• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • মমতা- সৌগত কথা, শুভেন্দুর সঙ্গে আলোচনা বন্ধ করছে তৃণমূল

মমতা- সৌগত কথা, শুভেন্দুর সঙ্গে আলোচনা বন্ধ করছে তৃণমূল

Photo-File

Photo-File

সৌগত রায় এ দিন জানিয়েছেন, শুভেন্দুর হোয়াটসঅ্যাপ বার্তার জবাবও তিনি দিয়েছেন৷

  • Share this:

    #কলকাতা: শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে আর নতুন করে আলোচনা করবে না তৃণমূল কংগ্রেস৷ সূত্রের খবর, দলনেত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়ের আলোচনার পর এমনই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ এমন কি, শুভেন্দু অধিকারী সৌগত রায়কে হোয়াটসঅ্যাপ করে জানিয়ে দিয়েছিেলন, 'আপনাদের সঙ্গে আর একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়৷' তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় এ দিন জানিয়েছেন, শুভেন্দুর হোয়াটসঅ্যাপ বার্তার জবাবও তিনি দিয়েছেন৷ তৃণমূলের তরফে যে আর নতুন করে আলোচনায় বসা হবে না, সেখানেই শুভেন্দুকে সম্ভবত সেই বার্তাও দিয়ে দিয়েছেন সৌগত রায়৷

    গত মঙ্গলবার রাতে কলকাতায় শুভেন্দুর সঙ্গে আলোচনায় বসেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রশান্ত কিশোর৷ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দুই সাংসদ সৌগত রায় এবং সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়৷ এই বৈঠকের শেষ দিকে ফোনে শুভেন্দুর সঙ্গে কথা বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও৷ বৈঠকের পরেই তৃণমূলের তরফে দাবি করা হয়, দলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর সব সমস্যা মিটে গিয়েছে, তিনি দলেই থাকছেন৷

    কিন্তু বুধবার সকালেই ফের নাটকীয় পট পরিবর্তন হয়৷ সৌগত রায়কে হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় শুভেন্দু অভিযোগ করেন, তাঁর সমস্ত বক্তব্য বা অভিযোগের মীমাংসা না করেই একতরফা ভাবে তৃণমূলের তরফে বৈঠক সফল বলে দাবি করা হয়েছে৷ বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রশান্ত কিশোর যে থাকবেন তা তাঁকে জানানো হয়নি বলেও অভিযোগ করেন শুভেন্দু৷ ফলে এর পর আর তৃণমূলে থেকে একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয় বলে হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় জানিয়ে দেন প্রাক্তন পরিবহণমন্ত্রী৷

    শুভেন্দুর এই সমস্ত যুক্তি মানতে নারাজ তৃণমূল নেতৃত্ব৷ তাঁদের পাল্টা প্রশ্ন, এত অভিযোগ থাকলে শুভেন্দু কেন দীর্ঘক্ষণ বৈঠকে অংশ নিলেন? আবার সংবাদমাধ্যমকে আগেভাগে সব বলা নিয়ে আপত্তি থাকলে সেই বার্তা দিতেই কেন বারো ঘণ্টারও বেশি সময় লাগল শুভেন্দুর৷ দলীয় নেতৃত্বের মতে, শুভেন্দুকে সসম্মানে ধরে রাখতে দলের তরফে চেষ্টার ত্রুটি রাখা হয়নি৷ কিন্তু এবার এই টানাপোড়েনে ইতি টানতে চাইছে দল৷ সৌগত রায়ও এ দিন হতাশার সুরে বলেছেন, 'শুভেন্দুকে নিয়ে আমার আর নতুন করে কিছু বলার নেই৷'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: