পদ ছাড়লেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক। এখন তিনি শুধুমাত্র সাধারণ বিধায়ক হিসাবেই থাকবেন।

সূত্রের খবর, শীঘ্রই তিনি দিল্লি যেতে পারেন। তবে দল বদলের ব্যাপারে এখনও নিশ্চিত ভাবে মুখ খুলতে রাজি নয় শুভেন্দু শিবির। ইঙ্গিত মিলেছিল বৃহস্পতিবার বিকেলেই। এইচআরবিসি চেয়ারম্যান পদ থেকে যখন পদত্যাগ করেন শুভেন্দু অধিকারী। দেরি না করে, সরকার চেয়ারম্যান হিসেবে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা করে। যে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর রাজনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে বারবার প্রশ্ন উঠেছে। এর পরেই শুক্রবার সকাল থেকে প্রথমে সরকারি নিরাপত্তারক্ষী ছেড়ে দেন তিনি। একে একে পদত্যাগ করেন এইচডিএ চেয়ারম্যান, রাজ্য পরিবহণ, সেচ ও জলসম্পদ দফতরের মন্ত্রী থেকে।

এখন জোর জল্পনা দল থেকেও তিনি শীঘ্রই পদত্যাগ করবেন। সূত্রের খবর, শুভেন্দুকে আটকাতে এখনও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। দলে যে সব সদস্যদের সাথে তাঁর সমস্যা রয়েছে, তাঁদেরকে নিয়ে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।যদিও এই বিষয়ে প্রকাশ্যে মুখ খুলতে নারাজ উভয় পক্ষই। তবে তৃণমূল সূত্রে খবর, দলের তিন সাংসদ ও ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোর ফের শুভেন্দু অধিকারীর সাথে আলোচনায় বসতে পারেন। সেক্ষেত্রে, দলে তাঁর যে যে সমস্যা রয়েছে সেই সমস্যা কাটাতে উদ্যোগী হবেন তিনি। প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলানোর পাশাপাশি, শুভেন্দু অধিকারী দলের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

সংগঠক হিসেবেও শুভেন্দুকে নিয়ে কোনও সংশয় নেই দলের মধ্যে। ফলে তাঁকে ছাড়া আগামী বিধানসভা ভোটে লড়াই করতে হলে, সেটা যে চিন্তার কারণ হতে পারে সেই বিষয়ে এক প্রকার নিশ্চিত তৃণমূল কংগ্রেসেও। ফলে রাজ্যের শাসক দলের নেতারা চাইছেন শুভেন্দুর মন বোঝার শেষ চেষ্টা করতে। যদিও দলের অপর একটি সূত্রের খবর, শুভেন্দু দল ছাড়তে পারেন এমন ইঙ্গিত আগেই মিলেছিল। তাই দলও প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল। কিন্তু এভাবে শুভেন্দুর দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ায় তৃণমূল শিবিরও চিন্তিত।

আবীর ঘোষাল

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: