শেষ দফায় বাংলা থেকে ভোটে দাঁড়ান মোদি- শাহ, পাল্টা চ্যালেঞ্জ তৃণমূলের

শেষ দফায় বাংলা থেকে ভোটে দাঁড়ান মোদি- শাহ, পাল্টা চ্যালেঞ্জ তৃণমূলের

মোদি- শাহকে চ্য়ালেঞ্জ তৃণমূলের৷

স্বল্প সঞ্চয়ে সুদ কমানোর সিদ্ধান্ত এবং তারপর তা প্রত্যাহার করা নিয়ে যে বিতর্ক শুরু হয়েছে, তা নিয়েও এ দিন কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব৷

  • Share this:

    #কলকাতা: বাংলাকে এত ভালবাসলে রাজ্যে থেকেই ভোটে লড়ুন নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহ৷ নন্দীগ্রামের ভোট পর্বের শেষে এমনই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়েন৷ একই সঙ্গে উলুবেড়িয়ার সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রীর অন্য আসন থেকে দাঁড়ানো নিয়ে যে দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী, তাকে 'সস্তার মন্তব্য' বলে পাল্টা কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল সাংসদ৷

    দ্বিতীয় পর্বের ভোট শেষে তৃণমূলের দাবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রাম থেকে জিতে গিয়েছেন৷ বিজেপি-র হার সুনিশ্চিত৷ বিজেপি বা অমিত শাহের কোনও মনোস্তাত্ত্বিক খেলাতেই কাজ হবে না বলেও দাবি করেছেন ডেরেক৷ একই সঙ্গে তৃণমূল সাংসদ দাবি করেছেন, ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের তুলনায় এবার প্রথম দুই পর্ব থেকেই ভাল শুরু করেছে তৃণমূল৷

    এ দিন উলুবেড়িয়ার সভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, নন্দীগ্রামে নিজের হার তা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মেনে নিয়েছেন৷ এর পরেই রাজনৈতিক জল্পনা বাড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ''দিদি, এখনও শেষ দফার ভোটের জন্য মনোনযন জমা দেওয়া চলছে৷ কানাঘুষো শুনছি আপনি নাকি শেষ পর্বের ভোটের জন্য অন্য কোনও আসন থেকে মনোনযন জমা দিতে পারেন, এটা কি সত্যি? আপনি নন্দীগ্রামে গেলেন, মানুষ আপনাকে জবাব দিয়ে দিয়েছে৷ আপনি অন্য কোথাও গেলেও বাংলার মানুষ তৈরি হয়ে রয়েছে৷'

    প্রধানমন্ত্রীর এই দাবি আগেই খারিজ করে দিয়েছিল তৃণমূল নেতৃত্ব৷ প্রধানমন্ত্রীর এই দাবিকে নোংরা এবং সস্তার মন্তব্য বলে আমরা প্রধানমন্ত্রীর পদকে সম্মান করি৷ কিন্তু নরেন্দ্র মোদি এই ধরনের মন্তব্য করলে তাঁর প্রতি আমাদের কোনও সম্মান থাকে না৷ নির্বাচনের মাঝখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দ্বিতীয় কোনও আসনে লড়বেন বলে তিনি যে দাবি করেছেন, তাকে আমরা সস্তার রাজনৈতিক কৌশল বলেই মনে করি৷ ৬ এপ্রিল শেষ দফার মনোনয়নের শেষ দিন৷ আপনারা বাংলাকে এত ভালবাসলে শেষ দফায় বাংলার কোনও আসন থেকে ভোটে দাঁড়ান না নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহ৷ আমরা আপনাদের স্বাগত জানাচ্ছি৷ আপনাদের এতজন সাংসদ তো লড়ছেন৷

    স্বল্প সঞ্চয়ে সুদ কমানোর সিদ্ধান্ত এবং তারপর তা প্রত্যাহার করা নিয়ে যে বিতর্ক শুরু হয়েছে, তা নিয়েও এ দিন কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছে তৃণমূল নেতৃত্ব৷ প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং সদ্য দলে যোগ দেওয়া যশবন্ত সিনহা দাবি করেন, ২ মে ভোট শেষ হলেই ফের এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে৷ কীভাবে এত বড় সিদ্ধান্ত ভুলবশত নেওয়া হল, সেই সংক্রান্ত সমস্ত নথি প্রকাশ্যে আনার দাবি জানিয়েছে তৃণমূল৷ একই সঙ্গে জানানো হয়েছে, এ দিন নির্বাচন পর্বে নন্দীগ্রামে যে যে অভিযোগ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তুলেছেন, সেগুলি নিয়ে ফের নির্বাচন কমিশনের কাছে দরবার করা হবে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: