তৃণমূলের খসড়া তালিকা চূড়ান্ত, এবার বাদ পড়তে পারেন ওঁরা...

তৃণমূলের খসড়া তালিকা চূড়ান্ত, এবার বাদ পড়তে পারেন ওঁরা...

৩ মার্চের পরেই প্রার্থীতালিকা ঘোষণা করতে পারেন তৃণমূলনেত্রী।

একদিকে যেমন তারুণ্যে জোর দিচ্ছে তৃণমূল, অন্য দিকে অশীতিপরদের বিশ্রামে রাখতে চাইছে দল।

  • Share this:

    #কলকাতা: নির্বাচনী কমিটির বৈঠকে চূড়ান্ত হল তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী কাল  ৩ মার্চের পরেই প্রার্থীতালিকা পেশ করতে পারে তৃণমূল যেখানে থাকছে একাধিক চমক। একদিকে যেমন তারুণ্যে জোর দিচ্ছে তৃণমূল, অন্য দিকে অশীতিপরদের বিশ্রামে রাখতে চাইছে দল। কঠিন লড়াই থেকে বাদ দিতে চাইছে বয়স্ক ও অসুস্থদেরও। আর সেই কারণেই বাদ যেতে পারে বহু দুঁদে নেতার নামও।

    দিন কয়েক আগে নিজেকে প্রার্থী ঘোষণা করে দিয়েছিলেন শিবপুরের বর্ষীয়ান তৃণমূল বিধায়ক জটু লাহিড়ী। সূত্রের খবর, জটু লাহিড়ী এবার লড়াইয়ের টিকিট নাও পেতে পারেন বয়সজনিত কারণেই। আশির উপরে বয়স হাওড়া দক্ষিণের বিধায়ক ব্রজমোহন মজুমদারের। শীর্ষনেতৃত্বরা জানেন, হাওড়া এবার কঠিন ঠাঁই, দলত্যাগীদের জবাব দিতে চাই শক্ত হাত। কাজেই বিশ্রাম দেওয়া হতে পারে ব্রজমোহন বাবুকে। বাদ যেতে পারেন সিঙ্গুরের মাস্টারমশাই রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্যও।

    প্রসঙ্গত দিন কয়েক আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিজেই চিঠি লিখে নির্বাচনী লড়াই থেকে অব্যহতি চেয়েছিলেন রবিরঞ্জন  চট্টোপাধ্যায়। ২০১১ সালে নিরুপম সেনকে ৩০ হাজারের বেশি ভোটে হারিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রীসভায় আসেন রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়। ২০১৬ সালেও রেকর্ড মার্জিনে জেতেন। কিন্তু এবার বয়সজনিত কারণেই ব্যাটনটা তুলে রাখতে চাইছিলেন তিনি। তাঁর সিদ্ধান্তকেই সম্মান করতে চাইছে দল। বিশ্রাম দেওয়া হতে পারে আব্দুর রজ্জাক মোল্লাকেও। যদিও বর্ষীয়াণ নেতা সুব্রত মুখোপাধ্য়ায় নাকি নিজেই নির্বাচনে লড়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

    তৃণমূল সূত্রে খবর প্রার্থীতালিকা বাছাইয়ের ব্যাপারে দল চাইছে ৪০ বছরের কম বয়সের প্রার্থীর সংখ্যা বাড়াতে। পাশাপাশি মহিলা প্রার্থীর ওপর বিশেষ নজর দিতে চাইছে দল। অন্তত চার হেভিওয়েট নেতা মন্ত্রীদের আসন বদলের সম্ভাবনা রয়েছে এবার।

    বরং দলের তরফে বেশ কিছু যুব নেতাদের প্রার্থী করা হতে পারে। টিকিটের দৌঁড়ে এগিয়ে আছেন, সুপ্রকাশ গিরি, দেবাংশু চক্রবর্তী, রাজ চক্রবর্তী, সায়নী ঘোষরা।

    Published by:Arka Deb
    First published: