Home /News /kolkata /
TMC: মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে যান, মানুষকে পরিষেবা দিন, দলের কর্মীদের বার্তা তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের

TMC: মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে যান, মানুষকে পরিষেবা দিন, দলের কর্মীদের বার্তা তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের

তৃণমূলের নয়া কর্মসূচি

তৃণমূলের নয়া কর্মসূচি

TMC: অভিষেক বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছেন, "তৃণমূল কংগ্রেস আসলে সাধারণ মানুষের দল। এই দল কর্মীদের। এটা নেতাদের দল নয়।"

  • Share this:

#কলকাতা:  পার্থ চট্টোপাধ্যায় অধ্যায় নিয়ে বসে থাকতে রাজি নয় তৃণমূল কংগ্রেস। তাই অস্বস্তি কাটিয়ে মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছনোর জন্যে বার্তা দিল দল। দলের নীচু তলার কর্মীদের পরিষেবা প্রদানে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে থাকার বার্তা পাঠিয়েছে দল। পার্থ নিয়ে বিরোধীরা সাঁড়াশি আক্রমণ শানিয়েছে তৃণমূলের দিকে। বাম-বিজেপি-কংগ্রেসের আক্রমণে প্রাথমিক ভাবে অস্বস্তিতেও পড়েছিল। দলের সমস্ত পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া ও সাসপেন্ড করার মধ্যে দিয়ে পার্থর সঙ্গে দূরত্ব চওড়া করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। প্রশাসনিক পদক্ষেপেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে৷ আর এই অবস্থায়, দল তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে পার্থর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের যে কোনও সম্পর্ক নেই তা বোঝাতে এ বার তৎপর তৃণমূল কংগ্রেস।

আরও পড়ুন - আটক হওয়ার পর গ্রেফতার সঞ্জয় রাউত! 'ঝুকেগা নেহি', বললেন শিবসেনা নেতা

আর সেই কারণেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, দলীয় কর্মীরা যাতে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে যান৷ মানুষের কাছে পরিষেবা পৌঁছে দিতে হবে সকলকে। ইতিমধ্যেই দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছেন, "তৃণমূল কংগ্রেস আসলে সাধারণ মানুষের দল। এই দল কর্মীদের। এটা নেতাদের দল নয়।" আর তাই বিভিন্ন কর্মসূচি থেকে শুরু করে একাধিক ইস্যুতে ফের মানুষের ঘরে পৌছে যাওয়া বা দলীয় কর্মসূচির প্রস্তুতি শুরু করে দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূল কংগ্রেস মুখপাত্র কুণাল ঘোষ জানিয়েছেন, "মানুষের ঘরে ঘরে যান।মুখ্যমন্ত্রীর স্কিম নিয়ে মানুষের কাছে যান।" রাজনৈতিক মহলের ধারণা আগামী বছর রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন। এগিয়েও আসতে পারে পঞ্চায়েত ভোট। এই অবস্থায় মানুষের কাছে পৌঁছে পরিষেবা দেওয়াটাই আসল কাজ বলে মনে করছে দল৷

আরও পড়ুন- ইলেকট্রিক প্লাগের তৃতীয় পিনটা কেন থাকে ভেবেছেন কখনও? ওটাই কিন্তু আসল, কারণ জানলে অবাক হবেন

২০২১ এর সাধারণ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস যে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিল তার একটা প্রধান কারণ একাধিক সামাজিক স্কিম। সরকার গঠনের পরে সেই স্কিম পৌছে দেওয়ার কাজ সমস্ত স্তরেই শুরু হয়ে গিয়েছে। সেই কাজে যাতে আর কোনও বাধা না আসে সেটাই নিশ্চিত করতে চাইছে শাসক দল। অন্যদিকে, দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে পরিষ্কার বার্তা দেওয়া হয়েছে, "কোনও কর্মী ভুল করলে দল বা মুখ্যমন্ত্রী ছেড়ে কথা বলবেন না।" এক্ষেত্রে পার্থর উদাহরণ সামনে টেনে এনে রেখেছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। অন্য দিকে, অভিষেক বন্দোপাধ্যায় হলদিয়া বা ধূপগুড়ির সভায় যে বার্তা দিয়েছিলেন, নেতার স্তাবকতা  করা যাবে না। পারফরম্যান্স শেষ কথা। সেই কথা আরও একবার মনে করিয়ে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস।  দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ জানিয়েছেন, দল যাকে যা দায়িত্ব দেবে তা নিয়েই এগিয়ে চলতে হবে। সামনে বিশ্ব আদিবাসী দিবসে কর্মসূচি নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। আগামী ৯ আগস্টের সেই কর্মসূচির জন্যে প্রস্তুতি শুরু করতে বলা হয়েছে নিজ নিজ এলাকায়। এ ছাড়া চলতি মাসের শেষে রয়েছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের অনুষ্ঠান। তার জন্যেও ছাত্র সংগঠনকে প্রস্তুতি শুরু করে দিতে বলা হয়েছে। সর্বোপরি তৃণমূল কংগ্রেস বেরিয়ে আসতে চাইছে পার্থ ইস্যু থেকে। তারা চাইছে মানুষের কাছে গিয়ে, মানুষের কথা বলতে।

Abir Ghosal

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: TMC

পরবর্তী খবর